ভোগেশ্বরী ফুকননী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ভোগেশ্বরী ফুকননী
জন্ম
ভোগেশ্বৰী ফুকননী

১৮৮৫
বঢ়মপুর, নগাঁও, অসম[১]
মৃত্যু২০ ছেপ্টেম্বৰ, ১৯৪২
নগাঁও, অসম
পরিচিতির কারণভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন-এর শহীদ

শহীদ (শহীদ) ভোগেশ্বরী ফুকননী (১৮৮৫ - ২০ বা ২১ সেপ্টেম্বর ১৯৪২) ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব ও অগ্নিকন্যা।[২]

জন্ম ও শৈশব[সম্পাদনা]

তিনি ১৮৮৫ সালের মাঘ মাসে আসামের নগাঁও জেলার কাহুয়াতলী, হাতিছন মৌজায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম আত্মরাম বুড়াগোহাইন এবং মাতা ছিলেন নীলেশ্বরী বুড়াগোহাইন।[৩] তিনি ভোগালী বিহুর দিনে জন্মগ্রহণ করেন। তার স্বামীর নাম ভোগেশ্বর ফুকন।[৪] পুত্র মহেন্দ্র ফুকন, উমা ফুকন এবং নুমালি ফুকন এবং কন্যা রত্না ফুকন।[৩]

রাজনৈতিক কাজ[সম্পাদনা]

ভারত ছাড়ো আন্দোলনে ভোগেশ্বরী ফুকননী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। তিনি আসামের নগাঁও জেলার বেরহামপুর, বাবাজিয়া এবং বারপুজিয়া এলাকায় সক্রিয় ছিলেন এবং ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের অফিস স্থাপনে সহায়তা করেছিলেন। ১৯৩০ সালে ফুকাননী ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইন অমান্যের একটি কাজ হিসাবে একটি অহিংস মিছিলে অংশ নেন এবং পিকেটিং করার জন্য গ্রেপ্তার হন।

স্বাধীনতা সংগ্রামে অবদান[সম্পাদনা]

ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় ফুকননী প্রায়ই ব্রিটিশ রাজ বা ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে অহিংস প্রতিবাদ মিছিলে অংশ নিতেন। ১৯৪২ সালে বেরহামপুর ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেসের কার্যালয় ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের দ্বারা জব্দ করা হয় এবং বন্ধ করে দেওয়া হয়। তিনি এবং তার ছেলেরা সেই প্রতিবাদ মিছিলে অংশ নেন এবং কংগ্রেস অফিস পুনরায় খোলার একটি সফল প্রচেষ্টা করা হয়। অফিসের পুনরায় খোলার একটি উদযাপন ১৮ সেপ্টেম্বর ১৯৪২ বা সম্ভবত দুই দিন পরে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ব্রিটিশরা কংগ্রেস অফিসটি বন্ধ করতে এবং সম্ভবত এটি ধ্বংস করার জন্য একটি বড় বাহিনী প্রেরণ করেছিল।

