বিষয়বস্তুতে চলুন

তরঙ্গ: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(বট বানান ঠিক করছে, কোনো সমস্যায় তানভিরের আলাপ পাতায় বার্তা রাখুন)
সম্পাদনা সারাংশ নেই
[[চিত্র:2006-01-14 Surface waves.jpg|thumb|right|300px|পানির উপরিতলে তরঙ্গ]]
 
'''তরঙ্গ''' বাহলো এক ধরনের '''ঢেউ''' হলোযা এক<small>পরপর ধরনেরবা</small> [[পর্যাবৃত্ত]] আন্দোলন[[দোলন|দোলনের]] যামাধ্যমে কোনকোনো [[জড়]] [[মাধ্যম|মাধ্যমের]] এক[[কণা]]গুলোকে [[স্থান|স্থানা]]ন্তরিত থেকেনা অন্য স্থানে শক্তি সঞ্চারিত করে কিন্তু মাধ্যমের কণাগুলোকে নিজ নিজ স্থান থেকেক'রে স্থানান্তরিত হয়হয়ে নাথাকে <ref>জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, ঢাকা কর্তৃক প্রকাশিত মাধ্যমিক পদার্থ বিজ্ঞান, পরিমার্জিত সংস্করণ ডিসেম্বর ২০০৮ পৃষ্ঠা ১০৪</ref> <p>কিছু কিছু '''তরঙ্গ''' [[শূণ্য মাধ্যম]] দিয়েও (অর্থাৎ কোন মাধ্যম ছাড়াই) সঞ্চারিত হতে পারে।পারে । এধরনের '''তরঙ্গ''' হলো [[তাড়িতচ্চৌম্বক তরঙ্গ]] এবং([[আলো]]) আর হয়তো [[মহাকর্ষীয় তরঙ্গ]]<ref>[[Gravitational waveswave]]s have never been directly detected but are widely believed by the scientific community to exist .</ref></p> জড় মাধ্যমের কণার আন্দোলনের ফলে যে তরঙ্গ সৃষ্টি হয় তাকে [[যান্ত্রিক তরঙ্গ]] বলে।বলে । এই তরঙ্গ মাধ্যমের কণার কোন স্থায়ী বিচ্যুতি ঘটায় না , বরং এই তরঙ্গ মাধ্যমের কণাগুলোর [[স্পন্দনস্পন্দণ]] বা কম্পন[[কম্পণ]] দ্বারা [[সঞ্চালণ|সঞ্চালিত]] হয়।সুতরাংহয় । [[যান্ত্রিক তরঙ্গেরতরঙ্গ]] সন্চালনেরসঞ্চালণের জন্য মাধ্যমটি স্থিতিস্থাপক এবং অবিচ্ছিন্ন হওয়ামাধ্যমের প্রয়োজন।ওপর নির্ভশীল ।
 
== বৈশিষ্ট্য ==
[[চিত্র:Diving grebe.jpg|পানিতেজলে ঝাঁপ দিলে পানিরজলের উপরিতলে তরঙ্গ সৃষ্টি হয়|thumb|250px]]
আদর্শ অবস্থায় তরঙ্গের মধ্যে যে বৈশিষ্ট্যগুলোবৈশিষ্ট্যাদি দেখা যায় থাকেসেগুলো তাহলো হলোঃ:<ref>জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, ঢাকা কর্তৃক প্রকাশিত মাধ্যমিক পদার্থ বিজ্ঞান, পরিমার্জিত সংস্করণ ডিসেম্বর ২০০৮ পৃষ্ঠা ১০৬</ref>
* তরঙ্গের সৃষ্টি হয় মাধ্যমের কণার[[কণা]]র [[স্পন্দন]] বা [[কম্পন|কম্পনের]] ফলে।ফলে । কিন্তু এর প্রভাবে মাধ্যমের [[কণা]] স্থানান্তরিত হয় না শুধুমাত্র মাধ্যমের ভিতর দিয়ে তরঙ্গাকারে আন্দোলন সঞ্চারিত হয়।হয় ।
 
