বিশ্বনাথ প্রতাপ সিং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বিশ্বনাথ প্রতাপ সিং
V. P. Singh (cropped).jpg
১৯৮৯ সালে বিশ্বনাথ প্রতাপ সিং
৮ম ভারতের প্রধানমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
২ ডিসেম্বর ১৯৮৯ – ১০ নভেম্বর ১৯৯০
রাষ্ট্রপতিরামাস্বামী ভেঙ্কটরামন
ডেপুটিচৌধুরী দেবী লাল
পূর্বসূরীরাজীব গান্ধী
উত্তরসূরীচন্দ্র শেখর
ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
২ ডিসেম্বর ১৯৮৯ – ১০ নভেম্বর ১৯৯০
পূর্বসূরীকে. সি. পান্ট
উত্তরসূরীচন্দ্র শেখর
কাজের মেয়াদ
২৪ জানুয়ারি ১৯৮৭ – ১২ এপ্রিল ১৯৮৭
প্রধানমন্ত্রীরাজীব গান্ধী
পূর্বসূরীরাজীব গান্ধী
উত্তরসূরীকে. সি. পান্ট
ভারতের অর্থমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
৩১ ডিসেম্বর ১৯৮৪ – ২৩ জানুয়ারি ১৯৮৭
প্রধানমন্ত্রীরাজীব গান্ধী
পূর্বসূরীপ্রণব মুখার্জী
উত্তরসূরীরাজীব গান্ধী
উত্তরপ্রদেশের মূখ্যমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
৯ জুন ১৯৮০ – ১৯ জুলাই ১৯৮২
গভর্নরচন্দ্রেশ্বর প্রসাদ নারায়ণ সিং
পূর্বসূরীবনর্ষী দাস
উত্তরসূরীশ্রীপতি মিশ্র
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম(১৯৩১-০৬-২৫)২৫ জুন ১৯৩১
এলাহাবাদ, যুক্ত প্রদেশ, ব্রিটিশ ভারত (বর্তমান: উত্তরপ্রদেশ)
মৃত্যু২৭ নভেম্বর ২০০৮(2008-11-27) (বয়স ৭৭)
নতুন দিল্লি, দিল্লি, ভারত
রাজনৈতিক দলজনমোর্চা (১৯৮৭-১৯৮৮; ২০০৬-২০০৮)
অন্যান্য
রাজনৈতিক দল
ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস (১৯৮৭-র পূর্বে)
জনতা দল (১৯৮৮-২০০৬)
দাম্পত্য সঙ্গীসীতা কুমারী[১]
প্রাক্তন শিক্ষার্থীএলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়
পুনে বিশ্ববিদ্যালয়
স্বাক্ষর

বিশ্বনাথ প্রতাপ সিংহ (২৫ জুন ১৯৩১ – ২৭ নভেম্বর ২০০৮), ভি. পি. সিং নামে পরিচিত, তিনি ছিলেন ভারতীয় রাজনীতিবিদ যিনি ১৯৮৯ থেকে ১৯৯০ পর্যন্ত ভারতের অষ্টম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

তিনি এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয় এবং পুনে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিক্ষিত ছিলেন। ১৯৬৯ সালে তিনি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস দলে যোগ দিয়েছিলেন এবং উত্তরপ্রদেশ বিধানসভার সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৭১ সালে তিনি লোকসভায় সংসদ সদস্য হন। তিনি ১৯৭৬ থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত বাণিজ্যমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ১৯৮০ সালে তিনি উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হন এবং ফুলন দেবী গ্যাংয়ের লড়াইয়ের জন্য পরিচিত ছিলেন।

রাজীব গান্ধী মন্ত্রনালয়ে সিংকে অর্থমন্ত্রী এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রিসহ বিভিন্ন মন্ত্রিসভা পদ দেওয়া হয়েছিল। সিংহ ১৯৮৪ থেকে ১৯৮৭ সাল পর্যন্ত রাজ্যসভার নেতাও ছিলেন। প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার সময় বোফর্স কেলেঙ্কারী প্রকাশ পায় এবং সিং মন্ত্রিত্ব থেকে পদত্যাগ করেছেন। ১৯৮৮ সালে তিনি জনতা পার্টির বিভিন্ন দলকে একত্রিত করে জনতা দল দল গঠন করেন। ১৯৮৯ সালের নির্বাচনে, জাতীয় মোর্চা বিজেপির সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করে এবং সিং ভারতের ৮ তম প্রধানমন্ত্রী হন।

প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন তিনি ভারতের পশ্চাৎপদ জাতিদের জন্য মন্ডল কমিশন রিপোর্ট কার্যকর করেছিলেন, যা এই আইনটির বিরুদ্ধে বড় ধরনের প্রতিবাদের দিকে পরিচালিত করে। তিনি ১৯৮৯ সালে ষাট-দ্বিতীয় সংশোধনী এবং এসসি ও এসটি আইন প্রয়োগ করেছিলেন। তার মেয়াদে রুবাইয়া সৈয়দের অপহরণ ঘটেছিল এবং এই ভিত্তিতে সন্ত্রাসীদের মুক্তি দেওয়া হয়েছিল। সেখানে তার মেয়াদে ১৯৯০ সালে কাশ্মীর উপত্যকা থেকে কাশ্মীরি হিন্দুদের কুখ্যাত যাত্রা শুরু হয়েছিল। এরপরেই রিলায়েন্স গ্রুপের সাথে সিংহের ঝামেলা হয়।

১৯৯১ সালের নির্বাচনে সিংহ জাতীয় ফ্রন্টের প্রধানমন্ত্রীর প্রার্থী ছিলেন, তবে পরাজিত হন। ১৯৯১ সালে তিনি বাবরি মসজিদ ধ্বংসের বিরুদ্ধে বক্তব্য রেখেছিলেন। ১৯৯৬ সালের পরে সিং রাজনৈতিক পদ থেকে অবসর গ্রহণ করেন, তবে একজন সরকারী ব্যক্তিত্ব এবং রাজনৈতিক সমালোচক হিসাবে অবিরত রয়েছেন। ১৯৯৮ সালে তিনি অস্থি মজ্জা ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছিলেন এবং ২০০৩ সালে ক্যান্সারটি ক্ষমা না হওয়া পর্যন্ত প্রকাশ্য উপস্থিতি বন্ধ করেছিলেন। কিডনি অসুখে তিনি ২৭ নভেম্বর ২০০৮ সালে ৭৭ বছর বয়সে মারা যান এবং রাষ্ট্রীয় সম্মানে ভূষিত হন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Oct 11, Smriti Singh / TNN / Updated:; 2012; Ist, 00:36। "VP Singh's wife to get Rs 1 lakh for defamation | India News - Times of India"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-২৯ 

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]