ফুকননীর মৃত্যুকে ঘিরে অন্তত দুটি ঘটনার বিবরণ রয়েছে। একজনের মতে, রত্নামালা নামে ফুকনানি এবং তার মেয়ে আশেপাশের গ্রামের অনেক লোক সহ একটি বিশাল দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছিল এবং ভারতের জাতীয় পতাকা বহন করে বন্দে মাতরম ও স্বাধীনতার স্লোগান দিচ্ছিল। পুলিশ শক্তি দিয়ে দলটিকে প্রতিহত করে এবং পরবর্তী সংঘর্ষে "ফিনিশ" নামে একজন ব্রিটিশ সেনা ক্যাপ্টেন মাটিতে পড়ে যাওয়া রত্নমালার কাছ থেকে জাতীয় পতাকা কেড়ে নেয়। এটাকে ভারতীয় জাতীয় পতাকার অপমান হিসেবে দেখে ফুকনানী ক্যাপ্টেনকে একটি পতাকার খুঁটি দিয়ে আঘাত করেন যেটি তিনি নিজেই বহন করছিলেন। অন্য মতে, ব্রিটিশরা যখন উপস্থিত হয় এবং জনতা কংগ্রেস অফিস ভেঙে দেওয়ার দাবি করে তখন ফুকনানি উপস্থিত ছিলেন না, কিন্তু যখন তিনি আসেন তখন তিনি দেখেন "ফিঞ্চ" নামে একজন ব্রিটিশ কর্মকর্তা তার ছেলে এবং অন্যান্য বিক্ষোভকারীদের দিকে বন্দুক তাক করছেন। দ্রুত এগিয়ে গিয়ে তিনি কর্মকর্তাকে একটি পতাকার খুঁটি দিয়ে আঘাত করেন। এই বিবরণগুলিতে, তিনি যাকে আঘাত করেছিলেন—"ফিঞ্চ" বা "ফিনিশ"—তারপর তাকে গুলি করে। সেই দিন ২০ সেপ্টেম্বর ১৯৪২ সালের আঘাতের তিন দিন পর বন্দুকের গুলিতে আহত হয়ে ফুকনানি মারা যান।

প্রতিষ্ঠানের নামকরণ[সম্পাদনা]

১৯৪৭ সালে ভারত তার স্বাধীনতা লাভের পর একটি হাসপাতাল এবং একটি ইনডোর স্টেডিয়াম তার নামে নামকরণ করা হয়। হাসপাতালটি ১৮৫৪ সালে আসামের নগাঁও-এ একজন আমেরিকান ব্যাপ্টিস্ট ধর্মপ্রচারক মাইলস ব্রনসোনিস দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং পরে নাম পরিবর্তন করে ভোগেশ্বরী ফুকানানি সিভিল হাসপাতাল রাখা হয়েছিল। তার নামে ইনডোর স্টেডিয়ামটি আসামের গুয়াহাটিতে অবস্থিত।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৮ সেপ্টেম্বর ১৯৪২ তারিখে বরহামপুরে ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সময় তিনি ব্রিটিশদের দ্বারা গুলিবিদ্ধ হন এবং তিন দিন পরে ২০ সেপ্টেম্বর রবিবার মারা যান। স্বাধীনতা আন্দোলনে তাঁর মৃত্যুর জন্য তাঁকে শহীদের সম্মান দেওয়া হয়েছিল।[৫][৬][৭][৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Bhogeswari Phukanani। সংগ্রহের তারিখ February 09, 2013  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. স্বাধীনতা আন্দোলনত অসমৰ ছহীদ, কামাখ্যা চৰণ ভাগৱতী, পৃষ্ঠা-২৯
  3. কলিতা, বেণুধৰ (১৯৮৯)। বিয়াল্লিছৰ নগঞা ছহীদ। লক্ষেশ্বৰ, যুগল, যুক্তিকুমাৰ, হিৰণ্য কলিতা। পৃষ্ঠা ৩৯। 
  4. শিৱনাথ বৰ্মন (১৯৯২)। "অসমীয়া জীৱনী অভিধান"। মহতাব হুছেইন। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে', ২০২২  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  5. কলিতা, ড° ৰমেশ চন্দ্ৰ (২০০৬)। অসমৰ কালানুক্ৰমিক ইতিহাস। অসম প্ৰকাশন পৰিষদ। পৃষ্ঠা ১০২। 
  6. শইকীয়া, ড° ৰাজেন (২০১৫)। নগাঁৱৰ বুৰঞ্জী। অসম সাহিত্য সভাৰ ত্ৰি-সপ্ততিতম অধিৱেশন, কলিয়াবৰ। পৃষ্ঠা ২৭৩। 
  7. "Assamese women in India's freedom movement"। November 20, 2012 তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ February 09, 2013  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)