বিষয়বস্তুতে চলুন

জলঙ্গী নদী: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(বর্তমান অবস্থা)
ট্যাগ: দৃশ্যমান সম্পাদনা মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: দৃশ্যমান সম্পাদনা মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
==নদীর প্রবাহ==
[[চিত্র:Nadia Rivers.jpg|thumb|জলঙ্গী নদীর প্রবাহ]]
জলঙ্গী নদী [[মুর্শিদাবাদ জেলা]]য় চর মধবোনার কাছে [[পদ্মা নদী]] থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে। উৎস স্থল থেকে দক্ষিণে নদীটি প্রবাহিত হয়েছে। প্রবাহ পথে নদীটি ইসলামপুর, ডোমকল, তেহট্ট, পলাশিপাড়া, চাপড়া অতিক্রম করে [[কৃষ্ণনগর]] এর কাছে এসে পশ্চিম দিকে বাঁক নিয়েছে। এর পর নদীটি পশ্চিমমুখী হয়ে [[মায়াপুর]] এর কাছে সাহেবগঞ্জে [[গঙ্গা নদী]] বা [[ভাগীরথী নদী]]র সঙ্গে মিলিত হয়েছে। এই প্রবাহ পথের মোট দৈর্ঘ্য ২২০ কিলোমিটার।নদীটির প্রবাহ পথে প্রচুর [[নদী বাঁক]] দেখা যায়। [[ভৈরব নদী]] এই নদীর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে এবং এই নদীটিই জলঙ্গী নদীর বেশির ভাগ জলের যোগান দেয়। বর্ষার মরশুম ছাড়া গ্রীষ্মের মরশুমে নদীটির জল অস্বভাবিক ভাবে কমে যায়।<ref name=":0">{{cite news |title = জলঙ্গি , তোমার জল কোথায় | url=http://www.anandabazar.com/ | accessdate = ০৬-০৮-২০১৬ | newspaper = আনন্দবাজার পত্রিকা }}</ref>
 
==বর্তমান অবস্থা==
জলংগী নদীকে দখল করে চাষবাস শুরু হওয়ায় নানা জায়গায় নদীর অবস্থা বর্তমানে খুবই খারাপ। কোথাও কোথাও কচুরিপানায় ভরেছে জলঙ্গি নদী। অবৈধ ইঁটভাটার কারনে যত্রতত্র নদীর ধার থেকে মাটি কাটার ফলে বন্যার সময় নদীর গতিশীল ভারসাম্য বিনষ্ট হচ্ছে। অগভীর হচ্ছে নদীখাত।<ref name=":0" />
==শিল্পে সাহিত্যে জলঙ্গী==
সত্যজিত রায়ের অপুর সংসার সিনেমার অনেকটা অংশই জলঙ্গীর পাড়ে তোলা। জীবনানন্দ দাশের কবিতা 'আবার আসিব আমি বাংলার নদী মাঠ ক্ষেত ভালবেসে