বিষয়বস্তুতে চলুন

"আরাশ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট বানান ঠিক করছে, কোনো সমস্যায় তানভিরের আলাপ পাতায় বার্তা রাখুন
(বিষয়শ্রেণী:ইরানী গায়ক অপসারণ; বিষয়শ্রেণী:ইরানি গায়ক যোগ হটক্যাটের মাধ্যমে)
(বট বানান ঠিক করছে, কোনো সমস্যায় তানভিরের আলাপ পাতায় বার্তা রাখুন)
 
== প্রাথমিক জীবন ==
আরাশ লাবাফ ১৯৭৭ সালের ২৩ এপ্রিল ইরানের [[তেহরান|তেহরানে]] জন্মগ্রহণ গ্রহণ করেন। দশ বছর বয়সে তিনি ও তাঁর পরিবার সুইডেনে স্থানান্তরিত হন। বর্তমানে তিনি সুইডেনে বাস করেন। বিবিসি পার্সিয়ান টেলিভিশনের সাথে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, তাঁর মা ও বাবার জন্মস্থান যথাক্রমে ইরানের [[শিরাজ]] ও [[ইসফাহান]]।<ref>{{cite web|url=http://www.bbc.co.uk/persian/arts/story/2005/02/050211_ag-arash-interview.shtml|publisher=BBC (interview by Behzad Bolour)|title=Arash's Iranian family from Sweden|accessdate=2009-05-16|date=2008-09-11}}</ref> অন্য একটি সাক্ষাৎকারে আরাশ বলেছেন, তাঁর দাদা আজারবাইজান বংশোদ্ভূত ইরানী।<ref>http://www.eurovisionary.com/node/2406</ref><ref>http://en.itv.az/eurovisionsong/202.html</ref><ref>http://eurovision.1tv.ru/member_id434_1.html</ref><ref>http://www.bbc.co.uk/russian/entertainment/2009/05/090516_eurovision_preview.shtml</ref><ref>[http://www.eurovision.tv/event/artistdetail?song=24728&event=1482#biography Arash Biography] at Eurovision.tv</ref><ref>http://www.youtube.com/watch?v=eGrjeC2NuNw</ref><ref>[Aysel and Arash interview http://esckaz.com/2009/aze.htm#interview]</ref> এছাড়া তিনি স্বীকার করেছেন যে, “আমার প্রপিতামহ ছিলেন আজারবাইজানের নাগরিক, তাই আমি অনুভবঅণুভব করি যে আমার শেকড় হল আজারবাইজান।“<ref>[http://eurovisionblog.wordpress.com/2009/05/05/the-great-big-eurovision-experiment-2009-azerbaijan/ The Great Big Eurovision Experiment 2009 – Azerbaijan] {{ref-en}}</ref> পরবর্তিতে আরাশের পরিবার সুইডেনের মালমো শহরে স্থানান্তরিত হয়। তিনি বর্তমানে সেখানেই বসবাস করেন। তার ছোট দুই ভাই রয়েছে; একজনের নাম আশকান লাবাফ ও অন্যজনের আরসালান লাবাফ। আশকান লাবাফ পেশায় ডাক্তার এবং আরসালান পেশায় আইনজীবী।
 
== কর্মজীবন ==
আরাশ শৈশবে ইয়ারন হতে সুইডেনে স্থানান্তরিত হলেও সে তাঁর মাতৃভাষা [[ফার্সি ভাষা|ফার্সি ভাষায়]] গান করেন। এর কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি বলেছেন যে, ইরান ও ফার্সি সংস্কৃতির প্রতি তাঁর গভীর ভালবাসা ও শ্রদ্ধার কারণেই তিনি এখনো ফার্সিতে গান করেন।<ref>{{cite web|url=http://www.rferl.org/Content/Article/1058593.html|publisher=RFE/RL|title= Iran: Arash Tops European Pop Charts With Persian-Language Hits|accessdate=2009-02-07|date=2005-04-21}}</ref>
 
তাঁর প্রথম অ্যালবাম আরাশ ২০০৫ এর জুনে [[ওয়ার্নার মিউজিক সুইডেন]] কর্তৃক প্রকাশিত হয়। তখন তিনি মাত্র কলেজ পাশ করেছেন। তাঁর একক সঙ্গীত “বোরো বোরো” এবং “টেম্পটেশন” [[ইউরোপ|ইউরোপব্যাপী]] দারুণ অনপ্রিয় হয়। এছাড়া গান দুইটির মিউজিক ভিডিও ইউরোপের বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে এবং এমটিভির ২০টিরও অধিক পৃথিবীব্যাপী আউটলেটে প্রচারিত হয়। তাঁর নিজের দেশ, ইরান ও সুইডেন ছাড়াও আরাশের সঙ্গীত পূর্ব ইউরোপ ও দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের বিভিন্ন দেশ যেমন- রাশিয়া, ইউক্রেইন, গ্রীসগ্রিস, বুলগেরিয়া, পোল্যান্ড, হাঙ্গেরী, জর্জিয়া, আজারবাইজান, সার্বিয়া, স্লোভাকিয়া, রোমানিয়া, তুরস্ক এবং এশিয়ার তাজিকিস্তান, কাজাখস্থান, আফগানিস্থান, উজবেকিস্তানসহ মধ্যপ্রাচ্যের আরব দেশসমূহে ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেন।
 
পোল্যান্ডে আরাশ অত্যধিক জনপ্রিয়। তাঁর “বোরো বোরো” ভারতের [[বলিউড]] চলচ্চিত্রে ব্যবহৃত হয়েছে। ঐ মাসে এমটিভি ইন্ডিয়া আরাশকে মাসের সেরা শিল্পী পদক দেয়। পাঁচটি দেশের মিউজিক চার্ট তাঁর আরাশ অ্যালবামকে গোল্ড সনদপত্রে ভূষিত করেছে: রাশিয়া, স্লোভেনিয়া, জার্মানি, গ্রীসগ্রিস এবং সুইডেন।<ref>http://www.eurovision.tv/event/artistdetail?song=24728&event=1482</ref> প্রায় ৩৫টি দেশের এমটিভি চ্যানেলে আরাশের মিউজিক ভিডিও প্রচারিত হয়েছে।<ref>{{cite web|url=http://www.youtube.com/watch?v=W8utdGOsK_k |publisher=YouTube |title=The Persian Prince of Pop ARASH |accessdate=2010-04-10 |date=2009-11-30}}</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==
১,০৭,৮৩৩টি

সম্পাদনা