বিষয়বস্তুতে চলুন

জিনা লল্লোব্রিজিদা: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

প্রারম্ভিক জীবন
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
(প্রারম্ভিক জীবন)
 
চলচ্চিত্র কর্মজীবনের পড়তিকালীন তিনি আলোকচিত্র সাংবাদিক ও ভাস্কর হিসেবে তার দ্বিতীয় কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৭০-এর দশকে তিনি [[ফিদেল কাস্ত্রো]]র সাক্ষাৎকার গ্রহণের সুযোগ পান। তিনি ইতালীয় ও ইতালীয় মার্কিন বিভিন্ন সমস্যায় সক্রিয় কর্মী হিসেবে, বিশেষ করে ন্যাশনাল ইতালিয়ান আমেরিকান ফাউন্ডেশনের হয়ে, কাজ করেন। ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক আয়োজনে তাকে এনআইএএফ আজীবন সম্মাননা পুরস্কার প্রদান করা হয়।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Legendary Actress Gina Lollobrigida To be Honored at Largest Italian-American Gala in Nation’s Capital {{!}} The National Italian American Foundation|ইউআরএল=http://www.niaf.org/niaf_event/legendary-actress-gina-lollobrigida-to-be-honored-at-largest-italian-american-gala-in-nations-capital/|ওয়েবসাইট=এনআইএএফ|সংগ্রহের-তারিখ=৪ জুলাই ২০১৮|ভাষা=en-US}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|শেষাংশ1=ডোনাডিও|প্রথমাংশ1=রেচেল|শিরোনাম=The Lifetime Honors Arrive for Gina Lollobrigida; Meanwhile, the Life Goes On|ইউআরএল=https://www.nytimes.com/2008/10/26/movies/26dona.html|সংগ্রহের-তারিখ=৪ জুলাই ২০১৮|কর্ম=[[দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস]]|তারিখ=২৪ অক্টোবর ২০০৮|ভাষা=en}}</ref>
 
==প্রারম্ভিক জীবন==
লুইজিয়া লল্লোব্রিজিদা ১৯২৭ সালের ৪ঠা জুলাই [[ইতালি]]র সুবিয়াকো শহরের জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা একজন আসবাবপত্র প্রস্তুতকারক ছিলেন। তার তিন বোন ছিল, তারা হলেন জুলিয়ানা (জ. ১৯২৪), মারিয়া (জ. ১৯২৯) ও ফেরনান্দা (১৯৩০-২০১১)। তরুণ বয়সে লল্লোব্রিজিদা মডেলিং করতেন এবং কয়েকটি সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। এই সময়ে তিনি কয়েকটি ইতালীয় চলচ্চিত্র ছোট চরিত্রে অভিনয় করেন।
 
১৯৪৫ সালে ১৮ বছর বয়সে তিনি মন্তে কাস্তেল্লো দি ভিবিওর তিয়াত্রো দেল্লা কনকর্দিয়ায় এদুয়ার্দো স্কারপেত্তার ''সান্তারেল্লিনা'' নাটকে অভিনয় করেন।
 
১৯৪৭ সালে লল্লোব্রিজিদা মিস ইতালিয়া সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে তৃতীয় স্থান অধিকার করেন, যার ফলে তিনি জাতীয় পরিসরে পরিচিতি অর্জন করেন।
 
==তথ্যসূত্র==