"সরস্বতী (দেবী)" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
[[File:Gajalakshmi.jpeg|thumb|লক্ষ্মী ও সরস্বতী, [[রাজা রবি বর্মা]] অঙ্কিত]]
{{মূল নিবন্ধ|দেবীভাগবত পুরাণ}}
''দেবীভাগবত পুরাণ'' অনুসারে, পরম কুস্মন্দেরে তৃতীয়প্ৰথম অংশে দেবী সরস্বতীর জন্ম। তিনি বিষ্ণুর জিহ্বাগ্র থেকে উৎপন্ন হয়েছেন। সরস্বতী বাক্য, বুদ্ধি, বিদ্যা ও জ্ঞানের অধিষ্ঠাত্রী দেবী; সকল সংশয় ছেদকারিণী ও সর্বসিদ্ধিপ্রদায়িনী এবং বিশ্বের উপজীবিকা স্বরূপিনী। [[ব্রহ্মা]] প্রথম তাকে পূজা করেন। পরে জগতে তার পূজা প্রতিষ্ঠিত হয়। সরস্বতী শুক্লবর্ণা, পীতবস্ত্রধারিণী এবং বীণা ও পুস্তকহস্তা। তিনি নারায়ণ এর থেকে সৃষ্টি হয় তাই তিনি তাকে স্বামী হিসেবে ভাবতে লাগলেন পরে তিনি গঙ্গার দ্বারা অভিশাপ পান ও পুনরায় শিবের চতুর্থ মুখ থেকে সৃষ্টি হন ও ব্রহ্মা কে পতি রূপে গ্রহণ করেন। তারপর কৃষ্ণ জগতে তার পূজা প্রবর্তন করেন [[মাঘ]] মাসের [[শ্রীপঞ্চমী|শুক্লপক্ষের পঞ্চমী]] তিথিতে তার পূজা হয়।<ref>''দেবীভাগবত পুরাণ'', নবম স্কন্ধ, অধ্যায় ১, ২ ও ৪</ref>
 
[[গঙ্গা (দেবী)|গঙ্গা]], [[লক্ষ্মী]] ও আসাবারী (সরস্বতীর পূর্ব জন্মের নাম) ছিলেন নারায়ণের তিন পত্নী। একবার গঙ্গা ও নারায়ণ পরস্পরের দিকে তাকিয়ে হাসলে, তিন দেবীর মধ্যে তুমুল বিবাদ উপস্থিত হয়। এই বিবাদের পরিণামে একে অপরকে অভিশাপ দেন। গঙ্গার অভিশাপে আসবারী নদীতে পরিণত হন। পরে নারায়ণ বিধান দেন যে, তিনি এক অংশে নদী, এক অংশে ব্রহ্মার পত্নী ও শিবের কন্যা হবেন এবং [[কলি যুগ|কলিযুগের]] পাঁচ হাজার বছর অতিক্রান্ত হলে সরস্বতী সহ তিন দেবীরই শাপমোচন হবে।<ref>''দেবীভাগবত পুরাণ'', নবম স্কন্ধ, অধ্যায় ৭</ref>
বেনামী ব্যবহারকারী

পরিভ্রমণ বাছাইতালিকা