বোরিয়া মজুমদার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বোরিয়া মজুমদার
জন্ম (1976-03-08) ৮ মার্চ ১৯৭৬ (বয়স ৪৬)
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাসাংবাদিকইতিহাসবিদ
পরিচিতির কারণক্রীড়া ধারাভাষ্যকার ও সাংবাদিক
উল্লেখযোগ্য কর্ম
টুয়েন্টি টু ইয়ার্ডস টু ফ্রিডম

বোরিয়া মজুমদার একজন ভারতীয় বাঙালি ক্রীড়া সাংবাদিক, শিক্ষায়তনিক সভ্য ও লেখক।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

মজুমদার ১৯৭৬ সালের ৮ মার্চ কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কলকাতার দ্য ফ্রাঙ্ক অ্যান্থনি পাবলিক স্কুল থেকে স্কুলের পড়াশোনা শেষ করেন। তিনি তার বিএ ডিগ্রি অর্জন করেছেন, ১৯৯৭ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে ইতিহাস বিষয়ে। ১৯৯৯ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আধুনিক ইতিহাসে এমএ করেন। তিনি ১৯৯৯-২০০০ সালে রোডস স্কলারে ভূষিত হন এবং অক্টোবর, ২০০০-এ ভারতীয় ক্রিকেটের সামাজিক ইতিহাসের উপর ডিফিল(DPhil) করার জন্য অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট জন'স কলেজে যান।[১][২]

তিনি মার্চ ২০০৪ সালে তার ডক্টরেট সম্পন্ন করেন এবং থিসিসটি পরবর্তীকালে অক্সফোর্ড মনোগ্রাফ সিরিজে প্রকাশের জন্য মনোনীত হয়। এটি পেঙ্গুইন-ভাইকিং কোম্পানি দ্বারা ভারতে প্রকাশিত হয়, যার শিরোনাম ছিল টুয়েন্টি টু ইয়ার্ডস টু ফ্রিডম:এ সোশ্যাল হিস্ট্রি অব ইন্ডিয়ান ক্রিকেট (ডিসেম্বর, ২০০৪)।

গ্রন্থ রচনা[সম্পাদনা]

প্রথম বই প্রকাশের পর তিনি জনপ্রিয় ভারতীয় ক্রিকেটার শচীন তেন্ডুলকরের সাথে সহ-লেখকরূপে শচীনের আত্মজীবনী প্লেয়িং ইট মাই ওয়ে লেখেন।[৩]

২০১৮ সালে তার দ্বিতীয় পুস্তক ইলেভেন গডস অ্যান্ড এ বিলিয়ন ইন্ডিয়ান্স:দ্য অন অ্যান্ড অফ দ্য ফিল্ড স্টোরি অব ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া অ্যান্ড বেয়ন্ড প্রকাশিত হয়। এটি সাইমন ও স্কুস্টার দ্বারা প্রকাশিত হয়েছিল।[৪]

ইতিহাস গবেষণা ও অধ্যাপনা[সম্পাদনা]

২০১৯ সালে তিনি সেন্ট্রাল ল্যাঙ্কাশায়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব স্পোর্টস অ্যান্ড ওয়েলবিং-এ সিনিয়র রিসার্চ ফেলো হিসেবে যোগ দেন।

এর আগে তিনি মেলবোর্ন শহরের লা ত্রোব বিশ্ববিদ্যালয়ে ও চিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিজিটিং লেকচারার ছিলেন।

বর্তমান জীবন[সম্পাদনা]

বোরিয়া মজুমদার শর্মিষ্ঠা গুপ্তের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ।

বোরিয়া মজুমদার একাধিক কর্পোরেটের সমর্থন নিয়ে তার উদ্ভাবনী ক্রীড়া উদ্যোগ রেভস্পোর্টস (RevSportz) চালু করেছেন।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Professor Boria Majumdar | Staff Profile |University of Central Lancashire"UCLan - University of Central Lancashire (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-১১ 
  2. "Majumdar Boria : World Who's Who"www.worldwhoswho.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-১১ 
  3. Majumdar, Boria; Tendulkar, Sachin (৬ নভেম্বর ২০১৪)। Playing It My Way: My Autobiography। Hodder & Stoughton। আইএসবিএন 978-1473605206 
  4. Sen, Sudeep (২০১৮-০৫-২৫)। "Review: Eleven Gods and a Billion Indians by Boria Majumdar"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-১১ 
  5. "For me Sports is mainstream: Boria Majumdar"Connected to India (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২১-১২-০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-০৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]