বিষয়বস্তুতে চলুন

রামমোহন রায়: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎কর্ম-জীবন: সম্প্রসারণ
সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
(→‎কর্ম-জীবন: সম্প্রসারণ)
 
== কর্ম-জীবন ==
তরুণ বয়সে তিনি কলকাতায় মহাজনের কাজ করতেন। [[১৭৯৬]] সালে রামমোহন অর্থোপার্জন শুরু করেন। ১৮০৩ থেকে ১৮১৪ সাল পর্যন্ত [[ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি|ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির]] কর্মচারী ছিলেন। কলকাতায় প্রায়ই আসতেন এবং কোম্পানির নবাগত অসামরিক কর্মচারীদের সঙ্গে পরিচিত হয়ে তাদের নানা বিষয়ে সাহায্য করেন। এই সুযোগে ভালো করে [[ইংরেজি ভাষা|ইংরেজি]] শিখে নেন। [[ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি]]র কাজে সিভিলিয়ান কর্মচারীদের মধ্যে জন [[ডিগবি]] সাহেবের সঙ্গে তার সর্বাধিক ঘনিষ্ঠতা হয়। [[ব্রিটিশরংপুর|রংপুরের]] ইস্ট ইন্ডিয়াকালেকটর কোম্পানি|কোম্পানিরডিগবি সাহেব প্রথমে তাকে কেরানি হিসেবে অস্থায়ী নিয়োগ দেন। রংপুর সেরেস্তার পূর্বতন [[দেওয়ান]] কাজেগোলাম শাহ পদত্যাগ করলে তার স্থলে রামমোহনকে নিয়োগ করার জন্য ৫ ও ৩০ নভেম্বর ১৮০৯ খ্রিস্টাব্দ তারিখের দুটি পত্রে তাৎকালিক রেভিনিউ বোর্ডে সুপারিশপত্র লিখেছিলেন ডিগবি সাহেব। ঐ নিয়োগ ব্যাপারে রামমোহনের জামিনদার হয়েছিলেন বর্তমান [[ডিগবিলালমনিরহাট]] অধীনেসদর তিনিউপজেলার দেওয়ানরূপেকুলাঘাটের জমিদার [[রংপুর|রংপুরেমির্জা আব্বাস আলী]] কাজ(মির্জা করেনতকীর ছেলে) এবং রংপুরের জমিদার [[জয়রাম সেন]]। ১৮০৩ থেকে ১৮১৪ সাল পর্যন্ত।পর্যন্ত রামমোহন রংপুর সেরেস্তায় দেওয়ান পদে কাজ করেন। এই সময়ের মধ্যে তিনি দু'বার [[ভুটান]] সীমান্তে যান কোম্পানির হয়ে দৌত্যকার্যেদৌত্যকার্যে। ডিগবির সাহচর্যে তার সমস্ত নতুন চিন্তা এই সময়ের মধ্যেই পরিপক্কতা লাভ করে। ১৮১৫ খ্রিষ্টাব্দ থেকে রামমোহন [[কলকাতা]]র স্থায়ী বাসিন্দা হন, এখন থেকেই প্রকাশ্যে তার সংস্কার-প্রচেষ্টার শুরু।
 
সে সময় রংপুর জেলা সদরের অফিস-আদালত ছিল [[মাহিগঞ্জ|মাহিগঞ্জে]]। মাহিগঞ্জের [[তামফাট|তামফাটে]] নিজ গৃহে সন্ধ্যাবেলা ধর্মবিষয়ক আলোচনার জন্য ১৮১২ সালের দিকে তিনি একটি সভা গড়ে তুলেছিলেন। এ সভায় আসতেন তন্ত্রশাস্ত্রবিদ [[হরিহরানন্দ তীর্থস্বামী]] তথা নন্দকুমার বিদ্যালঙ্কার (১৭৬২ - ১৮৩২), তদীয় ছোটভাই অভিধানকার ও স্মৃতিশাস্ত্রবিদ [[রামচন্দ্র বিদ্যাবাগীশ]] (রংপুরে রামমোহনের প্রধান সহযোগী : ১৭৮৬ - ১৮৪৫) এবং আরো অনেক পণ্ডিত মানুষ। মাহিগঞ্জ তথা রংপুরের জৈন সম্প্রদায়ের অনেকেই এ সভার সদস্য ছিলেন।<ref>রামমোহন ও রংপুর প্রসঙ্গ, সমর পাল, ১৯৯৩, ঢাকা।</ref>
 
১৮১৫ খ্রিষ্টাব্দ থেকে রামমোহন [[কলকাতা]]র স্থায়ী বাসিন্দা হন, এখন থেকেই প্রকাশ্যে তার সংস্কার-প্রচেষ্টার শুরু।
 
তার প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ [[ফারসি ভাষা|ফারসি ভাষায়]] লেখা (ভূমিকা অংশ আরবিতে) ''তুহফাতুল মুহাহহিদিন''। বইটিতে একেশ্বরবাদের সমর্থন আছে। এরপর [[একেশ্বরবাদ]] (বা [[ব্রাহ্মবাদ]]) প্রতিষ্ঠা করার জন্য বেদান্ত-সূত্র ও তার সমর্থক [[উপনিষদ]]গুলি বাংলার অনুবাদ করে প্রচার করতে থাকেন। ১৮১৫ থেকে ১৮১৯ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে প্রকাশিত হয় ''বেদান্তগ্রন্থ'', ''বেদান্তসার'', ''কেনোপনিষদ'', ''ঈশোপনিষদ'', ''কঠোপনিষদ'', ''মাণ্ডূক্যোপনিষদ'' ও ''মুণ্ডকোপনিষদ''। রক্ষণশীল ব্যক্তিরা ক্রুদ্ধ হয়ে তার লেখার প্রতিবাদ দেখাতে লাগলেন। এই সব প্রতিবাদ কটূক্তিপূর্ণ এবং বিদ্বেষ ভাবাপন্ন। রামমোহনও প্রতিবাদের প্রতিবাদ করলেন যুক্তি দিয়ে ও ভদ্রভাষায়। প্রতিবাদ-কর্তারা অবিলম্বে থেমে গিয়েছিলেন। প্রতিবাদ-কর্তাদের মধ্যে প্রথম ও প্রধান ছিলেন [[মৃত্যুঞ্জয় বিদ্যালঙ্কার]], এঁর গ্রন্থের নাম 'বেদান্তচন্দ্রিকা'। বেদান্তচন্দ্রিকা'র প্রতিবাদে রামমোহন ''ভট্টাচার্যের সহিত বিচার'' লিখে প্রতিবাদীদের মুখ বন্ধ করে দিয়েছিলেন। 'বেদান্ত গ্রন্থ' প্রকাশের সঙ্গে তিনি ব্রহ্মনিষ্ঠ একেশ্বর উপাসনার পথ দেখালেন [[আত্মীয় সভা]] প্রতিষ্ঠা করে। এই [[আত্মীয় সভা]]কেই পরে তিনি [[ব্রাহ্মসমাজ]] নাম ও রূপ দেন। সাহেবদের বাংলা শেখানোর জন্য তিনি বাংলা ও ইংরেজিতে ব্যাকরণ রচনা করেন। <ref>দেবপ্রসাদ বন্দ্যোপাধ্যায় [http://ssrn.com/abstract=2403686 রামমোহনের গৌড়ীয় ব্যাকরণ Rammohan Roy's Goudiya/Bangla Grammar].</ref>