মগজধোলাই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মগজ ধোলাইয়ের ব্যঙ্গাত্মক চিত্র

মগজধোলাই (আরও পরিচিত মন নিয়ন্ত্রণ, মানসিক হত্যা, জবরদস্তিমূলক প্ররোচনা, চিন্তা নিয়ন্ত্রণ, চিন্তা সংস্কার এবং পুনঃশিক্ষা নামে) ধারণা মতে মানুষের মন কিছু মনস্তাত্ত্বিক কৌশল দ্বারা পরিবর্তন বা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। মগজধোলাইয়ে মানুষের মনোভাব, মূল্যবোধ এবং বিশ্বাস পরিবর্তন করে,[১][২] কোন বিষয়ের সমালোচনামূলক বা স্বাধীনভাবে চিন্তা করার ক্ষমতা হ্রাস করে তাদের মনে নতুন অবাঞ্ছিত চিন্তাভাবনা এবং ধারণা প্রবেশ করানো যায়।[৩]

"মগজ ধোলাই" শব্দটি প্রথম ইংরেজিতে এডওয়ার্ড হান্টার দ্বারা ১৯৫০ সালে চীনা সরকার জনগণকে তাদের সাথে সহযোগিতা করার জন্য কীভাবে উপস্থিত হয়েছিল তা বর্ণনা করার জন্য ব্যবহার করেছিলেন। ধারণাটির গবেষণায় নাৎসি জার্মানি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কিছু ফৌজদারি মামলা এবং মানব পাচারকারীদের কর্মকাণ্ডের দিকেও নজর দেওয়া হয়েছে। ১৯৬০ এবং ১৯৭০ এর দশকের শেষের দিকে, লিসারজিক অ্যাসিড ডাইথাইলামাইড (এলএসডি) ব্যবহার করার সময় মস্তিষ্ক ধোলাই হওয়ার সম্ভাবনা সম্পর্কে যথেষ্ট বৈজ্ঞানিক এবং আইনি বিতর্ক, পাশাপাশি মিডিয়ার মনোযোগও ছিল।[৪] ঐ সমকালের অপরাধ হিসেবে গণ্য কিছু নতুন ধর্মীয় আন্দোলন-এর জন্য যুবকদের মাঝে পরিবর্তনের ক্ষেত্রেও আগে মগজধোলাই করা হতো।[৫][৬] মগজধোলাইয়ের ধারণা কখনও কখনও মামলা'র সাথে জড়িত থাকে, বিশেষ করে শিশু হেফাজত সম্পর্কিত। এটি অপরাধ মূলক বিজ্ঞান কল্পকাহিনী , রাজনৈতিক এবং কর্পোরেট সংস্কৃতিরও একটি বিষয়বস্তু হতে পারে।[৭][৮]

চীনা ও কোরিয়ান যুদ্ধে[সম্পাদনা]

চীনা শব্দ xǐnăo (洗腦,"মস্তিষ্ক ধোয়া")[৯] মূলত চীনের মাওবাদী সরকারের অধীনে ব্যবহৃত জবরদস্তিমূলক প্ররোচনাকে বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয়েছিল, যার লক্ষ্য ছিল (কাঙ্খিত সামাজিক কাঠামোয়) "প্রতিক্রিয়াশীল" লোকেদেরকে নতুন চীনাদের "সঠিক চিন্তার" সদস্যে রূপান্তরিত করার।[১০] আচার অনুষ্ঠান বা পবিত্র স্থানে প্রবেশের আগে "হৃদয়/মন পরিষ্কার/ধোয়া" ( xǐxīn ,洗心) তাওবাদী রীতিতে শব্দটি শ্লেষিত । [ক]

