বোবায় ধরা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বোবায় ধরা
John Henry Fuseli - The Nightmare.JPG
১৭৮১ সালে হেনরি ফুশেল অঙ্কিত 'দ্য নাইটমেয়ার' (দুঃস্বপ্ন); অনেক আগে বোবায় ধরাকে অশুভ আত্মার আগমণ হিসেবে ধারণা করা হতো, যা এই চিত্রে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।
বিশেষত্বমনোরোগ বিজ্ঞান , ঘুমে সমস্যার জন্য প্রদত্ত ওষুধ
লক্ষণসজাগ থাকা অবস্থায়ও নড়তে সমর্থ না হওয়া
স্থিতিকালকয়েক মিনিটের কম সময়
ঝুঁকির কারণনার্কোলেপ্সি,,নিদ্রাকালীন শ্বাসব্যাঘাত , অ্যালকোহলের ব্যবহার, ঘুমে সমস্যা
রোগনির্ণয়ের পদ্ধতিবর্ণনার উপর নির্ভর করে
পার্থক্যমূলক রোগনির্ণয়নার্কোলেপ্সি, অনুভূতিহীন সিজারিয়ান অপারেশন ,পর্যায়ক্রমিক পক্ষাঘাত, রাতে ভয় পাওয়া
চিকিৎসারোগীকে ভরসা দেওয়া, পর্যাপ্ত ও স্বাস্থ্যকর ঘুম, আচরণ থেরাপি, অবসাদ রোধক ওষুধ
পুনরাবৃত্তির হার৮–৫০%

বোবায় ধরা (ইংরেজি: Sleep paralysis) হচ্ছে এমন একটি অবস্থা যখন একজন ব্যক্তি ঘুমিয়ে পড়া বা ঘুম থেকে জেগে উঠার সময়ে শরীরের কোন অঙ্গ-প্রত্যংগ নাড়াতে না পারার একটি অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে যায়। অন্যভাবে, যখন কাউকে বোবায় ধরে, তখন সে তার শরীরের কোন অঙ্গ-প্রত্যাঙ্গ নাড়াতে পারে না, অসাড়তা অনুভব করে। এটি ঘটে একজন ব্যক্তির ঘুমিয়ে পড়া বা জেগে উঠার আগমুহূর্তে।

বোবায় ধরা হচ্ছে ঘুমন্ত অবস্থা এবং জাগরণের মধ্যবর্তী একটি অবস্থান। এটি ঘুমানোর মুহূর্তে অথবা ঘুম থেকে জেগে উঠার আগমুহূর্তে হতে পারে। বোবায় ধরা ব্যক্তিটি প্রায়ই একটি ভয়ের অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে যায়, ভয়ের কোন দৃশ্য দেখতে পারে (যেমন, ঘরের ভেতরে কারো অনাকাঙ্ক্ষিত উপস্থিতি) এবং সেই মুহূর্তে বোবায় ধরা ব্যক্তিটি নড়তে পারে না।

ধরে নেওয়া হয় REM sleep এ বিঘ্ন ঘটার কারণে বোবায় ধরা ব্যপারটি ঘটে। বোবায় ধরার সাথে কিছু মানসিক রোগ যেমন narcolepsy, migraine, উদ্বেগমূলক ব্যাধি, এবং obstructive sleep apnea এর যোগসুত্র আছে বলে ধরা হয়। তবে, এসব মানসিক রোগ না থাকলেও একজন ব্যক্তি বোবায় ধরা এ আক্রান্ত হতে পারে।[১][২] যখন অন্য কোন রোগের সাথে যোগসূত্র থাকে, বোবায় ধরা সাধারণত স্নায়বিক ব্যাধি narcolepsy এর কারণে হতে পারে। ।[২]

লক্ষণ ও উপসর্গ[সম্পাদনা]

রোগ নির্ণয়[সম্পাদনা]

প্রতিকার[সম্পাদনা]

চিকিৎসা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Ohayon, M.; Zulley, J.; Guilleminault, C.; Smirne, S. (১৯৯৯)। "Prevalence and pathologic associations of sleep paralysis in the general population"। Neurology52 (6): 1194–2000। ডিওআই:10.1212/WNL.52.6.1194 
  2. Terrillon, J.; Marques-Bonham, S. (২০০১)। "Does Recurrent Isolated Sleep Paralysis Involve More Than Cognitive Neurosciences?"। Journal of Scientific Exploration15: 97–123। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]