ভাবাদর্শ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search

ভাবাদর্শ, মতাদর্শ বা অধিবিদ্যা (গ্রিক ιδεολογία শব্দ হতে) (ইংরেজি: Ideology) হচ্ছে একজন ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা সমাজ দ্বারা গৃহীত বিশ্বাসের সমষ্টি। এটি এক ধরণের সচেতন এবং অসচেতন ধারণা যা ব্যক্তির বিশ্বাস, লক্ষ, প্রত্যাশা, এবং প্রেরণার সমষ্টি হিসাবে বর্ণনা করা যায়। একটি মতাদর্শ হল ব্যাপক আদর্শের দৃষ্টিভঙ্গি যা মানুষ, সরকার, বা অন্যান্য দলের জনসংখ্যার সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ দ্বারা সঠিক ভাবে বিবেচনা করা হয় এবং তাদের দ্বারা অনুসৃত হয়, তবে কতিপয় দার্শনিক মতবাদের মধ্যে মতানৈক্য (দেখুন রাজনৈতিক ভাবাদর্শ) রয়েছে। এটি সমাজের প্রভাবশালী শ্রেণী দ্বারা প্রস্তাবিত ধারণার একটি সমষ্টিও হতে পারে যেমন অভিজাত সমাজের সকল সদস্যের এবং কিছু মার্কসবাদী এবং সমালোচনামূলক-তত্ত্ব ব্যবহারকারীর প্রস্তাবিত ধারণা। ভাবাদর্শের ধারণা একটি বিস্তৃত ধারণা সমষ্টি বর্ণনা করার সময়, একটি ভাবাদর্শের ধারণাসমষ্টি যেমন বৈশ্বিক দৃষ্টিভঙ্গি, কাল্পনিক মতবাদ এবং তত্ত্ববিদ্যা হিসাবে ধারণা প্রকাশ করে।[১]

ভাবাদর্শ অন্যমনস্ক মর্মার্থ ব্যবস্থাকে বুঝায় যা সর্বজনীন বিষয়ে প্রয়োগ হয়ে থাকে, একইভাবে এই ধারণা রাজনীতিতে কেন্দ্রীভূত হয়েছে। পরোক্ষভাবে, সমাজের সর্বজনীন ক্ষেত্রে এবং ব্যক্তি জীবনের মধ্যে পার্থক্য নির্দেশ করে, প্রতিটি রাজনৈতিক বা অর্থনৈতিক প্রবণতার যৌক্তিক মতাদর্শ, যা চিন্তার একটি সুস্পষ্ট পদ্ধতি হিসাবে প্রস্তাবিত হয় কি না তা নির্দেশ করে। আলথুসিয়ারের পরিভাষার অর্থে ভাবাদর্শ হচ্ছে "অস্তিত্বের বাস্তব অবস্থার সাথে কাল্পনিক সম্পর্ক"।

ব্যুত্পত্তি ও ইতিহাস[সম্পাদনা]

"ভাবাদর্শ" শব্দটি অত্যন্ত বিতর্কিত দার্শনিক ও রাজনৈতিক বিতর্ক এবং ফরাসি বিপ্লবের রাহাজানির সময়ে উদ্ভূত হয়, এবং প্রথম ফরাসি সাম্রাজ্যের প্রথম দিক থেকেই বর্তমান সময় পর্যন্ত বিভিন্ন অর্থ গ্রহণ করেছে। এই শব্দটি অ্যানটইন দেসটুট দি ট্রেসি ১৭৯৬ সালে,[২][৩] idea, গ্রিক ἰδέα (লকিনের ধারণার কাছাকাছি) এবং -লগি, থেকে -λογία একত্রিতকরনের মাধ্যমে সৃষ্টি করেন। তিনি এটি ব্যবহার করেন তার "ধারণা বিজ্ঞান"-এর একটি দিক নির্দেশ করতে (অধ্যয়নের কাজেই, অধ্যয়নের বিষয় থেকে নয়)। তিনি তিনটি দিক পৃথক করে দেখান, যথা: ভাবাদর্শ, সাধারণ ব্যাকরণ, এবং যুক্তিবিদ্যা যথাক্রমে বিষয়, অর্থ, এবং এই বিজ্ঞানের কারণ বিবেচনা করে।[৪] তিনি যুক্তি দেন যে এই দিকগুলোর মধ্যে ভাবাদর্শ, সবচেয়ে জাতিগত শব্দ কারণ ধারণা বিজ্ঞানে তাদের অভিব্যক্তি এবং সিদ্ধান্তগ্রহণের ও চর্চা রয়েছে।

ভাবাদর্শের অর্থ পরিবর্তনে কার্ল ম্যানহেমের ঐতিহাসিক পুনর্গঠন মতে, এই শব্দের আধুনিক অর্থ রূপ নেয় যখন নেপোলিয়ন বোনাপার্ট (একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে) এটি একটি দলের বিরুদ্ধে অবমাননাকর ভাবে ব্যবহার করেন যারা নিজেদের "আদর্শিক" নামে অবিহিত করে। মিশেল ফুকো তার ধাতুগত কাজ ‘শৃঙ্খলা এবং শাস্তি’ বইয়ে এই দলটির কথা উল্লেখ করেন। ফুকো দাবী করেন যে "আদর্শিকরা" আলোকিত বিজ্ঞান সংক্রান্ত বিষয়ে অত্যন্ত প্রভাবিত ছিল। ভাবাদর্শ শব্দটি, একটি ফরাসি বুদ্ধিজীবী দলের দ্বারা সৃষ্টি যা ‘‘আদর্শিক’’ শব্দ থেকে নেয়া হয়, এটি একটি ধারণা বিজ্ঞান বুঝাতে যার অর্ন্তদৃষ্টি, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক রূপান্তরের ভিত্তি হিসেবে অর্থ প্রদান করে। ফুকো তার ডিসকোর্স তত্ত্বে যারা আদর্শিক, তাদের সামাজিক, পাণ্ডিত্যপূর্ণ ও রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে তাদের কাজের সাথে তারা কিভাবে তাদের "ধারণা বিজ্ঞান"(একটি সম্প্রদায় যার অন্তর্ভুক্ত[৫] কাবানিস, কনডরেক্ট, কনস্ট্যান্ট, সারভান, ডাওনো, সে, মাদাম ডি স্টায়েল, এবং ডেসটূট ডি ট্রেসি), বিকশিত করে সে বর্ণনা দ্বারা উত্তর দেয়ার চেষ্টা করেন, যা তার (বোনাপার্টের উদার প্রজাতন্ত্রবাদ) রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ক্ষুদ্রতা প্রকাশ করে।

