বিষয়বস্তুতে চলুন

"মামলুক আলী নানুতুবি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
| birth_date = ১৭৮৯
| birth_place = [[নানুতুয়া]], [[মুগল সাম্রাজ্য]]
| death_date = {{deathমৃত্যু dateতারিখ and ageবয়স|df=y|১৮৫১|১০|০৭|১৭৮৯}}
| image = Grave of Mamluk Ali Nanautawi.jpg
| caption = মামলুক আলীর সমাধি
 
== নাম এবং বংশ ==
তার নাম মামলুক আল-আলী বা মামলুক আলী। তার ''নসব'' হল, মামলুক আলী ইবনে আহমদ আলী ইবনে গোলাম শরাফ ইবনে আবদুল্লাহ ইবনে আবদ ফাতাহ ইবনে মুহাম্মদ মুঈন ইবনে আবদ সামি ইবনে মুহাম্মদ হাশিম ইবনে শাহ মুহাম্মদ ইবনে কাজী তাহা ইবনে মোবারক ইবনে আমানউল্লাহ ইবনে জামালউদ্দীন ইবনে কাজী মীরান ইবনে মাজহারউদ্দিন ইবনে নাজমুদ্দীন সানী ইবনে নূরউদ্দীন রাব্বি ইবনে কিয়ামউদ্দিন ইবনে জিয়াউদ্দিন ইবনে নূরুদ্দীন সালিস ইবনে নাজমুদ্দীন ইবনে নূরউদ্দিন সানী ইবনে রুকনউদ্দিন ইবনে রাফি-উদ্দিন ইবনে বাহাউদ্দিন ইবনে শিহাবুদ্দীন ইবনে খাজা ইউসুফ ইবনে খলিল ইবনে সদ্দুদ্দীন ইবনে নূরউদ্দিন ইবনে সদরউদ্দীন আল-হাজ ইবনে ইসমাইল শহীদ ইবনে নূরউদ্দীন কিতাল ইবনে মাহমুদ ইবনে বাহাউদ্দিন ইবনে আবদুল্লাহ ইবনে জাকারিয়া ইবনে নূর ইবনে সিরাহ ইবনে শাদি আস-সিদ্দিকী ইবনে ওয়াহেদউদ্দীন ইবনে মাসউদ ইবনে আবদুর রাজ্জাক ইবনে কাসিম ইবনে কাসিম ইবনে [[মুহাম্মাদ ইবনে আবি বকর|মুহাম্মদ]] ইবনে [[আবু বকর]]।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=সাওয়ানেহ উলামা-এ-দেওবান্দ|শেষাংশ=অধ্যাপক নূর আল-হাসান শেরকোটি|প্রকাশক=নওয়াজ পাবলিকেশনস|পাতাসমূহ=৯০-২১৪|ভাষা=Ur|অধ্যায়=হযরত মাওলানা মুহাম্মাদ ইয়াকুব নানুতুবি|সংস্করণ=জানুয়ারি ২০০০}}</ref>
 
== জন্ম ও শিক্ষা ==
 
== কর্মজীবন ==
পড়াশোনা শেষ করে মামলুক আলী দিল্লিতে শিক্ষকতা শুরু করেন।<ref name="qāsim">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Hadhrat Moulana Muhammad Qaasim Nanotwi: A Glimpse Into His Life |অনূদিত-শিরোনাম=হযরত মওলানা মুহাম্মদ কাসিম নানুতুবি: তাঁর জীবনের এক ঝলক |ভাষা=en |পাতাসমূহ=৩৭|সংস্করণ=১ম, জানুয়ারি ২০২০}}</ref> ১৮২৫ সালের জুনে, তিনি জাকির হুসেইন দিল্লি কলেজে আরবি বিভাগের প্রভাষক পদে নিযুক্ত হন এবং ১৮৪১ সালের ৮ নভেম্বর প্রধান শিক্ষকের পদে পদোন্নতি পান।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=সাওয়ানেহ উলামা-এ-দেওবান্দ|পাতাসমূহ=১৩৬-১৩৭|ভাষা=Ur|সংস্করণ=জানুয়ারি ২০০০}}</ref> তিনি সারা জীবন এই কলেজের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। যৌক্তিক বিজ্ঞান, আরবি ভাষা, [[ফিকহ|ফিকহ সম্পর্কিত]] বই পড়ানোর পাশাপাশি তিনি ''[[কুতুব আল-সিত্তাহ|সিহাহ সিত্তার]]'' বইও পড়াতেন।
 
আসির আদ্রবির মতে, নানুতুবি তাঁর কর্মজীবনের পুরো সময় দিল্লিতে শিক্ষাদানে কাটিয়েছিলেন। উক্ত যুগের জ্ঞাত পণ্ডিতগণ তাঁর সাথে অধ্যয়ন করেছিলেন বলে জানা যায়।<ref name="asir">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=তাজকিরাহ মাশহির-ই হিন্দ: কারওয়ান-ই-রাফতা|শেষাংশ=[[আসির আদ্রাভি]]|প্রকাশক=দারুল মোল্লাফীন|পাতা=২৪৬|ভাষা=Ur|সংস্করণ=২য়, এপ্রিল ২০১৬}}</ref>
 