* তরঙ্গের বেগ ও মাধ্যমের কণাগুলোর[[কণা]]গুলোর [[স্পন্দন|স্পন্দনের]] [[বেগ]] আলাদা।আলাদা । মাধ্যমের সব জায়গায় তরঙ্গের [[বেগ]] একই থাকে কিন্তু মাধ্যমের কণাগুলো[[কণা]]গুলো বিভিন্ন বেগে স্পন্দিত হয়।হয় । [[সাম্যাবস্থানেসাম্যাবস্থা]]য় কণাগুলোর বেগ সবচেয়ে বেশি।বেশি ।
* তরঙ্গের সৃষ্টি হয় মাধ্যমের কণার স্পন্দন বা কম্পনের ফলে। কিন্তু এর প্রভাবে মাধ্যমের কণা স্থানান্তরিত হয় না শুধুমাত্র মাধ্যমের ভিতর দিয়ে তরঙ্গাকারে আন্দোলন সঞ্চারিত হয়।
* সব তরঙ্গই [[শক্তি]][[তথ্য]] সঞ্চারণ করে।করে ।
* তরঙ্গের বেগ ও মাধ্যমের কণাগুলোর স্পন্দনের বেগ আলাদা। মাধ্যমের সব জায়গায় তরঙ্গের বেগ একই থাকে কিন্তু মাধ্যমের কণাগুলো বিভিন্ন বেগে স্পন্দিত হয়। [[সাম্যাবস্থানে]] কণাগুলোর বেগ সবচেয়ে বেশি।
* তরঙ্গের [[বিস্তার]] , [[কম্পন]] , [[তরঙ্গদৈর্ঘ্য]] আছে আছে।
* সব তরঙ্গই শক্তি ও তথ্য সঞ্চারণ করে।
*তরঙ্গ এ [[অগ্রগামী]] বা [[স্থির]] হতে পারে।পারে ।
*তরঙ্গের বিস্তার,কম্পন, তরঙ্গদৈর্ঘ্য আছে।
*তরঙ্গ এটা [[আড়]] বা [[লম্বিক]] অর্থাৎ [[অনুপ্রস্থ]] বা [[অনুদৈর্ঘ্য]] বরাবর হতে পারে।পারে ।
*তরঙ্গ অগ্রগামী বা স্থির হতে পারে।
* [[প্রতিফলন]] - প্রতিফলক তলে আপতিত হওয়ার পর তরঙ্গের অভিমূখ পরিবর্তিত হয় এবং [[আপতন কোণ]] সর্বদা [[প্রতিফলন কোণ|প্রতিফলন কোণের]] সমান হয়।হয় ।
*তরঙ্গ আড় বা লম্বিক অর্থাৎ অনুপ্রস্থ বা অনুদৈর্ঘ্য বরাবর হতে পারে।
* [[প্রতিসরণ]] - এক মাধ্যম থেকে অন্য মাধ্যমে প্রবেশ করার সময় তরঙ্গের বেগের পরিবর্তন হয়।হয় ।
*এর প্রতিফলন, প্রতিসরণ,ব্যতিচার,অপবর্তন ঘটে।
* [[ব্যতিচার]] ([[Interference]]) - একই উৎস থেকে নির্গত দুটিদু'টি সুসঙ্গত তরঙ্গমুখ থেকে প্রাপ্ত তরঙ্গের উপরিপাতনের ফলে ব্যতিচার সৃষ্টি হয়।হয় ।
*তরঙ্গের প্রবাহের অভিমুখ বা দিক আছে।
* [[অপবর্তন]] ([[Diffraction]]) - একই তরঙ্গমুখের বিভিন্ন অংশ থেকে নির্গত গৌণ তরঙ্গসমূহের উপরিপাতনের ফলে অপবর্তনের সৃষ্টি হয়।হয় । কোন প্রতিবন্ধকের ধার ঘেঁষে বা সরু চিরের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় জ্যামিতিক ছায়া অঞ্চলের মধ্যে আলো বেঁকে যাওয়ার ঘটনাকে আলোর অপবর্তন বলে।বলে
* [[বিচ্ছুরণ]] -
* তরঙ্গের প্রবাহের [[অভিমুখ]] বা [[দিক]] আছে আছে।
 