সম্ভবত ‘‘ভাবাদর্শের’’ নিকটবর্তী-আসল অর্থের জন্য সবচেয়ে সুবোধ্য উৎস হচ্ছে হিপোলাইট টাইনের কাজ প্রাচীন শাসনব্যবস্থা ("সমসাময়িক ফ্রান্সের উৎস" এর প্রথম খন্ড)। তিনি গ্রীক পদ্ধতির দ্বারা ভাবাদর্শকে ‘অনুশাসন দর্শন’ হিসেবে বর্ণনা করেন, কিন্তু শব্দভান্ডারের কোনরূপ ব্যাপ্ত ছাড়া সাধারণ পাঠকরা ইতিমধ্যে কি অবগত হল, এবং ব্যবহারিক বিজ্ঞানে যেটি প্রয়োজন পড়বে সেটির পর্যবেক্ষণ থেকে উদাহরণ না টেনে বর্ণনা করেন। টাইন এটাকে শুধুমাত্র ডেসটুট ডি ট্রেসির সঙ্গে সনাক্ত করেন ই না, বরং তার পারিপার্শ্বিক অবস্থার সঙ্গে, এবং কনডীলাক কে এর একজন অগ্রদূত হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করেন। (ডেসটুট ডি ট্রেসি, লক এবং কনডীলাক এর দ্বারা সম্পাদিত কাজ পড়ে দেখেন যখন তিনি সন্ত্রাসের রাজত্ব চলাকালে কারারুদ্ধ অবস্থায় ছিলেন।

নেপোলিয়ন বোনাপার্ট মেধা বিরোধীদের উপহাস করার জন্য "আদর্শিক" শব্দটি বেছে নেন। যাইহোক, "ভাবাদর্শ" শব্দটি ক্রমান্বয়ে তার মর্যাদাহানিকর অংশ থেকে সরে গেছে, এবং রাজনৈতিক মতামতের ভিন্নমুখী বিশ্লেষণ এবং সামাজিক দলসমূহের দৃষ্টিভঙ্গির কারণে একটি নিরপেক্ষ শব্দে রূপ নিয়েছে।[৬] কার্ল মার্ক্স শব্দটিকে ‘শ্রেণী সংগ্রাম’ এবং ‘আধিপত্যের’ মধ্যে অধিষ্ঠিত করেন,[৭][৮] অন্যদের বিশ্বাসমতে এটা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে কার্যকরী এবং সামাজিক সংযোগের একটি প্রয়োজনীয় অংশ ছিল।[৯]

বিশ্লেষণ[সম্পাদনা]

বিভিন্ন ভাবাদর্শগত নমুনার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বিশ্লেষণ রয়েছে। বিশ্লেষণের এই নমুনাসমূহ অনেকের দ্বারা পরিবর্তনমূলক-ভাবাদর্শ হিসেবে বর্ণীত হয়েছে– ভাবাদর্শের গঠন, রূপ, এবং প্রকাশের অধ্যয়ন রূপে। বর্তমান বিশ্লেষণগুলো ভাবাদর্শকে চিন্তাধারার সুসঙ্গত পদ্ধতি হিসেবে সমর্থন করে, যা বাস্তবে কিছু মৌলিক ধারণার উপর নির্ভর করে যেগুলোর কোন বাস্তবিক ভিত্তি আছে অথবা নেই। চিন্তাধারা ভাবাদর্শে পরিণত হয়(অর্থাৎ, সুসঙ্গত, পুনরূক্ত নমুনা) বিষয়গত চলমান পছন্দের ভিত্তিতে যা মানুষ তৈরি করে, যা আরো অধিক চিন্তাধারা প্রকাশ পাওয়ার বীজ হিসেবে কাজ করে। অতি সাম্প্রতিক বিশ্লেষণ মতে, ভাবাদর্শ আবশ্যকভাবে ভুল বা শুদ্ধ নয়। ভাবাদর্শে বিশ্বাসীরা সত্য বিশ্বাসের উষ্ণ ওকালতির মধ্য দিয়ে নিষ্ক্রিয়ভাবে সমর্থন করে যান। এটি রাজনীতি এবং ধর্মীয় মৌলবাদী স্তরে অত্যধিক প্রয়োজনের নিশ্চয়তার জন্য সুপ্ত অবস্থায় থাকে।

এটি ম্যানফ্রেড স্টেগার এবং পল জেমসের দেওয়া সংজ্ঞার সাথে মিলে যায় যেখানে উভয়ের সংজ্ঞায় আদর্শ নমুনা এবং শর্তসাপেক্ষের যুক্তি সত্যের ব্যাপারে দাবি রাখে:

ভাবাদর্শ হচ্ছে চিন্তাধারা এবং ধারণার আদর্শগত নমুনাসমগ্র, যা ওজস্বিতা সম্পর্কের বিশেষ উপস্থাপনা। এইসমস্ত ধারণামূলক নকশাসমূহ মানুষকে তাদের রাজনৈতিক বিশ্বের জটিলতা সঠিকপথে পরিচালনা করতে এবং সামাজিক সত্যতার দিকে দাবি তুলতে সাহায্য করে।[১০]

পদ্ধতিগত ভাবাদর্শ শিরোনামে জর্জ ওয়ালফর্ড এবং হ্যারল্ড ওয়েলসবি’র দ্বারা সম্পন্ন কাজ, সামাজিক পদ্ধতির সাথে ভাবাদর্শের সম্পর্ক খুঁজে বের করার প্রচেষ্টা চালায়। চার্লস ব্লাটবার্গ একটি প্রস্তাব পেশ করেন যেখানে রাজনৈতিক দর্শনের সাথে রাজনৈতিক ভাবাদর্শের পার্থক্য দেখানো হয়।[১১]

