"জোঁক" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বিষয়বস্তু যোগ
(Leech_blutegel.jpg কে চিত্র:Leech_in_water.jpg দিয়ে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে, কারণ: File renamed: misleading name: it is not clear, to which genus or species this...)
(বিষয়বস্তু যোগ)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
আদিকাল থেকে রক্তচোষা জোঁকেদের (যেমন ''হিরুডো মেডিসিনালিস'') রক্ত জমাট বাঁধা (blood cloting) বন্ধ করার জন্য চিকিৎসায় ব্যবহার হয়েছে।
তঞ্চন বন্ধ করার জন্য রক্তচোষা জোঁকের লালায় [[হিরুডিন]] নামক [[রক্ত জমাট রোধক]](anticoagulant) পেপটাইড ক্ষরিত হয়।
 
বাংলাদেশের আঞ্চলিক ভাষায় এগুলোকে "খেউরা জোঁক" বা " চীনা জোঁক" বলে। স্যাঁতসেতে ভিজেমাটি এদের পছন্দনীয় আবাস্থল। মাঝারি ও ছোট আকারের গবাদিপশু'র রক্তশূন্যতার কারণ এই জোঁক। একটি ছোটবাচ্চাকে যদি তিন/চারটি জোঁক একত্রে ধরে, তবে সেই বাচ্চাটি রক্তশূন্যতার জন্য মারাও যেতে পারে। বগুড়া জেলার সমগ্র দক্ষিনাঞ্চল জুড়ে এই জোঁক প্রচুর দেখা যায়। আমাদের গাঁড়ল-দুম্বা'র পায়ের খুর ও ঘাস খাওয়ার সময় নাকের ভেতরে ঢুকে পড়ে এগুলো। ত্বকে ছিদ্র করে রক্ত শুষতে থাকে, যতক্ষন না এগুলোর পেট ফেটে যাওয়ার উপক্রম হয়ে নিজ থেকেই পড়ে যায়। এরা যেটুকু রক্ত খায় তাতে কোন সমস্যা হয়না। কিন্তু রক্ত খেতে যে ছিদ্রটি করে, সেই ছিদ্র দিয়ে অনেকটা রক্ত বেরিয়ে যায়। গ্রামবাংলায় পশুপালনের বড় অন্তরায় এই রাবারসদৃশ প্রাণিটি। এদের উৎপত্তি স্থল হলো গণচীন। ধারনা করা হয়, অনেককাল পূর্বে কয়লার মাধ্যমে এই জোঁক বাংলাদেশে আসে।(অরণ্য তপু)
 
== দেহ থেকে জোঁক অপসারন ==
৪৪টি

সম্পাদনা

পরিভ্রমণ বাছাইতালিকা