বিষয়বস্তুতে চলুন

"আশারায়ে মুবাশশারা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল অ্যাপ সম্পাদনা
 
==হাদিস==
{{Quote|[[সাঈদ ইবনে যায়িদ]]বর্ণনা করেন:<br>আব্দুর রহমান ইবনুল -আকনাস বলেন সে যখন মসজিদে প্রবেশ করেন তখন একজন ব্যক্তি আলীকে সালাম দেন। তখন সাঈদ ইবনে যায়িদ দাড়িয়ে গেলেন এবঙ্গি বলেন আমি সাক্ষী দিচ্ছি যে আল্লাহর নবী (সঃ) কে বলতে শুনেছি যে: দশ জন লোক জান্নাতে যাবে: [[আবু বকর]] জান্নাতি, [[উমর]] জান্নাতি, [[উসমান]] জান্নাতি, [[আলী]] জান্নাতি, [[তালহা]] জান্নাতি: [[যুবাইর ইবনুল আওয়াম]] জান্নাতি, [[আবদুর রহমান ইবনে আউফ]] জান্নাতি, [[সাদ ইবনে আবি ওয়াক্কাস]] জান্নাতি, এবং [[আবু উবাইদা ইবনুল জাররাহ]] জান্নাতি। আসমআমি কি দশম ব্যক্তির নাম বলব। লোকেরা বলল:কে সে ? তিনি নীরব থাকলেন।. লোকেরা আবার বলল : কে সে ? তিনি বললেন:সে হলো [[সাঈদ ইবনে যায়িদ]].|সংগ্রহ [[আবু দাউদ]]|''[[সুনান আবু দাউদ]]''<ref>{{hadith-usc|usc=yes|abudawud|40|4632}}</ref>}}
 
{{Quote|[[আবদুর রহমান ইবনে আউফ]] বর্ণনা করেন:<br>আল্লাহর নবী (সঃ) বলেন: "আল্লাহর নবী (সঃ) কে বলতে শুনেছি যে: দশ জন লোক জানআতেজান্নাতে যাবে: [[আবু বকর]] জান্নাতি, [[উমর]] জান্নাতি, [[উসমান]] জান্নাতি, [[আলি]] জান্নাতি, [[তালহা]] জান্নাতি: [[যুবাইর ইবনুল আওয়াম]] জান্নাতি, [[আবদুর রহমান ইবনে আউফ]] জান্নাতি, [[সাদ ইবনে আবি ওয়াক্কাস]] জান্নাতি,[[সাঈদ ইবনে যায়িদ]] জান্নাতি, এবং [[আবু উবাইদা ইবনুল জাররাহ]] জান্নাতি। |''[[তিরমিযী]]''<ref>[http://sunnah.com/urn/636260 Tirmidhi, Hadith 3747]</ref>}}
 
==তথ্যসূত্র==
৫১টি

সম্পাদনা