ডেভিড ডব্লিউ মিনার ছয়টি ভিন্ন ভিন্ন উপায় বর্ণনা করে "মতাদর্শ" শব্দটি ব্যবহার করেছেন:

  1. নির্দিষ্ট ধরণের বিষয়বস্তুর সঙ্গে নির্দিষ্ট ধারণার একটি সংগ্রহ হিসাবে, সাধারণত আদর্শগত;
  2. ‘নমুনা বা অভ্যন্তরীণ যৌক্তিক কাঠামো’ 'হিসেবে এক ঝাঁক ধারনার মধ্যে নিহিত থাকে;
  3. ধারনাসমূহ যা ‘‘মনুষ্য-সামাজিক মিথস্ক্রিয়ার’’ মাধ্যমে ভূমিকা রাখে;
  4. ধারনাসমূহ যা ‘‘প্রতিষ্ঠানের কাঠামোর’’ মাধ্যমে ভূমিকা রাখে;
  5. মর্মার্থ হিসেবে, যার উদ্দেশ্য হলো ‘‘প্ররোচনা’’; এবং
  6. সামাজিক মিথস্ক্রিয়ার ‘‘কেন্দ্রবিন্দু’’ হিসেবে।

উইলার্ড এ. মুলিন্সের মতে একটি ভাবাদর্শ ‘আনন্দলোক’ এবং ‘ঐতিহাসিক পৌরাণিক’ সংশ্লিষ্ট (কিন্তু বিভিন্ন) বিষয়ের সঙ্গে বিপরীত হবে। একটি ভাবাদর্শ চারটি মৌলিক বৈশিষ্ট্য নিয়ে গঠিত হয়:

  1. এটার চেতনার উপর ক্ষমতা থাকতে হবে
  2. এটা কাউকে মূল্যায়নের পথনির্দেশক হিসেবে সক্ষম হওয়া আবশ্যক;
  3. এটার কাজের প্রতি নির্দেশনা প্রদান করতে হবে; এবং
  4. এটা সুসঙ্গতভাবে হতে হবে।

টেরি এগলেটন (কম বা বেশী কোন বিশেষ আদেশ নয়) মতাদর্শের রূপরেখা দেখিয়ে কিছু সংজ্ঞা দেন:[১২]

  1. অর্থ, লক্ষণ ও সামাজিক জীবনে মূল্যবোধের উৎপাদন প্রক্রিয়া;
  2. একটি নির্দিষ্ট সামাজিক গোষ্ঠী বা শ্রেণীর চারিত্রিক ধারণাসমষ্টি;
  3. ধারণাসমষ্টি যা একটি বৈধ প্রভাবশালী রাজনৈতিক ক্ষমতায় সাহায্য করে;
  4. অমূলক ধারণাসমষ্টি যা একটি বৈধ প্রভাবশালী রাজনৈতিক ক্ষমতায় সাহায্য করে;
  5. পদ্ধতিগতভাবে বিকৃত যোগাযোগ;
  6. যা একটি বিষয়ের জন্য একটি অবস্থান নির্দেশ করে;
  7. সামাজিক স্বার্থ দ্বারা প্রেরণাপ্রাপ্ত চিন্তার রূপরেখা;
  8. পরিচয় চিন্তা;
  9. সামাজিকভাবে প্রয়োজনীয় বিভ্রম;
  10. বক্তৃতা এবং ক্ষমতার সংকটকাল;
  11. মাধ্যম যার দ্বারা সচেতন সামাজিক কর্মকর্তারা তাদের বৈশ্বিক জ্ঞানবোধ তৈরি করেন;
  12. কর্ম-ভিত্তিক বিশ্বাসের সমষ্টি;
  13. ভাষাগত এবং বিষ্ময়কর বাস্তবতার বিভ্রান্তি;
  14. প্রেক্ষাপট অবসান;
  15. অপরিহার্য মাধ্যম যাতে ব্যক্তিবর্গ একটি সামাজিক কাঠামোতে তাদের সম্পর্ক সহিয়া থাকে;
  16. প্রক্রিয়া যার দ্বারা সমাজজীবন একটি প্রাকৃতিক বাস্তবতায় রূপান্তরিত হয়।

জার্মান দার্শনিক খ্রিস্টান ডাঙ্কার একটি "ভাবাদর্শ ধারণার সমালোচনামূলক প্রতিফলনের" (২০০৬) জন্য আহবান করেন। তার কাজে, তিনি ভাবাদর্শের ধারণাকে সামনে নিয়ে আসতে চেষ্টা করেন, সেইসাথে জ্ঞানতত্ত্ব ও ইতিহাসের মধ্যে ঘনিষ্ঠভাবে সংযোগ দেখাতে ও প্রয়াস চালান। এই কাজে, ভাবাদর্শ শব্দটি উপস্থাপনার একটি পদ্ধতি হিসেবে যা প্রত্যক্ষভাবে বা পরোক্ষভাবে পরম সত্য বলে দাবি করে এরূপ পরিপ্রেক্ষিতে সংজ্ঞায়িত করা হয়।

যদিও "ভাবাদর্শ" শব্দটি প্রায়শই রাজনৈতিক আলোচনায় পাওয়া যায়, তবে ভাবাদর্শের বিভিন্ন ধরণ রয়েছেঃ রাজনৈতিক, সামাজিক, জ্ঞানতাত্ত্বিক, নৈতিক ইত্যাদি।

মার্কসবাদী দৃষ্টিভঙ্গি[সম্পাদনা]

কার্ল মার্ক্স মনে করেন যে সমাজের প্রভাবশালী ভাবাদর্শ হচ্ছে উপরিকাঠামোর অবিচ্ছেদ্য অংশ

সমাজের মার্কসবাদী অর্থনৈতিক ভিত্তি এবং উপরিকাঠামো মডেলে ‘ভিত্তি’ দ্বারা উৎপাদনের সম্পর্ক এবং উৎপাদনের উপায়গুলি নির্দেশ করে, এবং ‘উপরিকাঠামো’ দ্বারা প্রভাবশালী ভাবাদর্শ (ধর্মীয়, আইনগত, রাজনৈতিক ব্যবস্থা) উল্লেখ করে। উৎপাদনের অর্থনৈতিক ভিত্তি একটি সমাজের রাজনৈতিক উপরিকাঠামো নির্ধারণ করে।

