ভির্জিনিয়া বোল্তেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ভির্জিনিয়া বোল্তেন
Virginia Bolten
আবক্ষ আলোকচিত্র
১৯০২ সালে ভির্জিনিয়া বোল্তেন
জন্ম
ভির্জিনিয়া বোল্তেন

১৮৭০
সান লুইস, উরুগুয়ে বা সম্ভবত সান হুয়ান
মৃত্যু১৯৬০
মোন্তেবিদেও, উরুগুয়ে
জাতীয়তাআর্জেন্টিনিয়
নাগরিকত্বআর্জেন্টিনিয়
পেশা
পরিচিতির কারণনৈরাজ্যবাদী সংবাদপত্র প্রকাশনা, দক্ষিণ আমেরিকায় প্রথম মে দিবস বিক্ষোভের আয়োজন

ভির্জিনিয়া বোল্তেন (স্পেনীয়: Virginia Bolten, ১৮৭০–১৯৬০) ছিলেন জার্মান বংশদ্ভুত আর্জেন্টিনিয় নৈরাজ্যবাদী[১][২] তিনি ছিলেন একজন প্রতিভাধর বাগ্মী, যিনি মূলত আর্জেন্টিনায় বাস করতেন। ১৯০২ সালে তাকে উরুগুয়েতে নির্বাসিত করা হয়।

জীবনী[সম্পাদনা]

ভির্জিনিয়া বোল্তেন, একজন জার্মান অভিবাসী হিসেবে ১৮৭০ সালে উরুগুয়ের সান লুইস বা সান হুয়ানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। এবং পরবর্তীকালে পরিবারসহকারে তিনি আর্জেন্টিনার রোজারিওতে স্থানান্তরিত হন। তার পিতা ছিলেন একজন জার্মান পথ বিক্রেতা। তিনি আর্জেন্টিনার সান হুয়ান প্রদেশে শৈশব অতিবাহিত করেন। কৈশর বয়সে পৌঁছনোর পর কিছুদিন যাবৎ শ্রমিকদের জন্য জুতা তৈরীর কাজ করেছিলেন এবং পরবর্তীকালে একটি চিনি শোধনাগারে শ্রমিক হিসেবে কাজ করেছিলেন তিনি। কারখানার অধিকাংশই ছিলেন ইউরোপিয় অভিবাসী এবং তাদের মধ্যে অনেক নারীও ছিলেন। জুতা তৈরীর কাজ করাকালীন সময় হুয়ান মার্কেজের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ ঘটে, যিনি জুতা শ্রমিক ইউনিয়নের একজন সংগঠক ছিলেন, এবং পরবর্তীকালে যাকে তিনি বিয়ে করেছিলেন।[৩] নৈরাজ্যবাদী বৃত্তে সক্রিয় ভূমিকা থাকাকালীন সময়ে পিয়েত্রো গোরির সঙ্গে তার জানাশোনা ছিল।[৪] নারীবাদী ও নৈরাজ্যবাদী কার্যকলাপ, এবং শ্রমিক আন্দোলন কার্যকলাপে দীর্ঘ বছর জড়িত থাকার পরে, তাকে তিনি ১৯০২ সালে রেসিডেন্স আইনের অধীনে উরুগুয়েতে নির্বাসন দেয়া হয়।[১][৫]

সক্রিয়তা[সম্পাদনা]

১৮৮৮ সালে বোল্টেন দ্য ওয়ার্কিং বেকার অব রোজারিও (স্পেনীয়: El Obrero Panadero de Rosario) প্রকাশকদের একজন হয়ে ওঠেন, যা ছিলো আর্জেন্টিনায় প্রথম প্রকাশিত নৈরাজ্যবাদী সংবাদপত্রের মধ্যে একটি। ১৮৮৯ সালে, তিনি রোজারিওতে সিমিস্ট্রেসেস' বিক্ষোভ এবং অনুবর্তী ধর্মঘট সংগঠিত করেছিলেন, যা ছিল সম্ভবত আর্জেন্টিনায় নারী শ্রমিকদের প্রথম ধর্মঘট।[৩][৬]

