বেলারুশের জাতীয় প্রতীকসমূহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে বেলারুশের স্বাধীনতার পর, দেশটি সোভিয়েত যুগের আগে ব্যবহৃত জাতীয় প্রতীক পুনরুত্থান করে। এছাড়াও একটি লাল পতাকার সাথে সাদা ডোরাকাটা দাগ এবং কুলচিহ্নে একজন বীরযোদ্ধা অশ্বের উপরে। এই জাতীয় প্রতীকসমূহ ১৯৯৫ সালের একটি বিতর্কিত ভোটের মাধ্যমে সোভিয়েত যুগের প্রতীকে প্রতিস্থাপিত করা হয়। ঐ দুটি প্রতীকসমূহের পাশাপাশি জাতীয় সঙ্গীতও বেলারুশের সাংবিধানিকভাবে নির্ধারিত জাতীয় প্রতীক।

আইন[সম্পাদনা]

১৯৯৪ সালে বেলারুশ সংবিধানের ১৯ ধারায় দেশের সরকারি প্রতীকসমূহ তালিকাভূক্ত করা হয়েছে। ১৯ ধারা পাঠ্য:

প্রতিটি জাতীয় প্রতীক তাদের অতিরিক্ত নিজ নিজ আইন দ্বারা নির্ধারিত করা হয়। জাতীয় প্রতীকের ব্যবহার প্রতিটি প্রতীকের সংশ্লিষ্ট আইনের মধ্যে আচ্ছাদিত করা হয়।

জাতীয় পতাকা[সম্পাদনা]

জাতীয় পতাকা
বেলারুশের পতাকা
বেলোরুশিয়ান এসএসআর পতাকা
বেলারুশের পতাকা (১৯৯১-১৯৯৫)

জাতীয় পতাকাটি ৭ই জুন, ১৯৯৫ সাল থেকে ব্যবহার করা হচ্ছে যা দুটির একটি প্রতীক ১৯৯৫ সালের গণভোটের মাধ্যমে গ্রহণ হয়েছিল। পতাকার প্রধান উপাদানসমূহ হল লাল ও সবুজ, এবং উত্তোলন অবস্থানে একটি অলঙ্কার নকশা দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে। বর্তমান পতাকাটি ১৯৫১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের একটি প্রজাতন্ত্র দেশ থাকা অবস্থায় ব্যবহৃত পতাকাকে সামান্য পরিবর্তন করা হয়েছে। পতাকার সোভিয়েত সংস্করণে ছিল উপরে কোণার কাছাকাছি উত্তোলনকৃত একটি হাতুড়ি ও কাস্তি এবং অলঙ্কার রং উল্টানো ছিল। সরকারি কর্মকর্তা ও সংস্থার ব্যবহৃত বেশ কিছু পতাকা জাতীয় পতাকার উপর ভিত্তি করে করা হয়েছে।

প্রতিস্থাপিত হওয়া সত্ত্বেও, যারা বর্তমান বেলারুশীয় রাষ্ট্রপতি আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কোকে বিরোধিতা করে তারা বেলারুশের প্রাক্তন পতাকা ব্যবহার করে। প্রাক্তন পতাকার মাঝখানে সাদা পটভূমিতে একটি লাল অনুভূমিক ডোরা ছিল। এটি বেলারুশীয় জাতীয় প্রজাতন্ত্র এবং ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে স্বাধীনতার পর অবিলম্বে ব্যবহৃত হয়।

জাতীয় প্রতীক[সম্পাদনা]

১৯১৮-১৯১৯, ১৯৯১–১৯৯৫ পতাকা
জাতীয় প্রতীক
১৯১৮-১৯১৯, ১৯৯১–১৯৯৫ পাহোনিয়া বাহু

১৯৯৫ সালে গণভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত অন্যান্য জাতীয় প্রতীকসমূহের মধ্যে ছিল জাতীয় প্রতীক। প্রতীকের উপাদানসমূহ জাতীয় পতাকার রঙের একটি ফিতা, বেলারুশের একটি মানচিত্র, গমের শীষ এবং একটি লাল তারা অন্তর্ভুক্ত। ফিতার নীচের দিকে, এটি বেলারুশীয় ভাষায় দেশটির অফিসিয়াল নাম বলে। ১৯৫০ সালে ইভান দুবাসোভ বেলারুশীয় এসএসআর প্রতীকটি নকশা করে। সোভিয়েত সংস্করণে, একটি হাতুড়ি ও কাস্তি বেলারুশের মানচিত্র প্রতিস্থাপিত এবং ফিতা পুরোটাই লাল ছিল। ফিতাসমূহের বাম এবং ডান, সোভিয়েত নীতিবাক্য "বিশ্বের কর্মীসমূহ, ঐক্যবদ্ধ!" বেলারুশীয় এবং রুশ ভাষায় দেখা যায়।[২]