শাসকশ্রেণীর-আগ্রহ উপরিকাঠামো এবং ভাবাদর্শের প্রকৃতি নির্ধারণ করে— কর্মকাণ্ডসমূহ সম্ভবপর হয় কারণ শাসকশ্রেণী উত্পাদনের মাধ্যম নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। উদাহরণস্বরূপ, উৎপাদনের একটি সামন্ত্রতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায়, ধর্মীয় ভাবাদর্শ হচ্ছে উপরিকাঠামোর সবচেয়ে বিশিষ্ট দৃষ্টিভঙ্গি, মার্কসবাদী ও উপরিকাঠামোর অর্থনৈতিক বেস. যখন পুঁজিবাদী গঠনে, ভাবাদর্শসমূহ যেমন উদারনীতি এবং সামাজিক গণতন্ত্র কর্তৃত্ব করে। সুতরাং একটি সমাজের সততা প্রতিপাদনে ভাবাদর্শের গুরুত্ব অসীম; এটা রাজনৈতিকভাবে ভ্রান্ত চেতনার মাধ্যমে সমাজের বিচ্ছিন্ন দলসমূহকে বিভ্রান্ত করে।

কিছু ব্যাখ্যা উপস্থাপন করা হয়েছে। গোর্গি লুকাস শাসকশ্রেণীর শ্রেণী-চেতনার একটি অভিক্ষেপ হিসেবে ভাবাদর্শকে পেশ করেন। আন্তোনিও গ্র্যামস্কি সাংস্কৃতিক কর্তৃত্ব ব্যবহার করে ব্যাখ্যা দেন কেন শ্রমিকশ্রেণীর তাদের কি এমন বৃহৎ স্বার্থে একটি ভ্রান্ত ভাবাদর্শের ধারণা থাকে। মার্কস যুক্তি দেখান যে, "যেসব শ্রেণীর তাদের নিষ্পত্তির জন্য বস্তুগত উৎপাদনের মাধ্যম রয়েছে, মানসিক উৎপাদনের ব্যাপারেও তাদের একই সময়ে নিয়ন্ত্রণ রয়েছে।"[১৩]

মার্কসবাদী বর্ণনায় "ভাবাদর্শ সামাজিক প্রজননের একটি উপকরণ স্বরূপ" যা সমাজবিজ্ঞান জ্ঞানে ধারণাগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ,[১৪] যেমন- কার্ল ম্যানহেম, ড্যানিয়েল বেল এবং জুরগেন হ্যাবারমাস প্রমুখের ধারণা। তাছাড়া, ম্যানহেম, সমাজবিজ্ঞানী পিয়েরে বরডিও দ্বারা বিকশিত একটি ধারণা, সকল ভাবাদর্শ(মার্কসবাদ সহ) সামাজিক জীবন থেকে প্রসূত, এটাকে গ্রহণ করে "মোট" কিন্তু "বিশেষ" ভাবাদর্শ মার্কসবাদী ধারণা থেকে একটি "সাধারণ" এবং "মোট" ভাবাদর্শগত ধারণা বলে অগ্রসর এবং বিকশিত করেন। স্লাভোয় জিজেক এবং আগেকার ফ্রাংকফুর্ট স্কুল ভাবাদর্শের ‘সাধারণ তত্ত্ব’ থেকে একটি মনঃসমীক্ষার অন্তর্দৃষ্টি দিয়ে বলে যে ভাবাদর্শ শুধুমাত্র সচেতন ধারনা অন্তর্ভুক্ত করেনা, অচেতন ধারনাও অন্তর্ভুক্ত করে থাকে।

লুই আলথুসারের আদর্শিক অবস্থার যন্ত্রপাতি[সম্পাদনা]

লুই আলথুসার ভাবাদর্শের আধ্যাত্মিক এবং বস্তুবাদী উভয় ধারণা প্রস্তাব করেন, যা আলোচনা বা বক্তৃতায় একটি বিশেষ ধরনের ব্যবহার করায়। প্রস্তাবের একটি সংখ্যা, যা কখনো অসত্য নয়, যেগুলো অন্যান্য সংখ্যক প্রস্তাবনার সুপারিশ করে। এই ভাবে, ফাঁকা আলোচনার সারমর্ম বুঝিয়ে থাকে যেগুলো বলা হয়নি(তবে পরামর্শ দেওয়া হয়)।

উদাহরণস্বরূপ, বিবৃতিমতে "আইনের দৃষ্টিতে সকল সমান", যা বর্তমান আইনি ব্যবস্থার একটি তাত্ত্বিক ভিত্তি, এটা প্রস্তাব দেয় যে সব মানুষের সমান মূল্য হতে পারে অথবা সমান "সুযোগ" থাকতে পারে। এটা সত্য নয়, ব্যক্তিগত সম্পত্তি ধারণার জন্য এবং উৎপাদন মাধ্যমে ক্ষমতার ফলশ্রুতিতে কিছু লোক অন্যদের তুলনায় বেশি (অত্যধিক) পেতে সক্ষম হচ্ছে। ক্ষমতার এইরূপ অসমতা সবধরণের শরীকানার উভয় ব্যবহারিক মূল্য এবং ভবিষ্যত সুযোগ সমানভাবে যে দাবি করে তার বিপরীত হয়; উদাহরণস্বরূপ, ধনীরা উত্তম আইনী প্রতিনিধিত্ব পেতে সক্ষম হয়, যা বাস্তবিকভাবে তাদের আইনের দৃষ্টিতে বিশেষাধিকার দিয়ে থাকে।

