বিষয়বস্তুতে চলুন

তিতাস একটি নদীর নাম (চলচ্চিত্র): সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(সংশোধন)
 
== কাহিনী সংক্ষেপ ==
কিশোরী বাসন্তী (কবরী) বিয়ের বয়স হতে থাকে। বড় হতে থাকে । সে তিতাস পাড়ে অপেক্ষায় থাকে খেলার সাথী কিশোর চন্দ্র আর সুবলের জন্য। ওদিকে কিশোর আর বন্ধু সুবল এক সময় বড় হয়ে দূর নদীতে জাল বাইতে যায়। তিতাস পাড়ের গ্রামে মালোদের দোল এর সময় এক ঝামেলায় সহযোগিতার জন্য ওরা মারামরিতে জড়িয়ে পড়ে। এতে মোড়লদের ঘরের এক মেয়ে রাজারঝি অজ্ঞান হয়ে যায়। এক আক্রমণকারী রাজারঝিকে আক্রমণ করলে কিশোর তাকে রক্ষা করে। এতে মোড়ল খুশি হয়ে রাজারঝির সাথে সাহসী কিশোরের বিয়ে দেয়। যে দিন বউকে নিজ গাঁয়ে নিয়ে যাবে, রাতে ডাকাতেরা নতুন বউকে চুরির চেষ্টা করে। নতুন বউ পানিতে ঝাপ দিয়ে নিজেকে রক্ষা করে। কিন্তু কিশোর রাতের আঁধারে তা দেখতে পায় না। এই ঘটনায় কিশোর পাগল হয়ে যায়। আর নতুন বউ নদীতে ভেসে যায়।
 
সদ্যবিবাহিত বঊ হারিয়ে কিশোর ( প্রবীর মিত্র) পাগল হয়ে যায়। পরবর্তীতে তার বঊ বেঁচে গর্ভের সন্তান সমেত তার গ্রামে ফিরে আসে। কিন্তু কিশোর তাকে চিনতে পারে না। দশ বছর পরে ছেলে অনন্ত সহ ফিরে আসা রাজারঝি আপন পরিচয় গোপন করে, যাতে ডাকাতের হাত থেকে ফিরে আসা বঊকে কেউ ক্ষতির কারণ না মনে করে।
 
রাজারঝির অন্ন বস্ত্রাদির অভাবে পাশে এসে দাঁড়ায় বাসন্তি। সইয়ের ছেলেকে আপন করে বড় করতে থাকে। আর চোখের সামনে থাকা পাগলের কর্ম দেখে রাজারঝি তাকে পিঠা বানিয়ে খাওয়ায়। পাগল তবুও তার নিজ ঘরণীকে চিনতে পারে না। এমন করে একসময় পাগল তাকে চিনতে পারে। কিন্তু ঠিক তার পরেই তাকে তার স্ত্রীকে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করতে হয়। ছেলে অনন্ত বনে বাদাড়ে ঘুরে বেড়ায়। মায়ের মুখ খুঁজে মালোপাড়ার প্রতিমায়।
 
== শ্রেষ্ঠাংশে ==