মনোহর পার্রীকর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মনোহর পার্রীকর
Manohar Parrikar (cropped).jpg
গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
২০০০ – ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০০২
পূর্বসূরীদিগম্বর কামাত
উত্তরসূরীপ্রতাপ সিংহ রাণে
সংসদীয় এলাকাপানাজি
ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
৯ মার্চ ২০১২
প্রধানমন্ত্রীনরেন্দ্র মোদী
পূর্বসূরীঅরুণ জেটলি
সংসদীয় এলাকাউত্তর প্রদেশ, (রাজ্যসভা)
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মমনোহর গোপালকৃষ্ণা প্রভু পার্রীকর
(1955-12-13) ১৩ ডিসেম্বর ১৯৫৫ (বয়স ৬৩)
মাপুসা, গোয়া
মৃত্যু১৭ মার্চ ২০১৯(2019-03-17) (বয়স ৬৩)[১]
রাজনৈতিক দলভারতীয় জনতা পার্টি
সন্তান২ জন
ধর্মহিন্দু

মনোহর গোপালকৃষ্ণা প্রভু পার্রীকর (জন্ম: ১৩ ডিসেম্বর ১৯৫৫ - মৃত্যু: ১৭ মার্চ ২০১৯) হলেন ভারতের একজন রজনীতিবিদ। বর্তমানে তিনি উত্তর প্রদেশ রাজ্যের লোকসভা নির্বাচনী ক্ষেত্র থেকে রাজ্যসভার সদস্য এবং তিনি গোয়া রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী[২][৩]। তিনি ২০১৪ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ১৯৭৮ সালে মুম্বাইয়ের ভারতীয় প্রৌদ্যোগিকী সংস্থান থেকে স্নাতক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন; তিনিই ভারতের প্রথম আই.আই.টি. উত্তীর্ণ মুখ্যমন্ত্রী। ২০০১ সালে ভা.প্রৌ.স, মুম্বাই তাকে 'বিশিষ্ট প্রাক্তন ছাত্র' উপাধি প্রদান করে।

পরিচয় ও রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

পার্রীকর গোয়ার প্রথম মুখ্যমন্ত্রী যিনি ভারতীয় জনতা পার্টি থেকে নির্বাচিত হয়েছেন। তাকে ১৯৯৪ খৃস্টাব্দে ভারতীয় জনতা পার্টি দ্বিতীয় ব্যবস্থাপক নির্বাচিত করা হয়। জুন, ১৯৯৯ থেকে নভেম্বর, ১৯৯৯ পর্যন্ত তিনি বিরোধীদলের নেতা হিসেবে কাজ করেন এবং ২০০০ সালে ভারতীয় জনতা পার্টি গোয়ার সত্তা দখল করে ও মুখ্যমন্ত্রী হন। কিন্তু তার সরকার ২০০২ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত টিকেছিল। পরে ২০০২ সালের ৪ জুন তিনি আবার গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হন।

জানুয়ারি ২৯, ২০০৪ সালে বিজেপির ৪ জন নেতা ইস্তফা দিলে তাঁর সরকার সংখ্যাগোষ্ঠতা হারায়। পার্রীকর দাবি করেন তিনি তাঁর সরকারের সংখ্যাগরিষ্ঠতা পুনঃ প্রমাণন করবেন; এবং ফেব্রুয়ারি ২০০৫ সালে তিনি এমনটি করেওছিলেন। কিন্তু পরে কোনোকারণে তাঁকে মুখ্যমন্ত্রী পদ ছাড়তে হয়। পরপর বিভিন্ন বিবাদের কারণে মার্চ ২০০৫ সালে গোয়াতে রাষ্ট্রপতি শাসন জরী করা হয়। কিছুদিন পরে জুন ২০০৫ সালে বিরোধী নেতা প্রতাপ সিংহ রাণে গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী হন।

২০০৭ সালে, পার্রীকর নেতৃত্বাধীন বিজেপি, দিগম্বর কামাটের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের নিকট গোয়া রাজ্য নির্বাচনে পরাজিত হয়েছিল। বিজেপি এবং তার দল-জোটের পর দলটি জয়ী হয়ে ওঠে এবং ২০১২ সালের মার্চ মাসে অনুষ্ঠিত গোয়া বিধানসভা নির্বাচনে, ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের নয়টি আসনে জয়লাভ করে। ২০১৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে বিজেপি গোয়ার দুটি লোকসভা আসনই জিতেছিল। [৪] নভেম্বর ২০১৪ সালে তার নিজের কথা অনুসারে পার্রীকর গোয়া ছেড়ে আসতে অনিচ্ছুক ছিলেন এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তাঁকে কেন্দ্রীয় সরকারে যোগ দিতে রাজি করান। [৪] পরবর্তীতে লক্ষ্মীকান্ত পারসকার গোয়া মুখ্যমন্ত্রীর পদে অধিষ্ঠিত হন। তিনি রাজ্য রাজনীতিতে সক্রিয় থাকাকালীন, গোয়ার বিধানসভা পরিষদের পান্জী নির্বাচনী এলাকা প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন।[৫]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

পরিবার[সম্পাদনা]