এছাড়াও আলথুসার তার ভাবাদর্শ তত্ত্ব ব্যাখ্যা করতে আদর্শিক অবস্থা যন্ত্র ধারণা উপস্থাপন করেন। তাঁর প্রথম গবেষণামূলক প্রবন্ধ ছিল "ভাবাদর্শের কোন ইতিহাস নেই": যখন ব্যক্তিগত ভাবাদর্শের ইতিহাস রয়েছে, সমাজের সংগ্রামী সাধারণ শ্রেণীর সঙ্গে অন্তর্বর্তী বিরতিতে আছে, ভাবাদর্শের সাধারণ রূপ হচ্ছে ইতিহাস বহির্ভূত।

আলথুসারের মতে, বিশ্বাস ও ধারণা হচ্ছে সামাজিক চর্চার ফলাফল, এর বিপরীত নয়। তাঁর প্রবন্ধে যাতে "ধারনা হচ্ছে বস্তুগত" অবিশ্বাসীদের দিকে প্যাসকেলের "মানহানিকর পরামর্শ" দ্বারা চিত্রিত করা হয়: "হাঁটু গেড়ে বস এবং প্রার্থনা কর, তবেই তোমার বিশ্বাস হবে"। আলথুসারের জন্য যা ভাবাদর্শগত তা একক ব্যক্তি-মানুষের সচেতন মনের বিষয়গত বিশ্বাস নাও হতে পারে, বরং আলোচনাসমূহ যা এই বিশ্বাস স্থাপন করে, বস্তুগত প্রতিষ্ঠান এবং ধর্মানুষ্ঠানের দ্বারা লোকজন সচেতন নিরীক্ষণ এবং সমালোচনামূলক চিন্তাধারা না করেও গ্রহণ করে।

গায় ডীবর্ডের কাজে ভাবাদর্শ এবং পণ্য[সম্পাদনা]

ফরাসি মার্কসবাদী তাত্ত্বিক গায় ডীবর্ড, সিচুয়েশনিস্ট ইন্টারন্যাশনালের প্রতিষ্ঠাতাকালীন সদস্য, যুক্তি দেখান যে, পণ্য যখন সমাজের "অপরিহার্য বিভাগ" হয়, অর্থাৎ যখন পণ্যপ্রথা প্রক্রিয়ায় একে পুরাদস্তুরভাবে শেষ করা হয়, তখন সমাজের চিত্র পণ্য দ্বারা প্রচারিত হয় (জীবনের সর্বক্ষেত্রে যেরূপ বর্ণনা করা হয় তাতে ধারণা এবং বস্তু শুধুমাত্র বিনিময় মূল্যের পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবসাযোগ্য পণ্যদ্রব্য হিসাবে তাদের আহরিত মান দ্বারা গঠিত), যা জীবনের সর্বক্ষেত্রে এবং একটি নিছক উপস্থাপনায় সমাজকে হ্রাস করে।[১৫]

সিলভিও ভিয়েটা: ভাবাদর্শ এবং যৌক্তিকতা[সম্পাদনা]

জার্মান সাংস্কৃতিক ইতিহাসবিদ সিলভিও ভিয়েটা উন্নয়ন এবং প্রাচীনকাল থেকে অগ্রগামী পশ্চিমা যৌক্তিকতার সম্প্রসারণকে প্রায় ভাবাদর্শের দ্বারা অনুষঙ্গী এবং এর দ্বারা আকৃতিপ্রাপ্ত বলে বর্ণনা করেন, যা "ন্যায়সঙ্গত যুদ্ধ", "সত্য ধর্ম", বর্ণবাদ, জাতীয়তাবাদ, বা সাম্যবাদে, পৃথিবীতে স্বর্গের একটি ধরন হিসাবে ভবিষ্যত ইতিহাসের দৃষ্টির মত। তিনি বলেন যে এসবের মত ধারনাসমূহ, আধিপত্যবাদী রাজনৈতিক কর্মের দ্বারা একটি আদর্শবাদী ব্যহ্যাবরণে পরিণত হয় এবং তাদের নেতাদের একটি উচ্চতর এবং "রাজনৈতিক ধর্মে" (এরিক ভেজেলিন), সজ্জিত করে, যা প্রায় ঈশ্বরের মত ক্ষমতাদর, যাতে তারা লাখ লাখ মানুষের জীবনের (এবং মৃত্যুর) উপর প্রভুত্ব করতে পারে। সুতরাং তিনি বিবেচনা করেন যে ভাবাদর্শের এইসব ধারণা, যার তলদেশে তারা আদর্শবাদকে প্রকাশিত হিসেবে কাজ করতে পারে, যেটি অযৌক্তিকভাবে রাজনৈতিক ক্ষমতায় ঢালের মতো অবদান রাখে।[১৬][১৭]

রাজনৈতিক ভাবাদর্শ[সম্পাদনা]

সমাজবিদ্যায়, একটি রাজনৈতিক ভাবাদর্শ হচ্ছে আদর্শের একটি নির্দিষ্ট নৈতিক সমষ্টি, নীতি, মতবাদ, পৌরাণিক কথা, অথবা একটি সামাজিক আন্দোলন, প্রতিষ্ঠান, শ্রেণী বা বৃহৎ সম্প্রদায়ের একটি প্রতীক, যা ব্যাখ্যা করে কিভাবে সমাজের কাজ করা উচিত, এবং একটি নির্দিষ্ট সামাজিক শৃঙ্খলা বজায় রাখার লক্ষ্যে কিছু রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিচিত্র প্রস্তাব করে। রাজনৈতিক ভাবাদর্শ একটি সমাজের বিভিন্ন দিক, (উদাহরণস্বরূপ): অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, শ্রম আইন, ফৌজদারি আইন, বিচার ব্যবস্থা, সামাজিক নিরাপত্তা এবং সামাজিক কল্যাণের বিধান, বাণিজ্য, পরিবেশ, গৌণ আইন, অভিবাসন, জাতি, সামরিক, দেশপ্রেমের ব্যবহার, এবং প্রতিষ্ঠিত ধর্মসহ অন্তর্ভুক্ত।

রাজনৈতিক ভাবাদর্শের দুইটি মাত্রা আছে:

  1. লক্ষ্য: কিভাবে সমাজের কাজ করা উচিত
  2. পদ্ধতি: আদর্শিক বিন্যাস অর্জনে সবচেয়ে উপযুক্ত উপায়