১৮৯০ সালে ভির্জিনিয়া বোল্তেন, রুমুলো ওভিদি এবং ফ্রান্সিসকো বেরি প্রথম মে দিবস বিক্ষোভের প্রধান সংগঠক ছিলেন। দ্য ওয়ার্কিং বেকার অব রোজারিও অন্যান্য সম্পাদক বিক্ষোভ প্রতিষ্ঠায় সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন।[৩] এপ্রিল ৩০, ১৮৯০ সালে, (বিক্ষোভের আগের দিন), বোল্তেনকে স্থানীয় পুলিশ বাহিনী কর্তৃক আটক এবং জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়, এলাকার প্রধান কারখানার বাইরে লিফলেট বিতরণের জন্য। মে দিবসের মিছিল চলাকালীন সময়ে তিনি কয়েক হাজার শ্রমিকের একটি দলকে নেতৃত্বদানের মধ্যমে উরুগুয়ে রাজধানী মোন্তেবিদেও শহরের প্রধান চত্ত্বর প্লাজা লোপেজের দিকে মার্চ করে নিয়ে যান। মার্চ করার সময় সর্বত্র পথ তিনি লাল পতাকা বহন করেছিলেন, যার উপর লেখা ছিল "মে মাসের প্রথম - বিশ্বজনীন ভ্রাতৃত্ব" (স্পেনীয়: Primero de Mayo - Fraternidad Universal; Los trabajadores de Rosario cumplimos las disposiciones del Comité Obrero Internacional de París)।[৭][৮]

লা ভোজ দে লা মুহের[সম্পাদনা]

বোল্তেন সম্ভবত লা ভোজ দে লা মুহের (ইংরেজি: নারী কণ্ঠস্বর) নামক একটি সংবাদপত্র প্রকাশনার জন্য দায়ীত্বশীল ছিলেন, যা 8 জানুয়ারি ১৮৯৬ থেকে ১ জানুয়ারি ১৮৯৪ সালের মধ্যে আর্জেন্টিনায় রোজারিওতে নয়বার প্রকাশিত হয়েছিল, এবং সংক্ষেপে ১৯০১ সালে পুনর্জাগরিত হয়েছিল। পরবর্তীকালে একই নামের একটি অনুরূপ সর্বজনবিদিত কাগজ মোন্তেবিদেওেত প্রকাশিত হয়েছিল, মনে হয় যে বোল্টেন তার নির্বাসনের পর এটি সম্পাদিত করেছিলেন।[১]

লা নিউভা সেন্ডা[সম্পাদনা]

উরুগুয়েতে, বোল্তেন তার সক্রিয়তা অব্যাহত রাখেন এবং ১৯০৯ থেকে ১৯১০ সাল পর্যন্ত লা নিউভা সেন্ডা (বাংলা: নতুন পথ) নামে একটি সংবাদপত্র প্রকাশ করেছিলেন।[৯]

অন্যান্য প্রকাশনা[সম্পাদনা]

তিনি নৈরাজ্যবাদী-সাম্যবাদী সাময়িকী এবং পত্রিকায় অনেক প্রবন্ধ প্রকাশ করেছেন, যার মধ্যে অধিক উল্লেখযোগ্য ছিল, লা প্রোতেস্তা এবং লা প্রোতেস্তা হুমানা

লিগ্যাসি[সম্পাদনা]

পার্ক[সম্পাদনা]

পুয়েত্রো মাদেরো, বুয়েনোস আইরেসের একটি জেলা, তার সম্মানে প্রদত্ত পার্কের নাম।[১০]

চলচ্চিত্র[সম্পাদনা]

