বেলাশেষে (চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বেলাশেষে
বেলাশেষে পোস্টার.jpg
প্রচারণা পত্রিকা
পরিচালকনন্দিতা রায়
শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়
রচয়িতানন্দিতা রায়
শ্রেষ্ঠাংশেসৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়
স্বাতীলেখা সেনগুপ্ত
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত
অপরাজিতা আঢ্য
মনামি ঘোষ
সোহানী সেনগুপ্ত
শঙ্কর চক্রবর্তী
খরাজ মুখোপাধ্যায়
ইন্দ্রাণী দত্ত
অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়
সুরকারঅনুপম রায়
অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়
দেশ ভারত
ভাষাবাংলা
নির্মাণব্যয়কোটি (US$১,৩৫,০০৫)
আয়২.৩ কোটি (US$৩,১০,৫১১.৫)

বেলাশেষে ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্র। এই ছবিটি ২০১৫ সালের মে মাসের ১ তারিখে কলকাতাতে মুক্তি দেয়া হয়।[১][২]

কাহিনী[সম্পাদনা]

প্রকাশনা ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত সাহিত্যপ্রেমী বিশ্বনাথ মজুমদার (সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়) দুর্গা উৎসব উপলক্ষে ছেলে (শঙ্কর চক্রবর্তী), ছেলের বউ (ইন্দ্রাণী দত্ত), তিন মেয়ে (অপরাজিতা আঢ্য ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তমনামি ঘোষ) এবং তিন জামাইকে (খরাজ মুখোপাধ্যায়, সুজয়প্রসাদ চট্টোপাধ্যায় এবং অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়) এক জায়গায় জড়ো করেন৷ [৩] সকলে ভাবে উনি বোধহয় তার সম্পত্তির উইল পড়ে শোনাবেন৷ কিন্তু বিশ্বনাথ সবাইকে অবাক করে দিয়ে জানান, ৪৯ বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টানতে চান তিনি৷ স্ত্রী আরতির (স্বাতীলেখা সেনগুপ্ত) সঙ্গে বিবাহ-বিচ্ছেদের জন্য যাবতীয় আইনি ব্যবস্থা তিনি ইতোমধ্যেই সেরে ফেলেছেন৷ দু’জনের দাম্পত্য জীবনে কোনও বিবাদ নেই৷ কোনও অপূর্ণতাও নেই৷ একপর্যায়ে আদালতের শরণাপন্ন হন দুজন আলাদা-যাপনের জন্য, আদালত তাদের ১৫ দিন একত্রে কাটানোর জন্য সুপারিশ করে। শুরু হয় বিবাহ বিচ্ছেদের আগের শেষ ১৫ দিন, যেখানে থাকবে শুধু বিশ্বনাথ আর আরতি।[৪]

অভিনয়[সম্পাদনা]

প্রযোজনা[সম্পাদনা]

প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Mother-Daughter together in Bela Seshe?"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১২ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  2. "বক্স-অফিসে 'বেলাশেষে'র বাজিমাৎ"। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১৫ 
  3. "'বেলাশেষে'র সৌমিত্র-স্বাতীলেখা"। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৫ 
  4. "বেলাশেষের পাক-ধরা প্রেমেই জিত টলিউডে"। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মে ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]