রাজনৈতিক ভাবাদর্শ শ্রেণীবিন্যাসের জন্য অনেক প্রস্তাবিত পদ্ধতি আছে, এই ভিন্ন ভিন্ন পদ্ধতির প্রতিটি একটি নির্দিষ্ট রাজনৈতিক বর্ণালী উৎপন্ন করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

ভাবাদর্শ রাজনৈতিক বর্ণালীতে তাদের অবস্থান দ্বারা নিজেদেরকে চিহ্নিত করে,(যেমন বামপন্থী, কেন্দ্রপন্থী বা ডানপন্থী হিসাবে) যদিও এ ব্যাপারে স্পষ্টতা প্রায়শই বিতর্কিত হতে পারে। অবশেষে, ভাবাদর্শ রাজনৈতিক কৌশল (উদাঃ জনসংখ্যাবাদ) থেকে এবং একক বিষয় থেকে পৃথক হতে পারে যে একটি দল তৈরি করা যেতে পারে (উদাঃ মারিজুয়ানার রাজনৈতিক দল)। দার্শনিক মাইকেল ওকেশুট ভাবাদর্শের একটি ভাল সংজ্ঞা প্রদান করেন যে "ঐতিহ্য অন্তর্ভুক্ত যৌক্তিক সত্যের অনুমিত উপ-স্তর নিয়মতান্ত্রিকভাবে সংক্ষিপ্তকরণ" হিসেবে।

একটি রাজনৈতিক ভাবাদর্শে মূলত নিজেই কিভাবে ক্ষমতা বরাদ্দের সঙ্গে যুক্ত এবং কিসে ক্ষমতা শেষ হয়, ব্যবহার করা উচিত। কিছু দল খুব ঘনিষ্ঠভাবে একটি নির্দিষ্ট ভাবাদর্শ অনুসরণ করে, অন্যগুলি বিশেষভাবে সেগুলোর যে কোনো একটিকে গ্রহণ না করে সংশ্লিষ্ট ভাবাদর্শের একটি গোষ্ঠী থেকে বিস্তৃত অনুপ্রেরণা নিতে পারে। প্রতিটি রাজনৈতিক ভাবাদর্শের কিছু নির্দিষ্ট ধারণাসমূহ রয়েছে যার জন্য এটাকে উত্তম সরকার গঠন বিবেচনা করা হয় (উদাঃ গণতন্ত্র, জননেতৃত্ব, ধর্মশাসন, খিলাফত ইত্যাদি), এবং শ্রেষ্ঠ অর্থনৈতিক ব্যবস্থা (উদাঃ পুঁজিবাদ, সমাজতন্ত্র, ইত্যাদি)। কখনও কখনও একই শব্দ একটি ভাবাদর্শ ও তার প্রধান ধারণা উভয়টিকে সনাক্ত করতে ব্যবহৃত হয়। উদাহরণস্বরূপ, "সমাজতন্ত্র" একটি অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে উল্লেখ করতে পারে, বা এটা একটি ভাবাদর্শকে উল্লেখ করতে পারে যা অর্থনৈতিক ব্যবস্থা সমর্থন করে।

ভাবাদর্শ ধারণার গবেষণাসমূহকে নিজেই (নির্দিষ্ট ভাবাদর্শের বদলে) নিয়মানুগ ভাবাদর্শের নামে চালানো হয়েছে।

১৯৯১ পরবর্তী সময়ে, অনেক মন্তব্যকারীরা দাবী করেন যে আমরা একটি মতাদর্শিক-উত্তর যুগে বাস করছি,[১৮] যার পুনরুদ্ধারে, সর্ব-পরিবেষ্টনী ভাবাদর্শসমূহ ব্যর্থ হয়েছে, এবং এই দৃশ্য প্রায়ই যুক্ত করা হয় [কার মতে?] ফ্রান্সিস ফুকুইয়ামার লেখা ‘‘ইতিহাসের প্রান্তে’’ বইয়ে।[১৯] অপরপক্ষে, নিয়েনহয়সার পর্যবেক্ষণ করেন তার গবেষণা (মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে) "উৎপাদিত ভাবাদর্শকে" চলমান হিসেবে।[২০]

স্লাভোয় জিজেক উল্লেখ করেছেন কিভাবে ভাবাদর্শ-উত্তর ধারণাসমূহ ভাবাদর্শের গভীরতম, অস্পষ্টতমতাকে সক্রিয় করতে পারে। ভ্রান্ত চেতনা বা মিথ্যা অসূয়ার একটি ধরণ, যা কারো বস্তুনিষ্ঠ দৃষ্টিকোণ হওয়ার সাপেক্ষে নিয়োজিত হয়ে, নিরপেক্ষ অসূয়ার ভান করে, বাস্তবে যদিও এসব তা নয়।

ভাবাদর্শ এড়ানোর সাহায্যের চেয়ে বরং, এই ভ্রষ্টতা শুধুমাত্র একটি বিদ্যমান প্রতিশ্রুতিকে গভীর করে। জিজেক এটাকে "আধুনিকতা-উত্তরবাদী ফাঁদ" বলে অভিহিত করেন,[২১] পিটার স্লটারডিক ইতিমধ্যে একই ধারণা ১৯৮৮ সালে বিকশিত করেন।[২২]

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায় যে রাজনৈতিক ভাবাদর্শ পরিবারের মধ্যে উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত হয় থাকে।[২৩][২৪][২৫][২৬][২৭][২৮][২৯][৩০]

সরকারি ভাবাদর্শ[সম্পাদনা]

যখন একটি রাজনৈতিক ভাবাদর্শ একটি সরকার ব্যবস্থার মধ্যে প্রাধান্য দিয়ে একটি পরিব্যাপক উপাদান হয়, তখন এটিকে ভাবাদর্শবাদ বলা যায়। [৩১]

সরকারের বিভিন্ন গঠনে ভাবাদর্শকে বিভিন্ন উপায়ে কাজে লাগানো হয়, যা সবসময় রাজনীতি ও সমাজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। নির্দিষ্ট কিছু ধারণা ও চিন্তাধারা বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত বা বাতিল বলে গণ্য হয়েছে, অন্যদের দ্বারা, যেগুলো তাদের উপযুক্ততার উপর নির্ভর করে বা কতৃত্বকারী সমাজশৃঙ্খলার জন্য ব্যবহার করে।

