ভুবন চন্দ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ভূবন চন্দ
জন্ম
ভূবন চন্দ

জুন, ১৯৪৯
কুসলেচৌর, কাঠমান্ডু, নেপাল
জাতীয়তানেপাল নেপালি
পেশাঅভিনেত্রী, প্রযোজক
কর্মজীবন১৯৬৪ – বর্তমান

ভূবন চন্দ (নেপালি: भुवन चन्द; জন্ম: জুন ১৯৪৯ [১]) নেপালি অভিনেত্রী। তিনি ১৯৬৪ সালে নির্মিত প্রথম নেপালি বৈশিষ্ট্যযুক্ত চলচ্চিত্র আমা-তে অভিনয়ের জন্য পরিচিত। [২] যা ছিল নেপালে নির্মিত প্রথম বৈশিষ্ট্যযুক্ত চলচ্চিত্র। নেপাল সরকার প্রযোজিত এই চলচ্চিত্রে, চন্দ প্রথম অভিনেত্রী হিসাবে পরিচিত। [৩][৪] তাঁর অন্যান্য চলচ্চিত্রের মধ্যে হিজো, আজা, ভোলি (১৯৬৭), মানকো বান্ধ (১৯৭৩), সিন্দুর (১৯৮০), জীবন রেখা, কে ঘর কে ডেরা (১৯৮৭), পাচিস বসন্ত (১৯৮৮) এবং শান্তিদীপ (১৯৮৯) অন্তর্ভুক্ত।

চন্দ জাতীয় নাচ’ঘরের অন্যতম প্রধান মুখ, নেপালের আইকনিক জাতীয় থিয়েটার। [৫] তিনি চলচ্চিত্র উন্নয়ন বোর্ডের ১৯তম বার্ষিকী উদ্‌যাপন অনুষ্ঠানে "এক্সট্রার্ডারিনারি সার্ভিস অ্যাওয়ার্ড (অভিনেত্রী), ২০১৯" পেয়েছেন। [৬]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

তিনি নেপালের কাঠমান্ডুর কুসলেচৌরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি ম্যাট্রিক, আইএ এবং কত্থক নৃত্যে স্নাতক ডিপ্লোমা করেছেন।[স্পষ্টকরণ প্রয়োজন] তিনি মরহুম পদ্ম বাহাদুর থাপার নাতনী এবং গুজেশ্বরী থাপা ও মরহুম ভৈরব বাহাদুর থাপার কন্যা। ১৯৭৬ সালে তিনি হরিশ চন্দের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। [১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Nepal Who's who"। Research Centre for Communication and Development। জুলাই ১, ১৯৯৭ – Google Books-এর মাধ্যমে। 
  2. "History of Cinema in Nepal | Film Development Board"www.film.gov.np। ১৮ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ এপ্রিল ২০১৯ 
  3. "प्रथम नायिका भुवन चन्द 'साइनो' लिएर फर्किँदै"प्रथम नायिका भुवन चन्द 'साइनो' लिएर फर्किँदै 
  4. नागरिक। "'साइनो' गाँस्दै भुवन चन्द"Nagarik News 
  5. "Rastriya Nachghar and its discontents"kathmandupost.ekantipur.com 
  6. "भुवन र शिवलाई 'विशिष्ट योगदान सम्मान'"www.filmykhabar.com 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]