== ছাত্র ==
তার উল্লেখযোগ্য শিক্ষার্থীদের মধ্যে রয়েছে:<ref name="mamluk">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=তারীখ দারুল উলূম দেওবন্দ|শেষাংশ=রিজভি|প্রথমাংশ=সৈয়দ মেহবুব|প্রকাশক=[[দারুল উলূম দেওবন্দ]]|পাতাসমূহ=৭৩-৭৫|সংস্করণ=১৯৮০}}</ref><ref>{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Hadhrat Moulana Muhammad Qaasim Nanotwi: A Glimpse Into His Life |অনূদিত-শিরোনাম=হযরত মওলানা মুহাম্মদ কাসিম নানুতুবি: তাঁর জীবনের এক ঝলক |ভাষা=en |পাতাসমূহ=৪, ৩৯|সংস্করণ=১ম, জানুয়ারি ২০২০}}</ref><ref name="students">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=সাওয়ানেহ উলামা-এ-দেওবান্দ|পাতাসমূহ=১৪৯|ভাষা=Ur|সংস্করণ=জানুয়ারি ২০০০}}</ref>
 
* [[মুহাম্মদ কাসেম নানুতুবি]], [[দারুল উলুম দেওবন্দ|দারুল উলুম দেওবন্দের]] প্রতিষ্ঠাতা
 
== মৃত্যু এবং উত্তরাধিকার ==
নানুতুবি ১৮৫১ সালের ৭ অক্টোবর জন্ডিসের কারণে মারা যান এবং [[শাহ ওয়ালিউল্লাহ দেহলভী]]র কবরস্থানের নিকটে [[নতুন দিল্লি|নয়াদিল্লির]] মুন্হাদিয়ানে তাকে দাফন করা হয়।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=সাওয়ানেহ উলামা-এ-দেওবান্দ|পাতাসমূহ=১৫০|ভাষা=Ur|সংস্করণ=জানুয়ারি ২০০০}}</ref><ref>{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Hadhrat Moulana Muhammad Qaasim Nanotwi: A Glimpse Into His Life |অনূদিত-শিরোনাম=হযরত মওলানা মুহাম্মদ কাসিম নানুতুবি: তাঁর জীবনের এক ঝলক |ভাষা=en |পাতাসমূহ=৪০|সংস্করণ=১ম, জানুয়ারি ২০২০}}</ref>
 
তাঁর পুত্র [[মুহাম্মদ ইয়াকুব নানুতুবি]] [[দারুল উলুম দেওবন্দ|দারুল উলুম দেওবন্দের]] প্রথম অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেছিলেন।<ref name="mahbub">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=তারীখ দারুল উলূম দেওবন্দ|শেষাংশ=রিজভি|প্রথমাংশ=সৈয়দ মেহবুব|প্রকাশক=[[দারুল উলুম দেওবন্দ]]|পাতাসমূহ=১২৬|সংস্করণ=১৯৮১}}</ref> মামুলুক আলীর কাছে দারুল উলুম দেওবন্দের প্রতিষ্ঠাতা [[মুহাম্মদ কাসেম নানুতুবি]] তাঁর বেশিরভাগ বই পড়াশোনা করেছিলেন।<ref name="a1">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=মাওলানা মুহাম্মদ কাসিম নানুতুবি: হায়াত অর কার্নামে|শেষাংশ=[[আসির আদ্রাভি]]|প্রকাশক=শায়খুল হিন্দ একাডেমি|পাতা=৫৯|ভাষা=Ur|সংস্করণ=২০১৫}}</ref> ''[[সুনানে আবু দাউদ|সুনানে আবু দাউদের]]'' ১৮ খণ্ডের ভাষ্য ''বাদলুল মাজহুদের'' লেখক [[খলিল আহমদ সাহারানপুরী]] ছিলেন নানুতুবির নাতি।<ref name="mashaikh">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=তারীখ-ই মাশীখ-ই চিশত|শেষাংশ=মুহাম্মদ জাকারিয়া কান্ধলভী|ভাষা=En|অধ্যায়=হযরত আকদাস মাওলানা আল-হাজ্জ খলিল আহমদ}}</ref>
 
আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ আহমদ খান তাকে এই বলে প্রশংসা করেছিলেন, {{উক্তি|মামলুক আলী যে স্মরণশক্তি ধারণ করেতেন তা এতটাই গভীর ছিল যে যদি কারণবশত জ্ঞানের পুরো গ্রন্থাগারটি নষ্ট হয়ে যায় তবে মাওলানা তাঁর স্মৃতির কোষের সিন্দুর থেকে আবার এটি লিখে ফেলতেন।<ref>{{citeবই bookউদ্ধৃতি |titleশিরোনাম=Hadhrat Moulana Muhammad Qaasim Nanotwi: A Glimpse Into His Life |অনূদিত-শিরোনাম=হযরত মওলানা মুহাম্মদ কাসিম নানুতুবি: তাঁর জীবনের এক ঝলক |ভাষা=en |pagesপাতাসমূহ=৩৮ |editionসংস্করণ=১ম, জানুয়ারি ২০২০}}</ref>}}
 
== টীকা ==
১,৮৬,১২৭টি

সম্পাদনা