অক্সফোর্ড ইংলিশ ডিকশনারী ২৪ সেপ্টেম্বর ১৯৫০ সালে প্রকাশিত মিয়ামি নিউজে সাংবাদিক এডওয়ার্ড হান্টারের একটি নিবন্ধে "ব্রেন ওয়াশিং" শব্দের প্রাচীনতম ইংরেজি ভাষার ব্যবহার হিসেবে রেকর্ড করে।হান্টার একজন স্পষ্টভাষী কমিউনিস্ট ছিলেন,একজন সাংবাদিক হিসাবে গোপনে কাজ করা এবং একজন সিআইএ এজেন্ট ছিলেন বলে অভিযোগ ছিল ।[১১] হান্টার এবং অন্যরা কেন কোরিয়ান যুদ্ধের সময় (১৯৫৯-১৯৫৩) কিছু আমেরিকান যুদ্ধবন্দী তাদের চীনা বন্দীদের সাথে সহযোগিতা করেছিল এবং এমনকি কিছু ক্ষেত্রে তাদের পক্ষ থেকে সরে গিয়েছিল তা কেন ও কিভাবে সম্ভব ব্যাখ্যা করার জন্য চীনা শব্দটি ব্যবহার করেছিল।[১২] ব্রিটিশ রেডিও অপারেটর রবার্ট ডব্লিউ. ফোর্ড [১৩][১৪] এবং ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর কর্নেল জেমস কার্নেও দাবি করেছেন যে চীনারা তাদের কারাবাসের সময় তাদের মগজধোলাই কৌশলের শিকার করেছিল।[১৫]

মার্কিন সামরিক বাহিনী এবং সরকার জৈবিক যুদ্ধ সহ যুদ্ধাপরাধের জন্য যুদ্ধাপরাধীদের স্বীকারোক্তিকে দুর্বল করার প্রয়াসে মগজধোলাইয়ের অভিযোগ তুলেছে। চীনা রেডিও সম্প্রচারের পর প্রথম মেরিন এয়ার উইং -এর চিফ অফ স্টাফ ফ্রাঙ্ক শোয়েবলের উদ্ধৃতি দাবি করার পর জীবাণু যুদ্ধে অংশ নেওয়ার কথা স্বীকার করে জাতিসংঘের কমান্ডার জেনারেল।মার্ক ডব্লিউ ক্লার্ক জোর দিয়েছিলেন:

এই বিবৃতিগুলি এই হতভাগ্য লোকদের ঠোঁট দিয়ে গেছে কিনা সন্দেহ।তারা যদি করে থাকে তবে তারা যা খুশি শব্দগুলি আদায় করার জন্য এই কমিউনিস্টদের মন-বিধ্বংসী পদ্ধতিগুলি খুব পরিচিত।।পুরুষরা নিজেরাই দায়ী নয় এবং এই জঘন্য উপায়ে ব্যবহার করার জন্য তাদের আমার গভীর সহানুভূতি রয়েছে।

১৯৫৩ সালের শুরুতে রবার্ট জে লিফটন আমেরিকান সৈনিকদের সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন যারা কোরিয়ান যুদ্ধের সময় যুদ্ধবন্দী হয়েছিলেন এবং সেইসাথে পুরোহিত, ছাত্র এবং শিক্ষকদের যারা ১৯৫১ সালের পরে চীনে কারাগারে বন্দী ছিলেন।২৫ জন আমেরিকান এবং ইউরোপীয়দের সাথে সাক্ষাৎকার ছাড়াও লিফটন ১৫ জন চীনা নাগরিকের সাক্ষাতকার নিয়েছেন যারা চীনা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে মগজধোলাইয়ের শিকার হওয়ার পরে পালিয়ে গিয়েছিল।(লিফটনের ১৯৬১ সালের বই থট রিফর্ম অ্যান্ড দ্য সাইকোলজি অফ টোটালিজম: এ স্টাডি অফ "ব্রেন ওয়াশিং" ইন চায়না, এই গবেষণার উপর ভিত্তি করে।) লিফটন দেখতে পান যে যুদ্ধবন্দিরা যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে আসে তখন তাদের চিন্তাভাবনা শীঘ্রই স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে, "মগজধোলাই" এর জনপ্রিয় চিত্রের বিপরীতে।

১৯৫৬ সালে কোরিয়ান যুদ্ধের পরে মগজধোলাইয়ের ধারণাটি পুনরায় পরীক্ষা করার পরে মার্কিন সেনাবাহিনী কমিউনিস্ট জিজ্ঞাসাবাদ, ইন্ডোকট্রিনেশন, এবং যুদ্ধের বন্দীদের শোষণ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল, যা মগজধোলাইকে একটি "জনপ্রিয় ভুল ধারণা" বলে অভিহিত করেছিল।প্রতিবেদনে উপসংহারে বলা হয়েছে যে "অনেক সরকারী সংস্থার সম্পূর্ণ গবেষণায় কোরিয়ায় একজন আমেরিকান যুদ্ধবন্দীর 'মগজধোলাই' এর একটি চূড়ান্ত নথিভুক্ত ঘটনাও প্রকাশ করতে ব্যর্থ হয়েছে।"