বিএনআর ও পোস্ট-সোভিয়েত স্বাধীনতার সময়ে ব্যবহৃত জাতীয় প্রতীকে পাহোনিয়া (চেইস) বলা হত। একটি লাল ঢালে একটি সাঁজোয়া সাদা বীরযোদ্ধা একটি রূপালী ঘোড়ার উপর এক হাতে খোলা তলোয়ার এবং অন্য হাতে ঢাল। বীরযোদ্ধার ঢালের উপর একটি সুবর্ণ পিতৃতান্ত্রিক ক্রস প্রদর্শিত হয়। পাহোনিয়া একটি বৈকল্পিক ব্যবহার হচ্ছে লিথুয়ানিয়া কুলচিহ্ন[৩]

জাতীয় সঙ্গীত[সম্পাদনা]

স্বাধীনতার সময় শুধুমাত্র প্রতীকসমূহের সাথে জাতীয় সঙ্গীতও পরিবর্তন হয়। সোভিয়েত আমলে "আমার বেলারুশি" জাতীয় সঙ্গীত গৃহীত হয়, যা সাময়িকভাবে ২০০২ সাল পর্যন্ত ব্যবহার করা হয়েছিল। সোভিয়েত আমলের গানের কথার পরিবর্তে শুধুমাত্র ন্যায়েস্টার সাকালোওস্কির রচিত যন্ত্রসঙ্গীতটি ব্যবহার করা হয়। ২রা জুলাই, ২০০২ সালে, প্রেসিডেন্ট লুকাশেঙ্কো একটি নতুন জাতীয় সঙ্গীত গ্রহণ করার জন্য একটি আদেশ জারি করে এবং উলাদজিমির কারিজনি বর্তমান জাতীয় সঙ্গীতটি রচনা করেন। এছাড়াও ক্লিমকোভিচ বেলোরুশীয় এসএসআর এর জন্য সঙ্গীত লিখেছেন। শুধুমাত্র গান নির্বাচিত করা হয়নি, জাতীয় সঙ্গীতের সাথে সম্পর্কিত একটি প্রোটোকল নির্দেশিকা লুকাশেঙ্কো প্রকাশ করে।[৪] সাকালোওস্কির সঙ্গীত রাখার কারণে হচ্ছে দেশের ঐতিহাসিক ঐতিহ্য রাখা।[৫] যখন লেনিনকে উল্লেখ করে, সোভিয়েত ইউনিয়নের কমিউনিস্ট পার্টির এবং সোভিয়েত ব্রাদারহুড ধারণা বাদ দেওয়া হয়েছিল, তখনও "মানুষের মধ্যে বন্ধুত্ব" একটি সাধারণ ধারণাটি বৃদ্ধমান ছিল। বেলারুশীয় সরকারের মতে, একবার জাতীয় সঙ্গীত গৃহীত হলে দীর্ঘ প্রক্রিয়ার বেলারুশের তিনটি জাতীয় প্রতীকের কাজ সম্পন্ন হবে।

অপ্রাতিষ্ঠানিক প্রতীক[সম্পাদনা]

জাতীয় পতাকা, জাতীয় সঙ্গীত ও প্রতীক ছাড়াও বেলারুশের অন্য বিভিন্ন বেসরকারী প্রতীক রয়েছে। ১২শ-শতকের ধ্বংসাবশেষ সেন্ট ইউফোরসেনার ক্রুশটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় হারিয়ে যায়, একে বেলারুশের আধ্যাত্মিক একটি প্রতীক হিসেবে গণ্য করা হয়।[৬] ইউরোপীয় বাইসনকে সাধারণভাবে ওইসোন্ট বলা হয়, যা বেলারুশের এবং বেলাভেজহা বন একটি প্রতীক হিসাবে দেখা হয়।[৭] এটি ব্রেস্ট ওবলাস্টের বৈশিষ্ট্যযুক্ত প্রতীক। সারস পাখি এবং নীল ঝুমকাফুল, বেলারুশের মাস্কোট ব্যাপকভাবে পরিচিত।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বেলারুশ প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতি ওয়েবপোর্টাল সংবিধানের অনুচ্ছেদ এক ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৭ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে। ১৯৯৪ সালে প্রকাশিত এবং ১৯৯৬ সালে সংশোধিত করা হয়েছে। সংগৃহীত ২৪শে নভেম্বার, ২০১৫।
  2. "বেলারুশের জাতীয় প্রতীক" Гербы БССРГеральдикум (রুশ ভাষায়)। Русский Центр флаговедения и геральдики। ২০০৩-১২-১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৫ 
  3. "লিথুয়ানিয়া কুলচিহ্ন"। Office of the Seimas। ২০০৬-০১-১০। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৫ 
  4. "Аб Дзяржаўным гімне Рэспублікі Беларусь" (বেলারুশীয় ভাষায়)। বেলারুশের প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতি। ২০০২-০৭-০২। ২০১০-০৭-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৫ 
  5. "রাষ্ট্রব্যবস্থা - রাষ্ট্র প্রতীক"। বেলারুশের প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতি। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৫ 
  6. "В Минск привезут копию креста Евфросинии Полоцкой"। ২৩.০৪.২০১০। সংগ্রহের তারিখ 25 November 2015  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  7. "Information about heraldic symbols"। Brest Regional Executive Commettee। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]