বিষয়বস্তুতে চলুন

বিভাস রায়চৌধুরী: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(অনুবাদ)
 
সম্পাদনা সারাংশ নেই
রায়চৌধুরী ১৯৬৮ সালের ১লা আগস্ট ভারতের [[পশ্চিমবঙ্গ|পশ্চিমবঙ্গের]] [[উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলা|উত্তর চব্বিশ পরগণা]] জেলার সীমান্ত শহর [[বনগাঁ]]র বিহুতিপল্লীতে একটি শরণার্থী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তাঁর বাবা-মা শ্যামদুলাল রায় চৌধুরী এবং বিথিকা রায় চৌধুরী ছিলেন মূলত [[বাংলাদেশ|বাংলাদেশের]] মানুষ। [[বঙ্গভঙ্গ (১৯৪৭)|বঙ্গভঙ্গের]] পর, অবিভক্ত বাংলাদেশে ধনী পরিবার হয়েও, তাঁরা ঘরছাড়া ও নিঃস্ব হয়ে পড়েছিলেন, এবং পূর্ণ-সময়ের শ্রমিক হয়ে বনগাঁতে বসবাস করতে থাকেন। রায়চৌধুরী [[বনগাঁ উচ্চ বিদ্যালয়]], এবং [[গোবরডাঙ্গা হিন্দু কলেজ|গোবরডাঙ্গা হিন্দু কলেজে]] পড়াশুনো করেন। স্নাতক হবার পরে, চরম দারিদ্র্যের কারণে তিনি তাঁর উচ্চশিক্ষা চালিয়ে যেতে পারেননি। শৈশবকাল থেকেই তিনি সংগীত, নাটক এবং কবিতায় গভীরভাবে আগ্রহী ছিলেন। তিনি গোবরডাঙা হিন্দু কলেজের বাংলা সাহিত্যের একজন শিক্ষক ঊষাপ্রসন্ন মুখোপাধ্যায়ের কাছ থেকে এবং কবি শুভঙ্কর পাত্রের কাছ থেকে কবিতা শিখেছিলেন। পরে [[বিনয় মজুমদার]] তাঁর পরামর্শদাতা ছিলেন।[[File:Roy Chowdhury in North Bengal 2018.jpg|thumb|বিভাস রায়চৌধুরী ২০১৮ সালে উত্তরবঙ্গে]]
 
==পেশাগত জীবন==
 
১৯৮০-এর দশকে রায়চৌধুরীর কবিতা নিয়মিতভাবে ''দৈনিক'' ''বসুমতী'', ''কৃত্তিবাস'', ''কবিসম্মেলন'' এবং [[দেশ (পত্রিকা)|''দেশের'']] মতো বেশ কয়েকটি বাংলা সাহিত্যে প্রকাশিত হত।<ref name="Desh Magazine">{{cite web|last1=Desh|first1=Magazine|title=Desh Mgazine|url=https://www.magzter.com/IN/ABP_Pvt_Ltd/Desh/Culture/|website=ABP|accessdate=26 March 2018}}</ref> তাঁর প্রথম কবিতা সংগ্রহ, ''নষ্ট প্রজন্মের ভাষণ'', ১৯৯৬ সালে কলকাতা বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছিল। তিনি ''উদ্বস্তু শিবিরের পাখি'' (১৯৯৬), ''শিমুল ভাষা, পলাশ ভাষা'' (১৯৯৯), ''জীবনান্দের মেয়ে'' (২০০২), ''চণ্ডালিকা গাছ'' (২০০৬), ''অনন্ত আশ্রম'' (২০১৫) ইত্যাদি অনেক কবিতার বই প্রকাশ করেছেন। তাঁর উপন্যাস ''অশ্রূধারা'' প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল ২০০২ সালের ৪ নভেম্বর দেশ পত্রিকায়। তাঁর কবিতাগুলি কবি [[নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী]] সম্পাদিত হীরক খন্ডের মতো বইতে সংকলিত হয়েছে।<ref name="anthology">{{cite book|last1=Chakraborty|first1=Nirendranath|title=Hirak Sangraha|publisher=Ananda|location=Kolkata|isbn=978-93-5040-829-2|page=137|edition=first}}</ref>[[File:Bibhas roy chowdhury and shakti chattapadhyay.jpg|thumb|Bibhas Roy Chowdhury with [[Shakti Chattopadhyay]]]]
 
==লিখন শৈলী==
 
রায়চৌধুরী বলিষ্ঠ ভাষায় জীবন থেকে লেখেন, তিনি ছন্দোময় এবং গদ্যকবিতা উভয় মাধ্যমেই সিদ্ধহস্ত। তাঁর কবিতায়, তিনি প্রায়শই জীবনের আনন্দ এবং দুঃখ অন্বেষণ করেন, যার মধ্যে থাকে [[বঙ্গভঙ্গ (১৯৪৭)|বঙ্গভঙ্গের]] পরিণতি, শরণার্থী-জীবনের সংগ্রাম, মাতৃভাষার জন্য ভালবাসা এবং তাঁর নিজের মানুষের কষ্ট। তাঁর সাম্প্রতিক কবিতার বই, ''যশোর রোডের গাছ'' ([[যশোর (শহর)|যশোরের]] রাস্তার উভয় পাশের গাছগুলি), স্বার্থপরতা ও লোভের কারণে গাছের পতন, দূষণ এবং ধ্বংসের বর্ণনা দেয়। তিনি 'সাধারণ মানুষের ভাষা' ব্যবহার করেন তবে তাঁর রূপকগুলি পাঠকদের উপর এক গা ছমছমে প্রভাব ফেলে।<ref name="eminant Bengali poet praises Roy Chowdhury">{{cite book |last1=Goswami |first1=Joy |title=Gonsaibagan,Vol.2 |publisher=Prativas |location=Kolkata |pages=see page–193 }}</ref> তিনি মধ্যযুগীয় বাংলা সাহিত্যে জনপ্রিয় একটি একটি ছন্দোবদ্ধ ধরণ, পয়ার ছন্দ সহ সকল ধরণের কাব্যিক আকারে লেখেন। তাঁর কাব্যিক যাত্রার প্রথম দিকে তিনি [[জয় গোস্বামী]], শ্যামল কান্তি দাস, মৃদুল দাশগুপ্ত এবং নির্মল হালদার প্রভৃতি ১৯৭০ এর প্রখ্যাত বাঙালি কবি দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন।<ref name="Interview in Epilogue by Kiririti Sengupta">{{cite book|last1=Roychowdhury|first1=Bibhas|title=Poem Continuous:Reincarnated Expression|publisher=Inner Child Press Lmt.|location=New Jersey,U.S.A|page=see -68}}</ref> [[File:At international poetry day.jpg|thumb|Roychowdhury (extreme right) at Jibananda Sabhaghar, Kolkata on International Poetry Day]] [[File:IMG 20180210 181345 HDR.jpg|thumb|Roychowdhury reading at [[Kolkata Book Fair]] 2018]]
 
==তথ্যসূত্র==