মাইক্রোইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

মাইক্রোইতিহাস বা মাইক্রোহিস্টরি (microhistory) হচ্ছে ইতিহাসের একটি ঘরানা যা গবেষণার ছোট একক গুলোতে যেমন একটি কর্মশালা (ইভেন্ট), সম্প্রদায়, ব্যক্তি বা কোনও বন্দোবস্ত ইত্যাদির দিকে মনোযোগ নিবদ্ধ করে। চার্লস জয়নারের প্রদত্ত সংজ্ঞা অনুসারে, এটির উচ্চাকাঙ্ক্ষায় অবশ্য মাইক্রোহিস্টোরিটিকে সাধারণ কেস স্টাডি থেকে যতটা সম্ভব আলাদা করা যায় কারণ মাইক্রোহিস্টোরি "ছোট জায়গায় বড় প্রশ্ন জিজ্ঞাসা" করতে আগ্রহী।[১] এটি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ইতিহাসের সাথে নিবিড়ভাবে জড়িত।

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

মাইক্রোইতিহাস বা মাইক্রোহিস্টরি ১৯৭০ এর দশকে ইতালিতে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল। [২] এই পদ্ধতির অন্যতম পথিকৃৎ জিওভান্নি লেভির মতে, এটি বিদ্যমান ঐতিহাসিক দৃষ্টিভঙ্গিতে অনুভূত সংকটের প্রতিক্রিয়া হিসাবে শুরু হয়েছিল। [৩] মাইক্রো হিস্টোরির আরেক প্রতিষ্ঠাতা কার্লো গিন‌্জবার্গ লিখেছেন যে তিনি সর্বপ্রথম ১৯৭৭ সালের দিকে শব্দটি শুনেছিলেন এবং তার পরেই লেভি এবং সাইমোনা সেরুটির সাথে মাইক্রোস্টোরিতে কাজ শুরু করেছিলেন, মাইক্রোস্টোরি হলো মাইক্রোহিস্টোরিক্যাল কাজের একটি সিরিজ। [৪]

"মাইক্রোহিসটরি" শব্দটি ১৯৫৯ সালের, যখন আমেরিকান ত য়ার্ট পিকেট্স চার্জ:আ মাইক্রোহিস্টোরি অভ দ্য ফাইনাল অ্যাটাক অন গেটিসবার্গ, জুলাই ৩, ১৮৬৩ (Pickett's Charge: A Microhistory of the Final Attack on Gettysburg) প্রকাশ করেছিলেন, এতে গেটিসবার্গের যুদ্ধের চূড়ান্ত দিনের গল্পটি বর্ণনা করা হয়েছে।[৪] আরেকটি প্রাথমিক ব্যবহার করেছিলেন অ্যানালিস ঐতিহাসিক ফার্নানড ব্রুডেল, যার জন্য গ্রামীণ ইতিহাসের বিষয়ে অনেকের নেতিবাচক ধারণা ছিল, তিনি বিভিন্ন ইভেন্টের ইতিহাস নিয়ে অত্যধিক উদ্বিগ্ন ছিলেন। [৪] এই শব্দটির তৃতীয় প্রাথমিক ব্যবহারটি ছিল লুইস গঞ্জালিজের ১৯৬৮ সালের পুয়েব্লো এন ভিলো: মাইক্রোহিস্টোরিয়া দে সান জোসে দে গ্র্যাসিয়া (Pueblo en vilo: Microhistoria de San José de Gracia) শিরোনামে । [৪]

অভিলক্ষ্য[সম্পাদনা]

