মাইকেল ফ্রেডরিক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মাইকেল ফ্রেডরিক
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামমাইকেল ক্যাম্পবেল ফ্রেডরিক
জন্ম(১৯২৭-০৩-০৬)৬ মার্চ ১৯২৭
সেন্ট পিটার, বার্বাডোস
মৃত্যু১৮ জুন ২০১৪(2014-06-18) (বয়স ৮৭)
মে পেন, জ্যামাইকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম পেস
ভূমিকাব্যাটসম্যান
সম্পর্করবিন বাইনো (কাকাতো ভাই)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ৮১)
১৫ জানুয়ারি ১৯৫৪ বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৪৪-৪৫বার্বাডোস
১৯৪৯ডার্বিশায়ার
১৯৫৩-৫৪জ্যামাইকা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা ৩০ ২৯৪
ব্যাটিং গড় ১৫.০০ ২৯.৪০
১০০/৫০ ০/০ ০/৩
সর্বোচ্চ রান ৩০ ৮৪
বল করেছে
উইকেট
বোলিং গড় - -
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং -/- -/-
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/০ ৩/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৩ জুন ২০২০

মাইকেল ক্যাম্পবেল ফ্রেডরিক (ইংরেজি: Michael Frederick; জন্ম: ৬ মে, ১৯২৭ - মৃত্যু: ১৮ জুন, ২০১৪) বার্বাডোসের সেন্ট পিটার এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৫০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়কালে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটে বার্বাডোসজ্যামাইকা এবং ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ডার্বিশায়ার দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে মিডিয়াম পেস বোলিং করতে পারতেন মাইকেল ফ্রেডরিক

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

বার্বাডোসের সেন্ট পিটারের মাইল এন্ড এ কোয়ার্টার এলাকায় মাইকেল ফ্রেডরিকের জন্ম। ক্রিকেটের জন্যে বিখ্যাত বার্বাডোসভিত্তিক দ্য লজ স্কুলে পড়াশুনো করেন। সেখানে অবস্থানকালে লেসলি আর্থার বেসি ওয়ালকটের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছিলেন তিনি।[১] ১৯৪৪-৪৫ মৌসুমে ১৭ বছর বয়সে বার্বাডোসের সদস্যরূপে ব্রিটিশ গায়ানার বিপক্ষে একটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নেন।

১৯৪৪-৪৫ মৌসুম থেকে ১৯৫৩-৫৪ মৌসুম পর্যন্ত মাইকেল ফ্রেডরিকের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। মাইকেল ফ্রেডরিকের খেলোয়াড়ী জীবন বেশ সংক্ষিপ্ত ধরনের ছিল। ১৯৪৪-৪৫ মৌসুমে বার্বাডোস, ১৯৪৯ সালে ডার্বিশায়ার ও ১৯৫৩-৫৪ মৌসুমে জ্যামাইকার পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশ নিয়েছেন তিনি।

কাউন্টি ক্রিকেটে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

১৯৪৬ সালে ইংল্যান্ডে চলে যান। সেখানে বাছাই করা শৌখিন খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া ডার্বিশায়ারের পক্ষে দুইটি খেলায় অংশগ্রহণ করেছিলেন তিনি। শার্কস্টোন ক্রিকেট ক্লাবের পক্ষে খেলার পর ১৯৪৮ থেকে ১৯৫০ সময়কালে ডার্বিশায়ার দ্বিতীয় একাদশে খেলেন। এ সময় সতীর্থ বার্বাডীয় লরি জনসন তার সাথে খেলেছিলেন।[২]

১৯৪৯ সালে ডার্বিশায়ারের প্রথম একাদশের পক্ষে লরি জনসন নিয়মিতভাবে অংশ নিলেও তিনি মাত্র দুইটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশগ্রহণ করতে পেরেছিলেন। তন্মধ্যে, একটি খেলায় তিনি সর্বোচ্চ ৮৪ রান তুলেন।

১৯৫৩-৫৪ মৌসুমে ওয়েস্ট ইন্ডিজে পরবর্তী প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়েছিলেন মাইকেল ফ্রেডরিক। জ্যামাইকার সদস্যরূপে সফররত এমসিসি দলের বিপক্ষে দুইটি খেলায় অংশ নেন। প্রত্যকে খেলাতেই অর্ধ-শতরানের ইনিংস খেলেন। ফলশ্রুতিতে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের খসড়া তালিকায় তাকে রাখা হয়।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন মাইকেল ফ্রেডরিক। ১৫ জানুয়ারি, ১৯৫৪ তারিখে কিংস্টনে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। এরপর আর তাকে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি। এটিই তার ষষ্ঠ ও সর্বশেষ প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণ ছিল।

১৯৫৩-৫৪ মৌসুমে ইংল্যান্ড দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমনে আসে। কিংস্টনের সাবিনা পার্কে সিরিজের প্রথম টেস্টে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলেন। প্রথম ইনিংসে শূন্য রানে বিদেয় নিলেও দ্বিতীয় ইনিংসে ৩০ রান তুলেছিলেন। ঐ টেস্টে স্বাগতিক দল ১৪০ রানে জয়লাভ করে।[৩] তবে, দ্বিতীয় টেস্টে তাকে দলের বাইরে রাখা হয়। এরপর আর তাঁকে কোন প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলায় অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত ছিলেন। ইভা নাম্নী এক রমণীর পাণিগ্রহণ করেন। তাদের সংসারে অ্যান্ড্রু, চার্লস ও ক্যাথরিন নামে তিন সন্তান ছিল।[৪]

আকস্মিকভাবে মাটিতে পড়ে যান। অতঃপর, ১৮ জুন, ২০১৪ তারিখে ৮৭ বছর বয়সে জ্যামাইকার মে পেন এলাকায় মাইকেল ফ্রেডরিকের দেহাবসান ঘটে। তার কাকাতো ভাই রবিন বাইনো ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে টেস্ট খেলায় অংশ নিয়েছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Keith A. P. Sandiford Cricket nurseries of colonial Barbados: the elite schools, 1865-1966 1998
  2. "Bygone Derbyshire - Laurie Johnson - Run machine from Barbados"। ২০১৩-০৪-১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১১-১৬ 
  3. West Indies v England, Kingston 1953-54
  4. Frederick, Michael Campbell Retrieved 10 August 2014.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]