বিষয়বস্তুতে চলুন

ওয়াই-ফাই: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎প্রাঙ্গণ-বিস্তৃত ওয়াই ফাই: প্রাঙ্গণ-বিস্তৃত ওয়াই ফাই এর বিস্তারিত এবং এর ব্যবহারের রাখার নিয়ম কানুন
(→‎প্রাঙ্গণ-বিস্তৃত ওয়াই ফাই: প্রাঙ্গণ-বিস্তৃত ওয়াই ফাই এর বিস্তারিত এবং এর ব্যবহারের রাখার নিয়ম কানুন)
ট্যাগ: পুনর্বহালকৃত মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
১৯৯৪ সালে যখন ওয়াই ফাই ব্রান্ডিং শুরু হয় নি তখন [[কার্নেগি মেলন বিশ্ববিদ্যালয়]] তাদের পিটসবার্গ প্রাঙ্গণে তারহীন ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করে। <ref>[http://www.cmu.edu/homepage/computing/2009/summer/wi-fi-origins.shtml ওয়াই ফাই এর যাত্রা ]</ref> অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রাঙ্গণ
ওয়াই ফাই সুবিধা দিয়ে থাকে। [[ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়|ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের]] [[ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র]] বা টি এস সি তে বিনামূল্যে ওয়াই ফাই সুবিধা দেয়া হয়।
ওয়াই ফাই হচ্ছে [[আইপিভি৪|আইপিভি৪]] এবং [[আইপিভি৬|আইপিভি৬]] ভিত্তিক তারবিহীন ইন্টারনেট ব্যবস্থা। আইপিভি৬ কে বলা হয় যেকোনো ডিভাইস এর [[ম্যাক_ঠিকানা | ম্যাক ঠিকানা]] । এই ঠিকানার মাধ্যমে ওয়াইফাই পুরো ইন্টারনেট বিশ্বের সাথে যুক্ত হয়। ওয়াইফাই তরঙ্গ ভিত্তিক ইলেকট্রনিক ডিভাইস হওয়ায় প্রাঙ্গণ-বিস্তৃত ওয়াই ফাই ব্যবহারের সময় এর গতি কমে যেতে পারে। তাই ওয়াইফাই এর গতি ঠিক রাখতে ওয়াই ফাই যন্ত্রের পরিচর্যা নিতে হবে। সেই সাথে ভালো মানের ওয়াইফাই স্পিডের এর জন্য একটি ভালো মানের [[রাউটার | রাউটার]] অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি
|ইউআরএল=https://www.techpriyo.com/5-tips-to-increase-wifi-speed
|শিরোনাম=ওয়াইফাই স্পিড বাড়ানোর উপায়
|কর্ম=SharifUlAlom22
|তারিখ= এপ্রিল ২৬, ২০২১
|সংগ্রহের-তারিখ= সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২১
}}</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==
১০টি

সম্পাদনা