বুর্জ খলিফা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বুর্জ খলিফা
Burj Khalifa.jpg

বুর্জ খলিফা

বুর্জ খলিফা ছিল বিশ্বের উচ্চতম ভবন২০১০ থেকে.*
যে ভবনটি এর পূর্বে সর্বোচ্চ ভবন ছিল তাইপে ১০১
তথ্য
অবস্থান দুবাই, সংযুক্ত আরব আমিরাত
বর্তমান অবস্থা সম্পূর্ণ
ভিত্তিপ্রস্তর জানুয়ারি ২০০৪
নির্মিত ২০০৪–২০১০
প্রবেশ ৪ঠা জানুয়ারি ২০১০[১]
ব্যবহার মিশ্র-ব্যবহার
রুফ ৮২৮ মি (২,৭১৭ ফু)[২]
সর্বোচ্চতল ৬২১.৩ মি (২,০৩৮ ফু)[২]
কারিগরী বর্ণনা
তলসংখ্যা ১৬৩ বাসযোগ্য মেঝে[২][৩]
plus 46 maintenance levels in the spire[৪] and 2 parking levels in the basement
ফ্লোরএরিয়া ৩,০৯,৪৭৩ মি (৩৩,৩১,১০০ ফু)[২]
ব্যয় $১.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার[৫]
প্রতিষ্ঠানসমূহ
স্থপতি Adrian Smith at SOM
স্থাপত্য
বাস্তুকার
Bill Baker at SOM[৬]
কন্ট্রাকটর স্যামসাং সিএন্ডটি, বিসিক্স এবং আরবটেক
সুপারভিশন কনসালটেন্ট ইঞ্জিনিয়ার এন্ড আর্কিটেক অব রেকর্ড হায়দার কনসালটিং
কনস্ট্রাকশন প্রজেক্ট ম্যানেজার টার্নার কনস্ট্রাকশন
গ্রোকোন[৭]
প্ল্যানিং বাউয়ের এজি এন্ড মিডিল ইস্ট ফাউন্ডেশন্স[৭]
লিফট কন্ট্রাক্টর ওটিস[৭]
ভিটি কনসালটেন্ট লার্চ ব্যাটেস[৭]
ডেভলপার এমার প্রোপার্টিজ

*Fully habitable, self-supported, from main entrance to highest structural or architectural top; see the list of tallest buildings in the world for other listings.

বুর্জ খলিফা (আরবি: برج خليفة ‎; /খালিফাহ/) বর্তমানে পৃথিবীর গগনচুম্বী অট্টালিকা বা উচ্চতম ভবন যা ৪ঠা জানুয়ারী ২০১০ তারিখে উদ্বোধন করা হয়েছে।[৮] এটি আরব আমিরাতের দুবাই শহরে অবস্থিত। এটি "দুবাই টাওয়ার" নামেও পরিচিত।[৯] নির্মাণকালে এর বহুল প্রচারিত নাম বুর্জ দুবাই (আরবি: برج دبي‎) থাকলেও উদ্বোধনকালে নাম পরিবর্তন করে "বুর্জ খলিফা" রাখা হয়।[১০]

উচ্চতা[সম্পাদনা]

এটির উচ্চতা ৮১৮ মিটার বা ২,৭১৭ ফুট (প্রায় আধা মাইল)। এটি তাইওয়ানের তাইপে ১০১ টাওয়ার থেকে ১,০০০ ফুটেরও বেশী উচ্চতর। "তাইপেই ১০১" ভবনটির উচ্চতা ১,৬৬৭ ফুট। ২০০৪ থেকে ২০০৯ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত এটিই ছিল পৃথিবীর উচ্চতম স্থাপনা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরে অবস্থিত উইলিস টাওয়ারটি ১,৪৫১ ফুট উঁচু। "বুর্জ খলিফা" এতই উঁচু একটি ভবন যে নিচতলা আর সর্বোচ্চ তলার মধ্যে তাপমাত্রার পার্থক্য ১০ ডিগ্রী সেলসিয়াস[১১]