বৈজ্ঞানিক গবেষণা[সম্পাদনা]

১৯৭৭ সালের যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এর মগজধোলাই নিয়ে করা গবেষণা প্রজেক্ট এমকেআল্ট্রা এর প্রতিবেদন

আমেরিকান মানসিক সমিতি বিশেষ কর্মীদল[সম্পাদনা]

১৯৩৮ সালে আমেরিকান মানসিক সমিতি (এপিএ) হেনরি কিসিঞ্জারকে অনুরোধ করে প্রতারণা ও নিয়ন্ত্রণের প্রতারণামূলক এবং পরোক্ষ কৌশল এর উপর (ডিআইএমপিএসি) এপিএ নামের একটি কর্মীদল গড়ে এনআরএম কর্তৃক নিয়োগের ক্ষেত্রে মগজধোলাই বা জবরদস্তিমূলক প্ররোচনা সত্যিই ভূমিকা পালন করেছে কিনা তদন্ত করতে। [১৬] এটি নিম্নলিখিত উপসংহারে আসে:[১৭]

অর্চনা এবং বৃহৎ গোষ্ঠী সচেতনতা প্রশিক্ষণ প্ররোচনা ও নিয়ন্ত্রণের প্রতারণামূলক এবং পরোক্ষ কৌশলগুলির ব্যাপক ব্যবহারের কারণে যথেষ্ট বিতর্ক তৈরি করেছে। এই কৌশলগুলি ব্যক্তি স্বাধীনতার সাথে সাংঘর্ষিক এবং তাদের ব্যবহারের ফলে হাজার হাজার ব্যক্তি ও পরিবারের গুরুতর ক্ষতি হয়েছে। এই প্রতিবেদনটি এই বিষয়ের সাহিত্যের পর্যালোচনা করে প্রভাব কৌশলগুলোর ধারণা করার একটি নতুন উপায় প্রস্তাব করে, প্ররোচনা ও নিয়ন্ত্রণের প্রতারণামূলক এবং পরোক্ষ কৌশলগুলির নৈতিক প্রভাবগুলি অন্বেষণ করে এবং প্রতিবেদনে বর্ণিত সমস্যাগুলির সমাধানের জন্য সুপারিশ করে৷

