বিষয়বস্তুতে চলুন

জনি ওয়ারডল: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

লিঙ্কের পরামর্শ: ৬টি লিঙ্ক যুক্ত করা হয়েছে।
(বানান সংশোধন)
(লিঙ্কের পরামর্শ: ৬টি লিঙ্ক যুক্ত করা হয়েছে।)
 
}}
 
'''জন হেনরি ওয়ারডল''' ({{lang-en|Johnny Wardle}}; জন্ম: ৮ জানুয়ারি, ১৯২৩ - মৃত্যু: ২৩ জুলাই, ১৯৮৫) ইয়র্কশায়ারের হ্যাটফিল্ড এলাকায় জন্মগ্রহণকারী যুদ্ধ পরবর্তীকালের বিখ্যাত ইংরেজ [[আন্তর্জাতিক ক্রিকেট]] তারকা ছিলেন।<ref name="Cap">{{বই উদ্ধৃতি |শিরোনাম=If The Cap Fits |শেষাংশ=Bateman |প্রথমাংশ=Colin |লেখক-সংযোগ= |coauthors= |বছর=1993 |প্রকাশক=Tony Williams Publications |অবস্থান= |আইএসবিএন=1-869833-21-X |পাতা= |পাতাসমূহ= 180–181 |ইউআরএল=https://archive.org/details/ifcapfits0000unse}}</ref> [[ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল|ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের]] অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৪৮ থেকে ১৯৫৭ সময়কালে ইংল্যান্ড দলের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।
 
ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে [[ইয়র্কশায়ার কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব|ইয়র্কশায়ার দলের]] প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ স্পিন বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, নিচেরসারিতে বামহাতে কার্যকর আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেছিলেন '''জনি ওয়ারডল'''।
ঘরোয়া [[প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট|প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে]] ইয়র্কশায়ার ও পরবর্তীতে কেমব্রিজশায়ারের পক্ষে খেলেছেন জনি ওয়ারডল। ১৯৪৬ সালে একটি মাত্র খেলার জন্য তাকে দলে রাখা হয়। ৪৩ বছর বয়সী আর্থার বুথের<!-- Arthur Booth (cricketer, born 1902) --> গড়ই কেবল তার চেয়ে শীর্ষে ছিল। কিন্তু, আর্থার বুথ অসুস্থ হয়ে পড়লে জনি ওয়ারডল তার স্থান দখলে তৎপর হন।
 
১৯৪৭ সালে শুষ্ক গ্রীষ্মের পরও [[গাবি অ্যালেন|গাবি অ্যালেনের]] নেতৃত্বাধীন [[মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাব|মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের]] সদস্যরূপে অনেকাংশে পরীক্ষামূলকভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের জন্য দলে রাখা হয় জনি ওয়ারডলকে। ঐ সফরে তিনি তেমন ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শন করতে পারেননি। কিন্তু পরের বছরের ভেজা গ্রীষ্মে তিনি নিজেকে মেলে ধরতে সচেষ্ট হন। ১৯৪৯ সালে আঘাতের কারণে এক-চতুর্থাংশ সময় মাঠের বাইরে অবস্থান করতে বাধ্য হন। ঐ গ্রীষ্মের বৃষ্টিবিঘ্নিত পিচে মারাত্মক হয়ে উঠেন। তার বোলিং ইয়র্কশায়ারকে শেষদিকে [[আনুষ্ঠানিক কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপ বিজয়ী দলের তালিকা|কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপার লড়াইয়ে]] নিয়ে আসে ও যৌথভাবে [[মিডলসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব|মিডলসেক্সের]] সাথে শিরোপা জয় করতে সমর্থ হয়।
 
১৯৫১ সালে স্পিন বোলারদ্বয় - [[জিম লেকার]] ও [[রয় ট্যাটারসল|রয় ট্যাটারসলের]] সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে টেস্ট দলে স্থান পাননি। তবে, অসুস্থতার শিকার [[বব এপলইয়ার্ড|বব এপলইয়ার্ডের]] অনুপস্থিতির কারণে পরবর্তী দুই মৌসুমে ২০,৭২৩ বল করতে হয়। কেবলমাত্র টিচ ফ্রিম্যান তার তুলনায় এগিয়ে ছিলেন।
১৯৫২ সালে ১১,০৮৪ বল করেন যা চতুর্থ সর্বোচ্চ ছিল। তন্মধ্যে, আগস্ট, ১৯৫২ সালে পরপর দুই খেলায় ১৬৫ ওভার বোলিং করতে হয়েছিল তাকে। ১৯৫৩ সালে ইয়র্কশায়ারের ভাগ্য অনুকূলে না থাকলেও ওল্ড ট্রাফোর্ডে বোলিং উপযোগী পিচে ৪/৭ লাভ করেন। ঐ বছরই তিনি উইজডেন কর্তৃক অন্যতম [[উইজডেন বর্ষসেরা ক্রিকেটার|বর্ষসেরা ক্রিকেটার]] হিসেবে মনোনীত হন।
 
১৯৫৪ সালে [[ফ্রেড ট্রুম্যান]] ও দলে ফিরে আসা অ্যাপলইয়ার্ডের সাথে খেলেন। ইয়র্কশায়ারও পুণঃসংগঠিত হয়। ওয়ারডল আবারও আক্রমণাত্মক স্পিনারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। এ পর্যায়ে [[সাসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব|সাসেক্সের]] বিপক্ষে ১৬ উইকেট দখল করেন।
 