কিছু বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

"বুর্জ খলিফার" নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০০৪ খ্রিস্টাব্দে, আর কাজ শেষ হয় ২০০৯ খ্রিস্টাব্দে। এটি তৈরীতে প্রায় ১.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয় হয়েছে। এর বহিঃপ্রাঙ্গনে অবস্থিত ফোয়ারা নির্মাণেই ব্যয় হয়েছে ১৩৩ মিলিয়ন ব্রিটিশ পাউন্ড। এই ভবনে ১,০৪৪টি বাসা (এপার্টমেন্ট) আছে; ১৫৮তলায় আছে একটি মসজিদ; ৪৩তম এবং ৭৬তম তলায় আছে দুটি সুইমিং পুল। আরো আছে ১৬০ কক্ষবিশিষ্ট একটি হোটেল। ১২৪তম তলায় দর্শকদের জন্য প্রকৃতি দর্শনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।[১১] এ ভবনে সংস্থাপিত কোনো কোনো লিফটের গতিবেগ ঘণ্টায় ৪০ মাইল।[৮] ২০০৪ খ্রিস্টাব্দে শিলান্যাসের পর থেকে অতি দ্রুত নির্মাণ কাজ অগ্রসর হয়েছে। এমনো দিন গেছে যে দিন ১২ হাজার নির্মাণ কর্মী একযোগে নির্মাণ প্রক্রিয়ায় নিযুক্ত ছিল। সে সময় প্রতি তিন দিন পর পর একটি ছাদ তৈরি করা হয়েছে।[৯]

তলা বিন্যাস[সম্পাদনা]

এটি পুরো ভবনের মেঝে বা তলা বিন্যাস[১২][১৩]:

তলা ব্যবহার
১৬০–২০৬ কারিগরি
১৫৬–১৫৯ যোগাযোগ ও সম্প্রচার
১৫৫ কারিগরি
১৩৯–১৫৪ কর্পোরেট স্যুট
১৩৬–১৩৮ কারিগরি
১২৫–১৩৫ কর্পোরেট স্যুট
১২৪ পর্যবেক্ষণাগার
১২৩ স্কাই লবি
১২২ এট.মোসফিয়ার রেস্টুরেন্ট
১১১–১২১ কর্পোরেট স্যুট
১০৯–১১০ কারিগরি
৭৭–১০৮ আবাসিক
৭৬ স্কাই লবি
৪৪–৭২ আবাসিক
৪৩ স্কাই লবি
৪০–৪২ কারিগরি
৩৮–৩৯ আরমানি হোটেল স্যুট
১৯–৩৭ আবাসিক
১৭–১৮ কারিগরি
৯–১৬ আরমানি বাসস্থান
১–৮ আরমানি হোটেল
নিচতলা আরমানি হোটেল
খোলা স্থান আরমানি হোটেল
বি১–বি২ পার্কিং, কারিগরি

চিত্রমালা : বুরুজ দুবাই নির্মাণধারা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Official Opening of Iconic Burj Dubai Announced"। Gulfnews। ৪ নভেম্বর ২০০৯। সংগৃহীত ৪ নভেম্বর ২০০৯ 
  2. ২.০ ২.১ ২.২ ২.৩ "CTBUH Tall Buildings Database: Burj Khalifa"CTBUH। সংগৃহীত ২০১০-০২-১১ 
  3. Baldwin, Derek (১ মে ২০০৮)। "No more habitable floors to Burj Dubai"। Gulfnews। সংগৃহীত ৭ জানুয়ারি ২০১০ 
  4. "The Burj Khalifa"। Glass, Steel and Stone। সংগৃহীত ৮ জানুয়ারি ২০১০ 
  5. "Dubai opens world's tallest building"Dubai: USA Today। জানুয়ারি ২, ২০১০। সংগৃহীত ৪ জানুয়ারি ২০১০ 
  6. Blum, Andrew (২৭ নভেম্বর ২০০৭)। "Engineer Bill Baker Is the King of Superstable 150-Story Structures"। Wired। সংগৃহীত ১১ মার্চ ২০০৮ 
  7. ৭.০ ৭.১ ৭.২ ৭.৩ "Burj Dubai (Dubai Tower) and Dubai Mall, United Arab Emirates"designbuild-network.com। সংগৃহীত ২৩ মার্চ ২০০৯ 
  8. ৮.০ ৮.১ Dubai Opens a Tower to Beat All
  9. ৯.০ ৯.১ Dubai opens half-mile-high tower, world's tallest
  10. Indebted Dubai puts on brave face for tower opening
  11. ১১.০ ১১.১ Burj Dubai, the world's tallest building, set to open
  12. "Structural Elements – Elevator, Spire, and More"। BurjDubai.com। সংগৃহীত ৩১ ডিসেম্বর ২০০৯ 
  13. "Inside the Burj Dubai"Maktoob News। ২৮ ডিসেম্বর ২০০৯। সংগৃহীত ১০ জানুয়ারি ২০১০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]