১১ মে ১৯৮৭ সালে এপিএ এর বোর্ড অফ সোশ্যাল অ্যান্ড এথিক্যাল রেসপনসিবিলিটি ফর সাইকোলজি (বিএসইআরপি) ডিআইএমপিএসি রিপোর্ট প্রত্যাখ্যান করেছিল কারণ রিপোর্টে "এপিএ জন্য প্রয়োজনীয় সরকারী অনুদান ও অনুমোদন, বৈজ্ঞানিক কঠোরতা এবং এমনকি কঠোর সমালোচনামূলক পদ্ধতির অভাব রয়েছে" এবং পরে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিল যে "অনেক বিবেচনার পরে, বিএসইআরপি বিশ্বাস করে না যে এই বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য বিএসইআরপিকে অগ্রনির্দেশনার জন্য তাদের কাছে পর্যাপ্ত তথ্য উপলব্ধ রয়েছে।"[১৮]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Note: xīn can mean "heart", "mind" or "centre" depending on context. For example, xīn zàng bìng means Cardiovascular disease, but xīn lǐ yī shēng means psychologist, and shì zhōng xīn means Central business district.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Corsini, Raymond J. (২০০২)। The Dictionary of Psychology। Psychology Press। পৃষ্ঠা 127। 
  2. Kowal, D.M. (২০০০)। "Brainwashing"। Love, A.E.। Encyclopedia of Psychology1। American Psychological Association। পৃষ্ঠা 463–464। ডিওআই:10.1037/10516-173 
  3. Campbell, Robert Jean (২০০৪)। Campbell's Psychiatric Dictionary। USA: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 403 
  4. Encyclopaedic Dictionary of Religion2। Gyan Publishing House। ২০০৫। 
  5. Wright, Stuart (ডিসেম্বর ১৯৯৭)। "Media coverage of unconventional religion: Any "good news" for minority faiths?"। Review of Religious Research39 (2): 101–115। জেস্টোর 3512176ডিওআই:10.2307/3512176 
  6. Melton, J. Gordon (১০ ডিসেম্বর ১৯৯৯)। "Brainwashing and the Cults: The rise and fall of a theory"। Center for Studies on New Religions (CESNUR)। সংগ্রহের তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর ২০০৯Since the late 1980s, though a significant public belief in cult-brainwashing remains, the academic community-including scholars from psychology, sociology, and religious studies-have shared an almost unanimous consensus that the coercive persuasion / brainwashing thesis proposed by Margaret Singer and her colleagues in the 1980s is without scientific merit. 
  7. Usarski, Frank (৬ ডিসেম্বর ২০১২)। Cresswell, Jamie; Wilson, Bryan, সম্পাদকগণ। New Religious Movements: Challenge and Response (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge। পৃষ্ঠা 238। আইএসবিএন 9781134636969... there has been until now a lack of any convincing scientific evidence which can be applied in a generalised form to show that involvement in a New Religious Movement has any destructive consequences for the psyche of the individual concerned. ... The fact that, in all the ensuing years, no one has succeeded in verifying beyond reasonable doubt any of these claims, has however, never been regarded as a reason to exonerate the groups in any way. ... Thus, up to the time of writing, there has not been one single successful, legal conviction of the Scientology Church, even though this group has come to be regarded as the most dangerous of the new religious organisations. ... The fact that even long-term investigations have as yet failed to produce the desired results continues to be ignored. 
  8. American Psychiatric Association। DSM-5 
  9. "Word dictionary - 洗腦 - MDBG English to Chinese dictionary"mdbg.net 
  10. Taylor, Kathleen (২০০৬)। Brainwashing: The Science of Thought Control। Oxford, UK: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 5। আইএসবিএন 978-0-19-920478-6। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৭-০২ 
  11. Marks, John (১৯৭৯)। "Chapter 8. Brainwashing"The Search for the Manchurian Candidate: The CIA and mind control। New York: Times Books। আইএসবিএন 978-0-8129-0773-5। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-১২-৩০In September 1950, the Miami News published an article by Edward Hunter titled ‘"Brain-Washing" Tactics Force Chinese into Ranks of Communist Party’. It was the first printed use in any language of the term "brainwashing", Hunter, a CIA propaganda operator who worked undercover as a journalist, turned out a steady stream of books and articles on the subject. 
  12. Browning, Michael (২০০৩-০৩-১৪)। "Was kidnapped Utah teen brainwashed?"। Palm Beach Post। Palm Beach। আইএসএসএন 1528-5758During the Korean War, captured American soldiers were subjected to prolonged interrogations and harangues by their captors, who often worked in relays and used the "good-cop, bad-cop" approach – alternating a brutal interrogator with a gentle one. It was all part of "Xi Nao" (washing the brain). The Chinese and Koreans were making valiant attempts to convert the captives to the communist way of thought. 
  13. Ford, R.C. (১৯৯০)। Captured in Tibet। Oxford [Oxfordshire]: Oxford University Pressআইএসবিএন 978-0-19-581570-2 
  14. Ford, R.C. (১৯৯৭)। Wind between the Worlds: Captured in Tibetবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। SLG Books। আইএসবিএন 978-0-9617066-9-2 
  15. "Red germ charges cite 2 U.S. Marines" (PDF)The New York Times। ২৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৪। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  16. As archived at http://www.cesnur.org/testi/DIMPAC.htm, retrieved 2008-06-23
  17. American Psychological Association Board of Social and Ethical Responsibility for Psychology (BSERP) (১৯৮৭-০৫-১১)। "Memorandum"CESNUR: APA Memo of 1987 with Enclosures। CESNUR Center for Studies on New Religions। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-১১-১৮BSERP requests that Task Force members not distribute or publicize the report without indicating that the report was unacceptable to the Board. 
  18. American Psychological Association Board of Social and Ethical Responsibility for Psychology (BSERP) (১৯৮৭-০৫-১১)। "Memorandum"CESNUR: APA Memo of 1987 with Enclosures। CESNUR Center for Studies on New Religion। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-১১-১৮BSERP thanks the Task Force on Deceptive and Indirect Methods of Persuasion and Control for its service but is unable to accept the report of the Task Force. In general, the report lacks the scientific rigor and evenhanded critical approach necessary for APA imprimatur. 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]