২০০৭ সালে, আর্জেন্টিনায় সান লুইস প্রদেশের সরকার ভির্জিনিয়া বোল্তেনের সম্মানে একটি চলচ্চিত্র নির্মানের জন্য তহবিল গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়।[১১] চলচ্চিত্রটি প্রধানত ভির্জিনিয়া বোল্তেনের জীবন, নৈরাজ্যবাদী নারীবাদ এবং সামাজিক অবস্থার ওপর দৃষ্টিপাত করেছে। চলচ্চিত্রটির শিরোনাম রাখা হয় নো গড, নো মাস্টার, নো হাসবেন্ড (স্পেনীয়: Ni dios, ni patrón, ni marido) একটি সংবাদপত্রের মূলমন্ত্রে পর[১১] এবং যেখানে ভির্জিনিয়া বোল্তেনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন হুলিয়েতা ডিয়াজ। চলচ্চিত্রটি আর্জেন্টিনায় এপ্রিল ২৯, ২০১০ সালে মুক্তি পেয়েছিল এবং পরিচালনা করেছিলেন স্প্যানিয় পরিচালন লাওরা মানা[১২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. মলিনিয়াক্স, মাক্সিন (২০০৩)। Movimientos de mujeres en América Latina: estudio teórico comparado (স্পেনিয় ভাষায়)। জ্যাকুলিন ক্রুজ (অনুবাদ)। ভ্যালেন্সিয়া বিশ্ববিদ্যালয়। পৃষ্ঠা ৪২। আইএসবিএন 978-84-376-2086-2। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২০, ২০১৬ 
  2. মোয়া, হোসে (২০০২)। "Italians in Buenos Aires's Anarchist Movement: Gender Ideology and Women's Participation, 1890-1910"। Donna R. Gabaccia, Franca Iacovetta। Women, gender and transnational lives: Italian workers of the world (ইংরেজি ভাষায়)। U of Toronto P। পৃষ্ঠা ১৯৫, ২০৫। আইএসবিএন 978-0-8020-8462-0। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২০, ২০১৬ 
  3. "Biography of Virginia Bolten"libcom.org। libcom.org। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২০, ২০১৬ 
  4. কার্লসন, ম্যারিপ্রান (১৯৮৮)। Feminismo!: the woman's movement in Argentina from its beginnings to Eva Perón। একাডেমি শিকাগো পাবলিশার্স। পৃষ্ঠা ১২৭। আইএসবিএন 978-0-89733-152-4 
  5. Molyneux, Maxine (২০০৩)। Movimientos de mujeres en América Latina: estudio teórico comparado (Spanish ভাষায়)। Jaqueline Cruz (trans.)। Universitat de València। পৃষ্ঠা 42। আইএসবিএন 978-84-376-2086-2। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  6. Moya, José (২০০২)। "Italians in Buenos Aires's Anarchist Movement: Gender Ideology and Women's Participation, 1890-1910"। Donna R. Gabaccia, Franca Iacovetta। Women, gender and transnational lives: Italian workers of the world। U of Toronto P। পৃষ্ঠা 202। আইএসবিএন 978-0-8020-8462-0। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  7. Portugal, Ana Maria (৮ মার্চ ২০০৫)। "Anarquistas: "Ni Dios, Ni Patrón, Ni Marido"" (Spanish ভাষায়)। Mujeres Hoy। ৩১ মে ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  8. "Museo de la Ciudad" (PDF) (Spanish ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১০ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  9. Ehrick, Christine (২০০৫)। The shield of the weak: feminism and the State in Uruguay, 1903-1933। UNM Press। পৃষ্ঠা 61। আইএসবিএন 978-0-8263-3468-8। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  10. "Argentina: Caputo, Salvatori associate"। South American Business Information। ৬ ডিসেম্বর ২০০০। ৩ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  11. "Film Adaptation of Virginia Bolten's activities" (Spanish ভাষায়)। Argentina: Pagina 12। অক্টোবর ৩, ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  12. "Ni dios, ni patrón, ni marido"। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]