ময়নামতি রেলওয়ে স্টেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ময়নামতি রেলওয়ে স্টেশন
বাংলাদেশের রেলওয়ে স্টেশন
অবস্থানকুমিল্লা দক্ষিণ সদর উপজেলা কুমিল্লা জেলা, চট্টগ্রাম বিভাগ
 বাংলাদেশ
মালিকানাধীনবাংলাদেশ রেলওয়ে
পরিচালিতবাংলাদেশ রেলওয়ে
লাইন
ট্রেন পরিচালকপূর্বাঞ্চল রেলওয়ে
নির্মাণ
গঠনের ধরনমানক
পার্কিংআছে
সাইকেলের সুবিধাআছে
প্রতিবন্ধী প্রবেশাধিকারআছে
ইতিহাস
চালু১ জুলাই ১৮৯৫
অবস্থান

ময়নামতি রেলওয়ে স্টেশন বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বিভাগের কুমিল্লা জেলার কুমিল্লা দক্ষিণ সদর উপজেলায় অবস্থিত একটি রেলওয়ে স্টেশন[১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৯২ সালে ইংল্যান্ডে গঠিত আসাম বেঙ্গল রেলওয়ে কোম্পানি এদেশে রেলপথ নির্মাণের দায়িত্ব নেয়। ১৮৯৫ সালের ১ জুলাই চট্টগ্রাম থেকে কুমিল্লা ১৫০ কিমি মিটারগেজ লাইন এবং লাকসাম থেকে চাঁদপুর পর্যন্ত ৬৯ কিমি রেললাইন জনসাধারণের জন্য খোলা হয়।[৩] চট্টগ্রাম-কুমিল্লা লাইনের স্টেশন হিসেবে ময়নামতি রেলওয়ে স্টেশন তৈরি করা হয়।

২৩ জানুয়ারি ২০১৬ সালে জনবলসংকটের কারণে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের ১৭০টি স্টেশনের মধ্যে ৫৬টি বন্ধ করে দেওয়া হয়। এর মধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের ১৪টি স্টেশন ছিল, যার মধ্যে এই স্টেশনও অন্তর্ভুক্ত ছিল। তবে, স্থানীয় এবং কিছু নির্দিষ্ট ট্রেন ময়নামতি রেলওয়ে স্টেশনে থামত।[৪]

১৬ মার্চ ২০১৭, কর্তৃপক্ষ এই স্টেশন আনুষ্ঠানিকভাবে জনসাধারণের জন্য পুনরায় খুলে দেয়। তবে পুনরায় খোলা সত্ত্বেও, ৪ মাসের বেশি সময় ধরে এই স্টেশনে কোন ট্রেন থামেনি এবং টিকেট বিক্রি শুরু হয়নি।[১]

পরিষেবা[সম্পাদনা]

ময়নামতি রেলওয়ে স্টেশন দিয়ে চলাচলকারী ট্রেনের তালিকা নিম্নে দেওয়া হলো:

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ময়নামতি রেলস্টেশন চালু হওয়ার দেড়মাস পরও টিকেট বিক্রি শুরু হয়নি | অন্যান্য"archive1.ittefaq.com.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৫ 
  2. "কুমিল্লায় এক দশকে সাত রেল স্টেশন বন্ধ"বাংলাদেশ প্রতিদিন। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৫ 
  3. "রেলওয়ে - বাংলাপিডিয়া"bn.banglapedia.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৪ 
  4. প্রতিবেদক, নিজস্ব। "জনবলসংকটে রেলের ১০৬টি স্টেশন বন্ধ"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১