ভ্রাংগেল দ্বীপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
Natural System of Wrangel Island Reserve
Location of Wrangel Island
ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান
অবস্থান রাশিয়া উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
আয়তন [রূপান্তর: অকার্যকর সংখ্যা]
মানদণ্ড ix, x[১]
তথ্যসূত্র 1023
স্থানাঙ্ক ৭১°১৪′০০″উত্তর ১৭৯°২৪′০০″পশ্চিম / ৭১.২৩৩৩৩৩৩৩৩৩৩৩° উত্তর ১৭৯.৪° পশ্চিম / 71.233333333333; -179.4
শিলালিপির ইতিহাস ২০০৪ (২৮তম সভা)
ভ্রাংগেল দ্বীপ রাশিয়া-এ অবস্থিত
ভ্রাংগেল দ্বীপ
ভ্রাংগেল দ্বীপের অবস্থান

ভ্রাংগেল দ্বীপ (রুশ: о́стров Вра́нгеля অস্ত্রভ্‌ ভ্‌রাঙ্গেলিয়া) রাশিয়ার উত্তর-পূর্ব প্রান্তসীমার একটি দ্বীপ। এটি উত্তর মহাসাগরে পূর্ব সাইবেরীয় সাগর এবং চুক্‌চি সাগরের মধ্যভাগে, ১৮০ ডিগ্রী দ্রাঘিমারেখার ঠিক উপরে অবস্থিত। এ কারণে আন্তর্জাতিক তারিখরেখাকে দ্বীপটির পাশ দিয়ে সরিয়ে স্থাপন করা হয়েছে। দ্বীপটি দ্য লং প্রণালীর মাধ্যমে মূল এশীয় ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন। দ্বীপটি ১২৫ কিমি প্রশস্ত এবং এর আয়তন ৭,৬০০ কিলোমিটার। দ্বীপের মধ্যভাগে পূর্ব-পশ্চিমে ৎসেন্ত্রালনিয়ে পর্বতমালা প্রসারিত। এর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ সোভেতস্কায়া পর্বত সমুদ্রসমতল থেকে প্রায় ১,০৯৬ মিটার উঁচুতে উঠে গেছে। দ্বীপের উত্তর ও দক্ষিণভাগে উপকূলীয় সমভূমি আছে। এখানে সীল মাছ, লেমিং নামের ইঁদুর জাতীয় প্রাণী ও মেরু ভল্লুকেরা ব্যাপকভাবে বংশবিস্তার করে। ভ্রাংগেল দ্বীপের সবচেয়ে কাছের স্থলভাগ হল ৬০ কিলোমিটার পূর্বে অবস্থিত হেরাল্ড দ্বীপ।

১৮২০-এর দশকের শুরুতে রুশ অভিযাত্রী ফের্ডিনান্ড ফন ভ্রাংগেল দ্বীপটি খোঁজার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হন। তার আগে সাইবেরিয়ার আদিবাসীরা দ্বীপটি দেখতে পেয়েছিল। ১৮৭৬ সালে মার্কিন তিমিশিকারী টমাস লং দ্বীপটির দেখা পান এবং ভ্রাংগেলের সম্মানে দ্বীপটির নামকরণ করেন। ১৯১১ সালে রাশিয়া থেকে এখানে একটি অভিযান দল পাঠানো হয় এবং ১৯১৬ সালে রুশ ৎসার সরকার এটি দাবী করে। ১৯২১ সালে কানাডায় জন্ম নেওয়া অভিযাত্রী ভিহিয়াল্মুর স্টেফানসন এখানে একটি দল পাঠান, যাতে দ্বীপটি ব্রিটেনের জন্য দাবী করা যায়। কিন্তু একজন বাদে দলের বাকি সবাই মৃত্যুমুখে পতিত হয়। ১৯২৩ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এখানে ইনুইট আদবাসীদের দিয়ে একটি বসতি স্থাপন করায়, কিন্তু ১৯২৪ সালে রাশিয়ার একটি জাহাজ এদেরকে বলপূর্বক এখান থেকে সরিয়ে দেয়। ১৯২৬ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন এখানে একটি স্থায়ী উপনিবেশ স্থাপন করে। বর্তমানে এখানে একটি বাণিজ্যকেন্দ্র এবং একটি জলবায়ু স্টেশন আছে। এটি প্রশাসনিকভাবে চুকোৎকা স্বশাসিত অক্রুগ-এর অন্তর্গত। দ্বীপের দক্ষিণভাগে চুকচি জাতির লোকদের দুইটি স্থায়ী জেলে লোকালয় আছে।

  1. http://whc.unesco.org/en/list/1023.