ব্যাসিল উইলিয়ামস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ব্যাসিল উইলিয়ামস
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম আলভাডন ব্যাসিল উইলিয়ামস
জন্ম (১৯৪৯-১১-২১)নভেম্বর ২১, ১৯৪৯
কেমানাস এস্টেট, সেন্ট ক্যাথেরিন, জামাইকা
মৃত্যু অক্টোবর ২৫, ২০১৫(২০১৫-১০-২৫) (৬৫ বছর)
ব্যাটিংয়ের ধরন ডানহাতি
বোলিংয়ের ধরন -
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক ৩১ মার্চ ১৯৭৮ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৪৬
রানের সংখ্যা ৪৬৯ ২,৭০২
ব্যাটিং গড় ৩৯.০৮ ৩৬.০২
১০০/৫০ ২/১ ৫/১৫
সর্বোচ্চ রান ১১১ ১২৬*
বল করেছে - -
উইকেট - -
বোলিং গড় - -
ইনিংসে ৫ উইকেট - -
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং - -
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫/- ১৯/-
উৎস: ক্রিকইনফো, ৪ নভেম্বর ২০১৫

আলভাডন ব্যাসিল উইলিয়ামস (জন্ম: ২১ নভেম্বর, ১৯৪৯ - মৃত্যু: ২৫ অক্টোবর, ২০১৫) জামাইকার সেন্ট ক্যাথেরিনের কেমানাস এস্টেট এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটার ছিলেন।[১] ১৯৭৮ থেকে ১৯৭৯ মেয়াদে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে খেলেন। দলে তিনি মূলতঃ উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে জামাইকার প্রতিনিধিত্ব করেন ব্যাসিল উইলিয়ামস। আক্রমণধর্মী ব্যাটিং উপহার দেয়ায় তিনি ‘শটগান’ নামে পরিচিতি পান।[২]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

ফেব্রুয়ারি, ১৯৭০ সালে জামাইকার পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তাঁর। ঐ দলে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত খেলেন। ১৯৭৭-৭৮ মৌসুমের শেল শীল্ড প্রতিযোগিতায় সুন্দর ক্রীড়াশৈলীর কারণে তাঁকে টেস্ট দলে ডাকা হয়। ১৯৭৮ থেকে ১৯৭৯ সময়কালে সাতটি টেস্টে অংশ নিয়েছেন তিনি। এ সময়ে বিশ্ব সিরিজ ক্রিকেটে শীর্ষস্থানীয় খেলোয়াড়গণ অংশগ্রহণ করলে দল বেশ দূর্বল হয়ে পড়ে। সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ৩৯.০৮ গড়ে ৪৬৯ রান তুলে নিজের দক্ষতা মেলে ধরেন তিনি।

১৯৭৮ সালে জর্জটাউনে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অনুষ্ঠিত টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে চমকপ্রদ সেঞ্চুরি করেন। জেফ থমসনের বলে সেঞ্চুরির কোটায় পৌঁছলেও পরের বলেই ফাইন লেগে কট আউটের শিকার হন তিনি।[৩] ১১৮ বলে ১০০ রান তুলে দশম ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান হিসেবে অভিষেকেই সেঞ্চুরি করার বিরল গৌরব অর্জন করেন। সিরিজ শেষে ৪২.৮৩ গড়ে ২৫৭ রান তোলেন। এরফলে ঐ বছরের শেষদিকে ভারত সফরে যান। কলকাতায় অনুষ্ঠিত টেস্টে তিনি ১১১ রান করেন। ভারতে সিরিজে ২১২ রান তোলেন ৩৫.৩৩ গড়ে। কিন্তু ক্যারি প্যাকারের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ শেষে খেলোয়াড়গণ ফিরে আসলে দল থেকে বাদ পড়েন তিনি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

এলেইন উইলিয়ামসের সাথে পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ হন। তাদের সংসারে ব্যাসিল উইলিয়ামস, জার্মেইন উইলিয়ামস ও নামীয় দুই সন্তান রয়েছে। এছাড়াও, গ্যাব্রিয়েল উইলিয়ামস নাম্নী এক কন্যা সন্তান ছিল। তন্মধ্যে, ‘ক্যানিবাস’ ডাকনামে পরিচিত জার্মেইন উইলিয়ামস মঞ্চে সঙ্গীত পরিবেশনসহ অভিনয়কর্মের সাথে জড়িত। ৬৫ বছর বয়সে ব্যাসিল উইলিয়ামসের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Canibus : Rap, Hip-Hop Interview. Riot Sound. Accessed February 22, 2008.
  2. Williamson, Martin (২৭ অক্টোবর, ২০১৫)। "Profile of Basil Williams in espncricinfo"espncricinfo। সংগৃহীত ২৭ অক্টোবর, ২০১৫ 
  3. "Former West Indies opener Basil Williams dies at 65"espncricinfo। ২৭ অক্টোবর, ২০১৫। সংগৃহীত ২৭ অক্টোবর, ২০১৫ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]