জ্ঞানতাত্ত্বিক ভাবাদর্শ[সম্পাদনা]

এমনকি, বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব হিসাবে, যখন বিদ্যমান বিশ্বাসের চ্যালেঞ্জসমূহ উত্সাহ দেয়, তখন প্রভাবশালী দৃষ্টান্ত বা মানসিকতা- নির্দিষ্ট চ্যালেঞ্জ, তত্ত্ব, বা পরীক্ষাকে অগ্রসর হওয়া থেকে প্রতিরোধ করতে পারে। ভাবাদর্শ হিসেবে গৃহীত, বিজ্ঞানের একটি বিশেষ ক্ষেত্র হচ্ছে বাস্তুসংস্থান, যা পৃথিবীতে জীবন্ত বস্তুর মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে অধ্যয়ন করে। ইন্দ্রিয়লব্ধ মনোবৈজ্ঞানিক জেমস জে গিবসন বিশ্বাস করতেন যে পরিবেশগত সম্পর্কে মনুষ্য-উপলব্ধি আত্ম সচেতনতা এবং চেতনার স্বীয় ভিত্তি ছিল। ভাষাবিদ জর্জ লেকফ গণিতের একটি জ্ঞান-সম্পর্কীয় বিজ্ঞানকে প্রস্তাব করেছেন যেটাতে পাটীগণিতের সবচেয়ে মৌলিক ধারনাকে মনুষ্য-উপলব্ধি হিসেবে দেখা হবে, যা নিজেই একটি বাস্তুসংস্থানের মধ্যে প্রসূত।

নিগূঢ় বাস্তুসংস্থান এবং আধুনিক বাস্তব্যবিদ্যা আন্দোলন (এবং, একটি ক্ষুদ্রতর মাত্রায়, সবুজ দল) একটি ইতিবাচক ভাবাদর্শ হিসেবে পরিবেশগত বিজ্ঞান রূপে গৃহীত হয়েছে বলে মনে হয়।

কেউ কেউ একইভাবে পরিবেশগত অর্থনীতির প্রতি অপবাদ আরোপ করেন যে বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব রাজনৈতিক অর্থনীতিতে পরিবর্তিত হচ্ছে। সবুজ অর্থনীতির আধুনিক অনুশীলন উভয় পন্থার সংযোগ ঘটায় এবং বিজ্ঞানের অংশ, ভাবাদর্শের অংশ মনে করা হয়।

ভাবাদর্শের সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধিতে শুধুমাত্র অর্থনীতির তত্ত্ব সম্পূর্ণ ভিন্ন— কিছু উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক ভিত্তিক ভাবাদর্শে নব্যউদারনীতিবাদ, অর্থ-কেন্দ্রিকতাবাদ, বানিজ্যবাদ, মিশ্র অর্থনীতি, সামাজিক ডারউইনবাদ, সাম্যবাদ, অবাধনীতি অর্থনীতি, এবং মুক্ত বাণিজ্য অন্তর্ভুক্ত। এছাড়াও নিরাপদ বাণিজ্য এবং ন্যায্য বাণিজ্যের বর্তমান তত্ত্ব রয়েছে যা ভাবাদর্শ হিসেবে দেখা যেতে পারে।

মনস্তাত্ত্বিক গবেষণা[সম্পাদনা]

মনস্তাত্ত্বিক গবেষণা[৩২] ক্রমবর্ধমানভাবে ইঙ্গিত দেয় যে ভাবাদর্শসমূহ প্রতিফলিত করে (অসচেতন) প্রেরণাদায়ী পদ্ধতিকে, যেরূপ দৃষ্টিভঙ্গিতে রাজনৈতিক প্রত্যয় সবসময় স্বাধীন ও নিরপেক্ষ চিন্তাকে উল্টোদিকে প্রতিফলিত করে। জস্ট, লেগারউড এবং হারডিন ২০০৮ সালে যে ব্যাখ্যার গুচ্ছ-পূর্ব একক হিসেবে ভাবাদর্শ কাজ করতে পারে বলে প্রস্তাব দেন, যার কারণে বিশ্বকে বুঝতে মৌলিক মানবিক-উদ্দেশ্য বিস্তার করে অস্তিত্বের হুমকি এড়ানো, এবং মূল্যবান আন্তঃব্যক্তিগত সম্পর্ক বজায় রাখার জন্য।[৩২] এই লেখকরা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে এধরনের উদ্দেশ্য, ক্রম-সমর্থন বৈশ্বিকদৃষ্টিভঙ্গিকে সামঞ্জস্যহীনভাবে চালিত করতে পারে। মনোবিজ্ঞানীরা সাধারণত খুঁজে পান যে ব্যক্তিত্বের বৈশিষ্ট, পৃথক পার্থক্য পরিবর্তনশীল, আবশ্যক, এবং আদর্শিক বিশ্বাসের একটি সাধারণ যোগসূত্র আছে বলে মনে করেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

ভাবাদর্শ এবং প্রেক্ষাপট তত্ত্ব[সম্পাদনা]