মাইক্রোঐতিহাসিক বা মাইক্রোহিস্টোরিকাল পদ্ধতির সবচেয়ে স্বতন্ত্র দিকটি হলো তদন্তের ছোট স্কেল। [২] সামাজিক বিজ্ঞান দ্বারা তৈরি সাধারণীকরণগুলোর প্রতিক্রিয়ায় ও পরিবর্তে মাইক্রোঐতিহাসিকরা (মাইক্রোহিস্টোরিয়ান) সমাজের ছোট ছোট ইউনিটগুলিতে মনোনিবেশ করেন, যেখানে সামাজিক বিজ্ঞান এইসব বিষয়গুলোকে উপেক্ষা করে।[৫] উদাহরণস্বরূপ, গিন‌্জবার্গের ১৯৭৬ সালের দ্য পিজ অ্যান্ড দ্য ওয়ার্মস – "সম্ভবত মাইক্রোহিসটরির সর্বাধিক জনপ্রিয় ও বহুল পঠিত রচনা" [২] – যাতে ষোড়শ শতাব্দীর একজন ইতালীয় মিলশ্রমিক মেনোচিওর জীবন নিয়ে অনুসন্ধান করে। ব্যক্তিক মাইক্রোঐতিহাসিক কাজ হলো উঠতে-বসতে উদ্বিগ্ন থাকা যাকে রবার্ট ট্রিসট্যানো "ছোট মানুষ" হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন, আরো ভেঙ্গে বললে 'ধর্মান্ধদের মতো'। [২]

কার্লো গিন্‌জবার্গ লিখেছেন যে মাইক্রোইতিহাসের একটি মূল নীতি ঐতিহাসিক বিবরণের অংশ ল্যাকুনির মতো উৎসগুলোতে বাঁধার সৃষ্টি করে। [৪] এরই সাথে সম্পর্কিতভাবে, লেভি বলেছেন যে গবেষকের দৃষ্টিভঙ্গি মাইক্রোইতিহাসের বিবরণের অংশ হয়ে যায়। [৩] মাইক্রোঐতিহাসিক পদ্ধতির প্রেক্ষিতে মাইক্রোইতিহাসের অন্যান্য উল্লেখযোগ্য দিক হলো অভিজাত ও জনপ্রিয় সংস্কৃতির মিথস্ক্রিয়ার প্রতি আগ্রহ এবং [২] ইতিহাসের মাইক্রো ও ম্যাক্রো স্তরের মধ্যে মিথস্ক্রিয়ার প্রতি আগ্রহ। [২]

উল্লেখযোগ্য মাইক্রো ইতিহাসবেত্তাগন[সম্পাদনা]

▪ উফগ্যাঙ বেরিনজার
▪ জ্যারুস্লেভ সেচুরা
▪ সাইমনা সেরুটি
▪ অ্যালেই কোর্বিন
▪ জন জে. কারি
▪ রবার্ট ডার্নটন
▪ নাটালি যেমোন ডেভিস
▪ থিও ভেন ডারসেন
ক্লিফোর্ড গার্টস
▪ কার্লো গিন্‌জবার্গ
▪ লুইস গোঞ্জালেজ ওয়াই গোঞ্জালেজ
▪ মৌরিজিও গ্রিবাডি
▪ ক্রেইগ হ্যার্লাইন
▪ সিনথিয়া এ. কেইর্নার
▪ মার্ক কার্ল্যানস্কাই
▪ ইমানুয়েল লি রয় ল্যাডুরাই
▪ জিওভান্নি লেভি
▪ সিগারাওর গিলফি ম্যাগনুশন
▪ লুইস মোট
▪ লেসলি পিয়ের্স
▪ ডেটলেভ পিউকার্ট
▪ ওসভালডো র‍্যাগিও
▪ জ্যাকুইস র‍্যাভেল
▪ গুইডো রুগিয়েরো
▪ ডেভিড সেবিন
▪ মিমি শেলার
▪ জোনাথন ডি. স্পেন্স
▪ অ্যালান টেলর
▪ স্টেলা টিলিয়ার্ড
▪ ই. পি. থম্পসন
▪ আলফ্রেড এফ. ইয়ঙ
▪ ক্যারোলিম স্টিডম্যান
▪ লরেল থ্যাচার উলরিচ
▪ রবার্ট বিকার্স

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Joyner, C. W. Shared Traditions: Southern History and Folk Culture, (Urbana: University of Illinois, 1999), p. 1.
  2. Tristano 1996
  3. Burke 1991
  4. Ginzburg, Tedeschi এবং Tedeschi 1993
  5. Magnússon, Sigurdur Gylfi (২০০৩)। "'The Singularization of History': Social History and Microhistory within the Postmodern State of Knowledge": 709। 

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]