বিষয়বস্তুতে চলুন

ভাষা আন্দোলনে একুশে পদক: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্প্রসারণ
(সম্প্রসারণ)
(সম্প্রসারণ)
 
 
'''ভাষা আন্দোলনে একুশে পদক''' হলো [[একুশে পদক]] প্রদাণের একটি অন্যতম প্রধান ক্ষেত্র। এটি [[১৯৫২]] সালের [[বাংলা ভাষা আন্দোলন|ভাষা আন্দোলনের]] সাথে জড়িতদের অনন্য অবদানের স্বীকৃতি প্রদানের উদ্দেশ্যে প্রদত্ত একটি জাতীয় এবং “দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার”।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |url=http://www.dailyjanakantha.us/details/article/171749/একুশে-পদক-পাচ্ছেন-তোয়াব-খান-মফিদুল-হকসহ |title=একুশে পদক পাচ্ছেন তোয়াব খান, মফিদুল হকসহ ১৬ জন |date=১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ |newspaper=দৈনিক জনকন্ঠ |accessdate=: ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭}}</ref> ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে [[১৯৭৬]] সালে [[শিক্ষা ও গবেষণা|শিক্ষা]], [[ভাষা ও সাহিত্য|সাহিত্য]] ও [[সাংবাদিকতা]] - এই তিনটি ক্ষেত্রে “একুশে পদক” প্রদান প্রচলন করা হয়।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |url=http://www.ittefaq.com.bd/print-edition/first-page/2016/02/11/101479.html |title=১৬ কৃতী ব্যক্তি পাচ্ছেন একুশে পদক |newspaper=[[দৈনিক ইত্তেফাক]] |date=১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ |accessdate=: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬}}</ref> পরবর্তিতে ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, শিল্পকলা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এবং সমাজসেবা - এই আরও পাঁচটি ক্ষেত্রেও “একুশে পদক” প্রদাণ করা হয়। এই পুরস্কার প্রদাণের ব্যাপারটি দেখাশোনা করে [[বাংলাদেশ সরকার|বাংলাদেশ সরকারের]] [[সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় (বাংলাদেশ)|সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়]]।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |url=http://www.ittefaq.com.bd/national/2017/07/13/120284_print.html |title=একুশে পদকের মনোনয়ন আহ্বান |newspaper=[[দৈনিক ইত্তেফাক]] |date=১৩ জুলাই ২০১৭ |accessdate=: ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭}}</ref> বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত কমিটির পরামর্শে মনোনীত ব্যক্তিবর্গ ও প্রতিষ্ঠানকে এই পদক দেয়া হয়।<ref name="এপ">{{ওয়েব উদ্ধৃতি |url=https://nhd.gov.bd/content/একুশে_পদক_প্রদানের_সার্বিক_প্রক্রিয়া |title=একুশে পদক প্রদানের সার্বিক প্রক্রিয়া |publisher=তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার |date=৪ জুন ২০১৭ |accessdate=: ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭}}</ref> প্রতিবছর [[২১ ফেব্রুয়ারি]] তারিখ ঢাকা থেকে এই পদক প্রদান করা হয়। [[২০০০]] সালে [[আবুল বরকত|ভাষা শহীদ বরকত]], [[আবদুল জব্বার|ভাষা শহীদ জব্বার]], [[আবদুস সালাম (ভাষা শহীদ)|ভাষা শহীদ সালাম]], [[রফিকউদ্দিন আহমদ|ভাষা শহীদ রফিক]], [[শফিউর রহমান|ভাষা শহীদ শফিউর]] এবং [[আবু নছর মোঃ গাজীউল হক|ভাষা সৈনিক গাজীউল হককে]] প্রথমবারের মতো “ভাষা আন্দোলনে একুশে পদক” প্রদান করা হয়।
'''ভাষা আন্দোলনে একুশে পদক''' হলো [[একুশে পদক]] প্রদাণের একটি অন্যতম প্রধান ক্ষেত্র। এটি [[বাংলাদেশ|বাংলাদেশের]] [[বাংলা ভাষা আন্দোলন|ভাষা আন্দোলনের]] সাথে জড়িতদের প্রদত্ত একটি জাতীয় এবং সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি প্রদানের উদ্দেশ্যে ২০০০ সাল থেকে এই ক্ষেত্রে একুশে পদক প্রদান করা হচ্ছে।
 
== আরও দেখুন ==
২৯,১৬৫টি

সম্পাদনা