২০০১ সালে তাঁর স্ত্রী মেধা মারা যান। [৬][৭] তাদের দুই ছেলে - উৎপল, যিনি মিশিগান স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বৈদ্যুতিক প্রকৌশল স্নাতক এবং অভিজাত, যিনি একজন স্থানীয় ব্যবসায়ী।[৮]

অসুস্থতা এবং মৃত্যু[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের মার্চ-জুন অবধি, পার্রিকর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একটি হাসপাতালে অগ্ন্যাশয়সংক্রান্ত অসুস্থতার জন্য চিকিত্সা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। তারপর তিনি ভারতে ফিরে আসেন এবং সেপ্টেম্বরে চিকিৎসার জন্য এআইআইএমএস, দিল্লীতে ভর্তি হন।[৯] ২৭অক্টোবর, ২০১৮-এ, গোয়া স্বাস্থ্যমন্ত্রী, বিশ্বজিৎ রাণ, নিশ্চিত করেছেন যে পার্রিকর অগ্ন্যাশয়সংক্রান্ত ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছেন। [১০][১১] ২০১৮ সালের ২৭অক্টোবর গোয়া সরকারও ঘোষণা করে যে সিএম মনোহর পার্রিককের অগ্ন্যাশয়সংক্রান্ত ক্যান্সার রয়েছে। [১২]

অগ্ন্যাশয়সংক্রান্ত ক্যান্সারের অতিরিক্ত বৃদ্ধির কারণে ১৭ মার্চ ২০১৯ তারিখে তাঁর পানাজীর বাসভবনে মৃত্যু হয়।[১৩][১৪] ভারতের রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দ তাঁর মৃত্যু সংবাদ ঘোষণা করেন।[১৫]

২০১৫ সালে রাশিয়াতে পার্রীকর

পুরস্কার[সম্পাদনা]

  • ২০১৮: ২৬ অক্টোবর ২০১৮ সালে, স্বরাজ্য পুরস্কারের অন্তর্গত ড. এস পি মুখার্জী পুরস্কার। [১৬]
  • ২০১৮: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮-সালে জাতীয় প্রযুক্তি ইনস্টিটিউট গোয়া কর্তৃক সম্মানিত ডক্টরেট। [১৭][১৮]
  • ২০১২: রাজনীতি বিভাগে সিএনএন-আইবিএন বর্ষসেরা ভারতীয় পুরস্কার। [১৯][২০]
  • ২০০১: বিশিষ্ট প্রাক্তন শিক্ষার্থী আইআইটি-মুম্বাই পুরস্কার।[২১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Goa Chief Minister Manohar Parrikar, Battling Illness, Dies At 63: Updates"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১৭ 
  2. Desk, Internet। "Manohar Parrikar to take oath as Goa CM tomorrow"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-১৩ 
  3. "Manohar Parrikar appointed as new Goa Chief Minister"The Economic Times। ১৪ মার্চ ২০১৭। 
  4. "Herald: Church feels alienated and sidelined by Parsekar"oHeraldo। ১৪ জুন ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৫ 
  5. "Defence Minister Manohar Parrikar to resign as Goa MLA"timesofindia-economictimes। ১৩ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মে ২০১৬ 
  6. "Defence Minister Manohar Parrikar remembers wife on his 60th birthday"dna। ১৩ ডিসেম্বর ২০১৫। ২৯ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  7. "Manohar Parrikar: The Gentleman Politician"Sify। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৩। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  8. "Manohar Parrikar defends Congress allegations against son's land deal"। ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭। ৬ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০১৮ 
  9. "Goa CM Manohar Parrikar returns home after treatment in US, visits temple in Goa"India Today (ইংরেজি ভাষায়)। জুন ১৫, ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  10. "CM Manohar Parrikar suffering from pancreatic cancer, reveals health minister"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  11. "Manohar Parrikar has cancer, no hiding from that fact: Goa minister"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-১০-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  12. Kamat, Prakash (২৭ অক্টোবর ২০১৮)। "Manohar Parrikar has pancreatic cancer, reveals Goa Health Minister" – www.thehindu.com-এর মাধ্যমে। 
  13. Kamat, Prakash (১৭ মার্চ ২০১৯)। "President Ram Nath Kovind announces death of Goa Chief Minister Manohar Parrikar"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১৯ 
  14. "Goa Chief Minister Manohar Parrikar, Battling Illness, Dies At 63: Updates"NDTV.com। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১৯ 
  15. "Manohar Parrikar — The man who changed Goan politics - Times of India"The Times of India 
  16. "Swarajya Awards 2018: Honouring Those Who Lead India Right"। ২৬ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৮ 
  17. "Vice President M Venkaiah Naidu addresses at 4th convocation ceremony of NIT, Goa"। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  18. "Manohar Parrikar Conferred Honorary Doctorate By NIT Goa"। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  19. "CNN-IBN Indian of the Year 2012"CNN-IBN Indian of the Year 2012। IBN live। ১২ ডিসেম্বর ২০১২। ১৪ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ডিসেম্বর ২০১২ 
  20. "Search"India News Analysis Opinions on Niti Central। ২৮ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  21. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; iitb.ac.in নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি

বহিঃ সংযোগ[সম্পাদনা]