== টেস্ট ক্রিকেট ==
১৯৫০ সালে নিজ দেশে প্রথমবারের মতো টেস্টে খেলার সুযোগ পান। [[সনি রামাদিন]] ও [[আল্ফ ভ্যালেন্টাইন|আল্ফ ভ্যালেন্টাইনের]] বেশ কিছু দূর্দান্ত ব্যাটিংয়ের কারণে তিনি কমই সফল হয়েছিলেন। তবে, [[বিল বোস]] ও হেডলি ভেরিটির তুলনায় তিনি ক্ষাণিকটা পিছিয়ে ছিলেন। তাসত্ত্বেও জনি ওয়ারডলের প্রচণ্ড পরিশ্রমের ফলাফল প্রথমবারের মতো চোখে পড়ে। ১৯৩৪ সালে [[টিচ ফ্রিম্যান|টিচ ফ্রিম্যানের]] পর অন্য যে-কোন বোলারের চেয়ে অধিক বোলিং করেন। ৭৪১টি মেইডেন লাভের মাধ্যমে তার দক্ষতা প্রকাশ পায়। ঐ মৌসুমে ১৭২ উইকেট পান যা তার খেলোয়াড়ী জীবনের সেরা মৌসুম ছিল।<ref name="Cric"/>
 
পুনরায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের জন্য দলের সদস্য হন। লেকার ও লকের সাথে বোলিংয়ে তিনি ম্রিয়মান ছিলেন। তাসত্ত্বেও, ৩৯ ও ৬৬ রানের দুইটি [[ইনিংস]] উপহার দেন জনি ওয়ারডল। রামাদিন ও ভ্যালেন্টাইনের বলগুলো স্বাচ্ছন্দ্যে মোকাবেলা করেন। পরের ইনিংসটিতে [[লেন হাটন|লেন হাটনের]] সাথে সপ্তম উইকেট জুটিতে ১০৫ রান তুলে ইংল্যান্ডকে জয় এনে দেন।
 
== অস্ট্রেলিয়া গমন, ১৯৫৪-৫৫ ==
পাকিস্তানের বিপক্ষে সুন্দর ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শনের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৫৪-৫৫ মৌসুমের শীতকালে লেন হাটনের নেতৃত্বাধীন এমসিসি দলের সাথে অস্ট্রেলিয়া সফর করেন। সিডনির বৃষ্টিতে আক্রান্ত পিচে ৫/৭৯ ও ৩/৫১ বাদের তেমন কিছু দেখাতে পারেননি তিনি।<ref name="Cric"/>
 
বামহাতি [[অফ ব্রেক]] ও গুগলি বোলিংয়ের কারণে পরবর্তী গ্রীষ্মে প্রায় ২০০ প্রথম-শ্রেণীর ও ১৫টি টেস্ট উইকেট লাভ করেন। ১৯৫৬-এর গ্রীষ্মে সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলার জন্য লককে অগ্রাধিকার দেয়া হয়। ফলে, ইয়র্কশায়ারের সদস্যরা বিরক্তি প্রকাশ করেন। কিন্তু, ওয়ারডল তার রিস্ট স্পিনে ঐ শীতে পিচ তেমন সহায়তা না পারলেও দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যানদেরকে হিমশিম খাওয়ান। কেপটাউনের নিউল্যান্ডস ক্রিকেট গ্রাউন্ডের দ্বিতীয় টেস্টে ৭/৩৬ নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৭২ রানে গুটিয়ে দেন। আঘাত থাকা স্বত্ত্বেও ২৬ উইকেট ঐ সিরিজে তুলে নেন। ১৯৫৬-৫৭ মৌসুমের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে মাত্র ১২ রান গড়ে ৯০টি প্রথম-শ্রেণীর উইকেট দখল করেন তিনি।<ref name="Cap"/>
 
১৯৫৭ সালটি জনি ওয়ারডলের জন্য প্রত্যাশার বিপরীত ছিল। তার বোলিংয়ে ধার অনেকাংশেই কমে যায় ও লর্ডস টেস্টে ব্যর্থ হলে লক এ সুযোগটি কাজে লাগান।
১৯৫৭ সালে জনি ওয়ারডল নিজস্ব আত্মজীবনীমূলক ‘হ্যাপি গো জনি’ শিরোনামীয় পুস্তক প্রকাশ করেন। ইয়র্কশায়ার ও এমসিসি কর্তৃপক্ষ উভয়েই জনি ওয়ারডলকে আজীবন সদস্য করার চেষ্টা চালিয়েছিলেন। ডনকাস্টারের কাছে থাকা কান্ট্রি ক্লাবের ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালন করেন।
 
ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত ছিলেন তিনি। এডনা ওয়ারডল নাম্নী এক রমণীর পাণিগ্রহণ করেন। ব্রেইন টিউমারে আক্রান্ত হবার পর অপারেশন করা হয়। তবে, আরোগ্য লাভ করেননি জনি ওয়ারডল। অতঃপর ২৩ জুলাই, ১৯৮৫ তারিখে ৬২ বছর বয়সে ইয়র্কশায়ারের হ্যাটফিল্ড এলাকায় তার দেহাবসান ঘটে। মৃত্যুর পর ১৯৮৮ সালে [[অ্যালেন হিল]] ‘জনি ওয়ারডল: ক্রিকেট কনজুরর’ শিরোনামে আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ প্রকাশ করেন।<ref>''Wisden'' 1989, p. 1248.</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==
৫৩৬টি

সম্পাদনা