ভঙ্গিল পর্বত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
উপগ্রহ থেকে হিমালয় পর্বতমালার একটি অংশ

'ভঙ্গিল পর্বত' মূলতঃ উঁচু-নিচু ভাজ বিশিষ্ট পর্বত। [ভূ-পৃষ্ঠ|ভূ-পৃষ্ঠের] কোনো অংশে প্রবল পার্শ্ব চাপের ফলে ভু-ভাগে ক্রমোন্নতি-অবনতির সৃষ্টি হলে সেই স্থানটিতে ভঙ্গিল পর্বত সৃষ্টি হয়। এধরনের পর্বতগুলো কখনো কখনো ৫০০০ মিটারেরও অধিক উচ্চতা সম্পন্ন হয়ে থাকে। পৃথিবীর প্রধান প্রধান পার্বত্য অঞ্চলগুলোতে এই ধরনের পর্বতের আধিক্য দৃষ্টিগোচর হয়। হিমালয়, আল্পস, আটলাস প্রভৃতি ভঙ্গিল পর্বতের প্রকৃষ্ট উদাহরণ।

সৃষ্টির কারণ[সম্পাদনা]

ভঙ্গিল পর্বত সৃষ্টির কারণ হলো ভূ-ত্বকের শিলারাশিতে প্রবল পার্শ্ব চাপ। তবে এই পার্শ্ব চাপের উদ্ভব ঠিক কিভাবে ঘটেছে সেই সম্পর্কে অবশ্য ভূ-ত্ত্ববিদগণের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। এই সম্পর্কিত প্রধান প্রধান ধারণাগুলো হলোঃ

  • পৃথিবীর অভ্যন্তরস্থঃ শিলাসমূহের তাপ হ্রাসের হারের পার্থক্যঃ

উত্তপ্ত পৃথিবীর শীতলতা লাভের সময় এর শিলাসমূহের গাঠনিক ও ভৌতগুণাবলীর ভিন্নতার কারণে কোনো কোনো শিলা বা স্থান অধিক দ্রুত শীতল হলেও এর পার্শ্ববর্তী শিলা বা স্থানগুলো তখনও উত্তপ্ত অবস্থায় থাকার ফলে তাদের মধ্যে একপ্রকার টানের সৃষ্টি হয়; যার ফলে এধরনের স্থানগুলোতে অসমান ভূমিরূপ সৃষ্টি হয়।

  • ভাসমান ভূ-ভাগ বিষয়ক মতবাদঃ

আলফ্রেড ওয়েগনার তাঁর ভাসমান ভূ-ভাগ বিষয়ক ধারনায় এই মতবাদ ব্যক্ত করেন যে, পৃথিবীর প্রধান প্রধান প্লেটগুলো সর্বদা সচল থাকার ফলে যখন সেগুলো পরস্পর সন্নিকটবর্তী হয় তখন তাদের পার্শ্ব-সীমাস্থঃ ভূ-ভাগ প্রবল চাপে উথ্খিত ও অবনত হয়ে ভঙ্গিল পর্বতের সৃষ্টি করে।

  • ভূ-আন্দোলনের ফলেঃ

ভূ-অভ্যন্তরে বা এর বহিঃভাগে নানাবিধ কারণে ভূ-আলোড়নের সৃষ্টি হয়। কখনো কখনো এসকল প্রবল ভূ-আন্দোলনের ফলে শিলা সমূহে প্রবল চাপ পড়ে, ফলে সেসব স্থানের ভূ-ভাগে উন্নতি-অবনতির দ্বারা ভঙ্গিল পর্বতের সৃষ্টি হয়।

  • ভূ-অভ্যন্তরে বিভিন্ন ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ার ফলেঃ

ভূ-অভ্যন্তরে বিভিন্ন তেজষ্ক্রিয় পদার্থের উপস্থিতি, পানির প্রবেশ, তাপমাত্রার হ্রাস বা বৃদ্ধি, চাপের হ্রাস বা বৃদ্ধি প্রভৃতি কারণে সাম্যাবস্থার বিপর্যয় ঘটে এবং এর ফলে ভূ-পৃষ্ঠের উর্দ্ধাংশে ভাজের সৃষ্টি হয়।

নিম্নভূমিতে পাললিক শিলার সঞ্চয়নের ফলে কালক্রমে সেখানে বায়ু-পানির প্রবাহ ও তাপ ও চাপের প্রভাবে ভূমির উন্নতি ও অবনতি ঘটার মাধ্যমে ভঙ্গিল পর্বতের সৃষ্টি হয়।

= সৃষ্টির প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

1.নামকরনের তাতপর্য-পাললিক শিলাস্তরে ভাজ পড়ে উচু হয়ে এই শিলাস্তর সুষ্টি বলে একে ভঙ্গিল পর্বৎ বলে।

উদাহরণ[সম্পাদনা]

ভারতের হিমালয়, ইউরপের আল্পস, ঊত্তর আমেরিকার রকি, দাখইন আমেরিকার আন্দিজ

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

ভাসমান ভূ-ভাগ তত্ত্ব