বেন ফেরিঙ্গা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
বেন ফেরিঙ্গা
FeringaWiki.jpg
২০১৫ সালে বেন ফেরিঙ্গা
জন্ম বার্নার্ড লুকাস ফেরিঙ্গা
(১৯৫১-০৫-১৮) ১৮ মে ১৯৫১ (বয়স ৬৬)
বার্জার-কম্পাস্কাম, নেদারল্যান্ডস
বাসস্থান হোঙ্গিনা, নেদারল্যান্ডস
জাতীয়তা ওলন্দাজ
কর্মক্ষেত্র জৈব রসায়ন
বস্তু বিজ্ঞান
ন্যানোপ্রযুক্তি
আলোক-রসায়ন
প্রতিষ্ঠান হোঙ্গিনা বিশ্ববিদ্যালয়, ১৯৮৪-বর্তমান
রয়্যাল ডাচ শেল, ১৯৭৯-১৯৮৪
প্রাক্তন ছাত্র হোঙ্গিনা বিশ্ববিদ্যালয়, পিএইচডি
হোঙ্গিনা বিশ্ববিদ্যালয়, বিএস
সন্দর্ভসমূহ Asymmetric oxidation of phenols. Atropisomerism and optical activity (১৯৭৮)
পিএইচডি উপদেষ্টা অধ্যাপক হান্স উইনবার্গ
পরিচিতির কারণ আণবিক সুইচ/মোটর, হোমোজেনাস ক্যাটালাইসিস, স্টেরিওকেমিস্ট্রি, আলোক-রসায়ন
উল্লেখযোগ্য পুরস্কার রসায়নে নোবেল পুরস্কার (২০১৬)[১]
স্ত্রী/স্বামী বেটি ফেরিঙ্গা
ওয়েবসাইট
benferinga.com

বার্নার্ড লুকাস "বেন" ফেরিঙ্গা (ওলন্দাজ উচ্চারণ: [ˈbɛrnɑrt ˈlykɑs ˈbɛn ˈfeːrɪŋɣaː]; জন্ম: ১৮ মে, ১৯৫১) হোঙ্গিনা এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিশিষ্ট ওলন্দাজ কৃত্রিম জৈব রসায়নবিদআণবিক ন্যানোপ্রযুক্তি এবং সমজাতীয় অনুঘটন বিশেষজ্ঞ। তিনি স্ট্রাটিং রসায়ন ইনস্টিটিউটের[২] ইয়াকোবুস হেনরিকুস ফান্ট হফ আণবিক বিজ্ঞান বিভাগের ডিস্টিংগুইসড অধ্যাপক[৩][৪] এছাড়াও, নেদারল্যান্ডসের হোঙ্গিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষানুক্রমিক অধ্যাপক ও রয়্যাল নেদারল্যান্ডস বিজ্ঞান একাডেমির বিজ্ঞান বিভাগের পরিচালনা কমিটির সভাপতি তিনি।[৫]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৭৮ সালে প্রয়াত অধ্যাপক হান্স উইনবার্গের তত্ত্বাবধানে হোঙ্গিনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। নেদারল্যান্ডসের শেলে স্বল্পকালীন অবস্থান শেষে যুক্তরাজ্যে চলে যান। এরপর ১৯৮৪ সালে হোঙ্গিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে মনোনীত হন। ১৯৮৮ সালে পূর্ণাঙ্গ অধ্যাপকরূপে অধ্যাপক উইনবার্গের স্থলাভিষিক্ত হন।

ফেরিঙ্গার গবেষণাক্ষেত্রের সাফল্য মৌলিক থেকে আধুনিক স্টেরিওকেমিস্ট্রি পর্যন্ত বিস্তৃত।

ইতোমধ্যে ৩০-এর অধিক স্বত্ত্ব ও ৬৫০-এর অধিক গবেষণা কর্ম প্রকাশিত হয়েছে। ত্রিশ সহস্রাধিকবার তাঁর গবেষণাকে উদ্বৃত্ত করা হয়েছে ও এইচ-সূচকে ৯০ অতিক্রম করেছেন।[৬] তাঁর কর্মজীবনে শতাধিক পিএইচডি ছাত্রের গবেষণাকর্মে নেতৃত্ব দিয়েছেন।[৭]

২০১৬ সালে স্যার জে. ফ্রেজার স্টডার্টজ্যঁ-পিয়ের সভেজের সাথে যৌথভাবে রসায়নে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন তিনি।[১][৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Staff (৫ অক্টোবর ২০১৬)। "The Nobel Prize in Chemistry 2016"Nobel Foundation। সংগৃহীত ৫ অক্টোবর ২০১৬ 
  2. "Stratingh Institute for Chemistry" 
  3. "University of Groningen" 
  4. "University of Groningen" 
  5. "Ben Feringa"। সংগৃহীত ৫ জানুয়ারি ২০১৫ 
  6. "webofknowledge.com"Webofscience(TM)। Thomson Rueters। সংগৃহীত ২৪ জানুয়ারি ২০১৫ 
  7. "Professor of Chemistry Ben Feringa supervises his 100 th PhD student"University of Groningen। সংগৃহীত ১৫ জানুয়ারি ২০১৫ 
  8. Chang, Kenneth; Chan, Sewell (৫ অক্টোবর ২০১৬)। "3 Makers of ‘World’s Smallest Machines’ Awarded Nobel Prize in Chemistry"New York Times। সংগৃহীত ৫ অক্টোবর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]