প্রেক্ষাপটবিদ বব হজের মতে, ভাবাদর্শ "একটি ঐকিক বস্তুকে চিহ্নিত করে যা সামাজিক প্রতিনিধি এবং পদ্ধতির সাথে জটিল অর্থগুচ্ছকে একীভূত করে, যা তাদেরকে উৎপন্ন করে থাকে। অন্য কোন শব্দ এমনকি 'ভাবাদর্শ' ও এই বস্তু ধারন করে না। ফুকোর 'এপিস্টেম' খুবই সংকীর্ণ এবং বিমূর্ত, যা যথেষ্ট সামাজিক নয়। তার 'আলোচনা', জনপ্রিয় কারণ এটি কিছু ভাবাদর্শ ভূখণ্ডের সঙ্গে কম অবান্তর অতিক্রম করে, খুব মৌখিক পদ্ধতিতে সীমাবদ্ধ হয়। 'বৈশ্বিকদৃষ্টিভঙ্গি' এতোই অধ্যাত্মিক থাকে যে, 'প্রজ্ঞাপন' খুব বোঝাই করা হয়। দ্বন্দ্বগুলো সত্ত্বেও অথবা কারণে 'ভাবাদর্শ' এখনও সামাজিক, রাজনৈতিক জীবনের প্রেক্ষাপটে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।[৩৩] মাইকেল ফ্রীডেনের মতো লেখকেরা সম্প্রতি ভাবাদর্শ অধ্যয়নে একটি শব্দার্থিক বিশ্লেষণ অন্তর্ভুক্ত করেছেন।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Steger, Manfred B.; জেমস, পল (২০১৩)। "Levels of Subjective Globalization: Ideologies, Imaginaries, Ontologies"Perspectives on Global Development and Technology১২ (১–২)। 
  2. Kennedy, Emmet (জুলাই–সেপ্টে ১৯৭৯)। ""Ideology" from Destutt De Tracy to Marx"। Journal of the History of Ideas40 (3): 353–368। doi:10.2307/2709242জেস্টোর 2709242 
  3. Hart, David M. (2002) Destutt De Tracy: Annotated Bibliography
  4. De Tracy, Destutt (1801) Les Éléments d'idéologie, 3rd ed. (1817), p. 4, cited by: Mannheim, Karl (1929) Ideologie und Utopie, 2nd footnote in the chapter The problem of "false consciousness"
  5. Michel Foucault Security,Territory,Population pp.55-86,pp.83-84 Note 27 2007
  6. Eagleton, Terry (1991) Ideology. An introduction, Verso, pg. 2
  7. Tucker, Robert C (1978). The Marx-Engels Reader, W. W. Norton & Company, pg. 3.
  8. Marx, MER, pg. 154
  9. Susan Silbey, "Ideology" at Cambridge Dictionary of Sociology.
  10. জেমস, পল; স্টেগার, ম্যানফ্রেড (২০১০)। বিশ্বায়ন ও সংস্কৃতি, খণ্ড- ৪: বিশ্বায়নের ভাবাদর্শ। লন্ডন: স্যাজ পাবলিকেশন্স। 
  11. Blattberg, Charles, "Political Philosophies and Political Ideologies", in Patriotic Elaborations: Essays in Practical Philosophy, Montreal and Kingston: McGill-Queen's University Press, 2009.[১]
  12. Eagleton, Terry (1991) Ideology. An introduction, Verso, আইএসবিএন ০-৮৬০৯১-৩১৯-৮
  13. Marx, Karl (১৯৭৮a)। "The Civil War in France", The Marx-Engels Reader 2nd ed.। New York: W.W. Norton & Company। 
  14. In this discipline, there are lexical disputes over the meaning of the word "ideology" ("false consciousness" as advocated by Marx, or rather "false position" of a statement in itself is correct but irrelevant in the context in which it is produced, as in Max Weber's opinion): Buonomo, Giampiero (২০০৫)। "Eleggibilità più ampia senza i paletti del peculato d'uso? Un'occasione (perduta) per affrontare il tema delle leggi ad personam"Diritto&Giustizia edizione online   – via Questia (সদস্যতা প্রয়োজনীয়)
  15. Guy Debord (১৯৯৫)। The Society of the Spectacle। Zone Books। 
  16. Silvio Vietta (২০১৩)। A Theory of Global Civilization: Rationality and the Irrational as the Driving Forces of History। Kindle Ebooks। 
  17. Silvio Vietta (২০১২)। Rationalität. Eine Weltgeschichte. Europäische Kulturgeschichte und Globalisierung। Fink। 
  18. Bell, D. The End of Ideology: On the Exhaustion of Political Ideas in the Fifties (2000) (2nd ed.). Cambridge, Mass: Harvard University Press, pg. 393
  19. Fukuyama, F. (1992)The End of History and the Last Man. USA: The Free Press, xi
  20. Nienhueser, Werner (২০১১)। "Empirical Research on Human Resource Management as a Production of Ideology" (PDF)Management Revue। Rattner Hampp Verlag। 22 (4): 367–393। doi:10.1688/1861-9908_mrev_2011_04_Nienhueserআইএসএসএন 0935-9915। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-২৭[...] current empirical research in HRM is generating ideology. 
  21. Zizek, Slavoj (২০০৮)। The Sublime Object of Ideology (2nd সংস্করণ)। London: Verso। পৃষ্ঠা xxxi, 25–27। আইএসবিএন 9781844673001 
  22. Sloterdijk, Peter (১৯৮৮)। Critique of Cynical ReasonUS: University of Minnesota Pressআইএসবিএন 9780816615865 
  23. “Bouchard, T. J., and McGue, M. (2003). Genetic and environmental influences on human psychological differences. Journal of Neurobiology, 54 (1), 44–45.”
  24. “Cloninger, et al. (1993).”
  25. “Eaves, L. J., Eysenck, H. J. (1974). Genetics and the development of social attitudes. Nature, 249, 288–289.”
  26. Alford, (2005).
  27. “Hatemi, P. K., Medland, S. E., Morley, K. I., Heath, A. C., Martin, N.G. (2007). The genetics of voting: An Australian twin study. Behavior Genetics, 37 (3), 435–448.”
  28. “Hatemi, P. K., Hibbing, J., Alford, J., Martin, N., Eaves, L. (2009). Is there a ‘party’ in your genes? Political Research Quarterly, 62 (3), 584–600.”
  29. “Settle, J. E., Dawes, C. T., and Fowler, J. H. (2009). The heritability of partisan attachment. Political Research Quarterly, 62 (3), 601–613.”
  30. Anonymous Conservative. “The Evolutionary Psychology Behind Politics.”
  31. Jaroslaw Piekalkiewicz, Alfred Wayne Penn. Politics of Ideocracy. 
  32. Jost, John T., Ledgerwood, Alison, & Hardin, Curtis D. (2008). Shared reality, system justification, and the relational basis of ideological beliefs. Social and Personality Psychology Compass, 2,171-186
  33. Bob Hodge, "Ideology", at Semiotics Encyclopedia Online.

টীকা[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]