মংডু

স্থানাঙ্ক: ২০°৪৯′ উত্তর ৯২°২২′ পূর্ব / ২০.৮১৭° উত্তর ৯২.৩৬৭° পূর্ব / 20.817; 92.367
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মংডু
မောင်တောမြို့
শহর
মংডুর একটি সড়ক
মংডুর একটি সড়ক
মংডু মায়ানমার-এ অবস্থিত
মংডু
মংডু
মায়ানমারে (বার্মা) অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২০°৪৯′ উত্তর ৯২°২২′ পূর্ব / ২০.৮১৭° উত্তর ৯২.৩৬৭° পূর্ব / 20.817; 92.367
দেশ মায়ানমার
বিভাগ রাখাইন রাজ্য
জেলামংডু জেলা
টাউনশিপমংডু টাউনশিপ
আয়তন
 • মোট৫৮২.৯২ বর্গমাইল (১,৫০৯.৮ বর্গকিমি)
উচ্চতা১০ ফুট (৩ মিটার)
জনসংখ্যা (2008)[১]৪,০০,০০০
 • Ethnicities৮০% Rohingya
 • ধর্মবৌদ্ধ ইসলাম খ্রিস্টান হিন্দু
সময় অঞ্চলএমএমটি (ইউটিসি+6:30)
কোপেন জলবায়ু বিশ্লেষণAm

মংডু (বর্মী: မောင်တောမြို့; এমএলসিটিএস: maung:tau mrui., উচ্চারিত: [máʊɰ̃dɔ́ mjo̰]) মায়ানমারের (বার্মা) পশ্চিম অংশে অবস্থিত রাখাইন প্রদেশের একটি শহর। এটি মংডু টাউনশিপ ও মংডু জেলার প্রশাসনিক আসন। মংডু মায়ানমারের একটি শহর এবং এটি বাংলাদেশের সীমানায় অবস্থিত। মংডু বুথিডং থেকে ১৬ মাইল দূরে। দুই শহর মে ইউ পর্বতমালা দ্বারা পৃথক হয়েছে এবং ১৯১৮ সালে নির্মিত দুটি সুড়ঙ্গ দ্বারা সংযুক্ত হয়েছে। মংডু ও এর আশেপাশের জেলায় একটি বৃহৎ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী আছে।

ব্রিটিশ সেনারা মংডু-বুথিডং সড়কের প্রবেশ পথে দাড়িয়ে আছে। ১৯৪৪ সালে জানুয়ারী মাসে মিত্র বাহিনীর ১৫ তম কর্পসের ধারণ করা ছবি।

জনমিতি[সম্পাদনা]

২০০৮ সালে, মংডুর জনসংখ্যা প্রায় ৪০০,০০০ জন ছিল। সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসংখ্যার, প্রায় ৮০% রোহিঙ্গা মানুষ, যাদের মিয়ানমার সরকার রাষ্ট্রহীন বাঙালি হিসেবে বিবেচনা করে। বার্মিজ সরকার মিয়ানমারের জাতিগত গোষ্ঠীর তালিকায় রোহিঙ্গাদের গ্রহণ করে না, এবং এভাবে বার্মার নাগরিকত্ব নিয়ে তাদের দাবিকে স্বীকৃতি দেয় না।[২] জনসংখ্যার অবশিষ্ট অংশ রাখাইন, বামার, ডেইংনেট এবং ম্রো সহ বিভিন্ন জাতিগত গোষ্ঠীর সমন্বয়ে গঠিত।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

২০১১ সালের হিসাবে, এখানে আটটি উচ্চ বিদ্যালয়, ১০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৬ টি পোস্ট-প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ১২৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে।[৩]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

মংডু ১৯৯৫ সালের সেপ্টেম্বর মাস থেকে বাংলাদেশের টেকনাফ শহরের সাথে বাণিজ্য পরিচালনা করছে।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Rohingyas are not citizens: Myanmar minister"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। ৩০ জুলাই ২০১২। ৭ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ নভেম্বর ২০১৮ 
  2. "Rohingyas are not citizens: Myanmar minister"। 30 জুলাই, 2012। ৭ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০২০ – www.thehindu.com-এর মাধ্যমে।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  3. The New Light of Myanmar (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। 12 (139): Page 7 Column 2। ২০০৪-০৯-০২ https://web.archive.org/web/20040902123638/http://www.mrtv3.net.mm/newpaper/29newsn.pdf। ২০০৪-০৯-০২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-১৫  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  4. "People's Daily Online -- Myanmar to set up border trade zone with Bangladesh"en.people.cn। ৭ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]