বিষয়বস্তুতে চলুন

ভাষা শহীদ আবদুস সালাম গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘর: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
 
==বর্ণনা==
১৯২৫ সালে শহীদ আব্দুস সালাম ১৯২৫ সালে দাগনভূঁঞা উপজেলার মাতুভূঞা ইউনিয়নের লক্ষণপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তারসালামের পিতা ফজিল মিয়া ১৯৫২ সালে ঢাকায় তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের শিল্প বিভাগে পিয়নেরপিয়ন পদে চাকরি করতেন। ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের সময়ে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজের পাশে নীলক্ষেত ব্যারাকের ৩৬বি নং কোয়ার্টারে বসবাস করতেন। পূর্ববঙ্গে মাতৃভাষা বাংলার রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবিতে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হোস্টেলের সম্মুখে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে বিক্ষোভবিক্ষোভে প্রদর্শনকালেপুলিশ গুলি চালায়। সালাম পুলিশের গুলিতে আহত হন। তিনি দেড় মাস ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন থাকার পরছিলেন। ১৯৫২ সালের ০৭ এপ্রিল সালাম মৃত্যুবরণ করেন। বাংলাদেশ সরকার ২০০০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তাঁকেসালামকে মরণোত্তর একুশে পদকে ভূষিত করা হয়।করে।
 
ভাষা শহীদ আবদুস সালাম গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘরটি ফেনী শহর বা ফেনীর মহিপাল মোড় থেকে ৮ কিলোমিটার দূরে ফেনী-নোয়াখালী সড়কের ডান পাশে মাতুভূঞা ব্রিজের কাছে সালামনগরে আবস্থিতআবস্থিত।
 
ভাষা শহীদ আবদুস সালাম গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘরটি ফেনী শহর বা ফেনীর মহিপাল মোড় থেকে ৮ কিলোমিটার দূরে ফেনী-নোয়াখালী সড়কের ডান পাশে মাতুভূঞা ব্রিজের কাছে সালামনগরে আবস্থিত
==তথ্যসূত্র ==
{{সূত্র তালিকা}}
৩০,৬৪৫টি

সম্পাদনা