== তরঙ্গের প্রকারভেদ ==
[[সরল ছন্দিত তরঙ্গ]] '''তরঙ্গশীর্ষ''' বা ''চূড়া'চূড়''' এবং '''তরঙ্গপাদ''' বা ''তল'' দ্বারা বৈশিষ্টায়িত।বৈশিষ্টায়িত । এই তরঙ্গ সাধারণত দুই ধরনের , [[অনুপ্রস্থ তরঙ্গ]][[অনুদৈর্ঘ্য তরঙ্গ।তরঙ্গ]] । যে তরঙ্গের সঞ্চালনের দিক মাধ্যমের কণাগুলোর স্পন্দনের দিকের সাথে [[সমকোণ|সমকোণে]] থাকে তাকে অনুপ্রস্থ তরঙ্গ বলা হয়।হয় । যেমন তাড়িতচৌম্বকীয় তরঙ্গ বা সুতার মধ্যে দিয়ে সঞ্চারিত তরঙ্গ।তরঙ্গ । অন্যদিকে অনুদৈর্ঘ্য তরঙ্গে তরঙ্গ সঞ্চালনের দিক মাধ্যমের কণাগুলোর স্পন্দনের দিকের সাথে সমান্তরালে থাকে।থাকে । এর উদাহরণ হলো [[শব্দ|শব্দের]] তরঙ্গ তরঙ্গ।
 
[[Image:Wave motion-i18n-mod.svg|thumb|300px|right| '''A''' = পানির গভীরে.<br />
'''B''' = অগভীর পানিতে। উপরিতলের একটি বস্তুর উপবৃত্তাকার গতি গভীরতা কমার সাথে সাথে সমান হয়ে আসে<br />
'''1''' = তরঙ্গ সঞ্চারণের দিক<br />
'''2''' = তরঙ্গশীর্ষ<br />
'''3''' = তরঙ্গপাদ]]
 
[[Image:Wave motion-i18n-mod.svg|thumb|300px|right| '''A''' = পানিরজলের গভীরে.<br />
আদর্শ অবস্থায় সব তরঙ্গই কিছু সাধারণ বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করে। এই বৈশিষ্ট্যগুলো হলোঃ
'''B''' = অগভীর পানিতে।জলে । উপরিতলের একটি বস্তুর [[উপবৃত্তাকার]] [[গতি]] গভীরতা কমার সাথে সাথে সমান হয়ে আসে<br />
* [[প্রতিফলন]] - প্রতিফলক তলে আপতিত হওয়ার পর তরঙ্গের অভিমূখ পরিবর্তিত হয় এবং [[আপতন কোণ]] সর্বদা [[প্রতিফলন কোণ|প্রতিফলন কোণের]] সমান হয়।
'''1''' = তরঙ্গ সঞ্চারণের দিক <br />
* [[প্রতিসরণ]] - এক মাধ্যম থেকে অন্য মাধ্যমে প্রবেশ করার সময় তরঙ্গের বেগের পরিবর্তন হয়।
'''2''' = [[তরঙ্গশীর্ষ]]<br />
* [[অপবর্তন]] (Diffraction) - একই তরঙ্গমুখের বিভিন্ন অংশ থেকে নির্গত গৌণ তরঙ্গসমূহের উপরিপাতনের ফলে অপবর্তনের সৃষ্টি হয়। কোন প্রতিবন্ধকের ধার ঘেঁষে বা সরু চিরের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় জ্যামিতিক ছায়া অঞ্চলের মধ্যে আলো বেঁকে যাওয়ার ঘটনাকে আলোর অপবর্তন বলে।
'''3''' = [[তরঙ্গপাদ]] ]]
* [[ব্যতিচার]] (Interference) - একই উৎস থেকে নির্গত দুটি সুসঙ্গত তরঙ্গমুখ থেকে প্রাপ্ত তরঙ্গের উপরিপাতনের ফলে ব্যতিচার সৃষ্টি হয়।
-
* [[বিচ্ছুরণ]] -
 
=== উদাহরণ ===
[[চিত্র:cornwall Wave.jpg|thumb|150px|সমুদ্রের ঢেউ পাথরের উপরে আছড়ে পড়ছে]]
 
তরঙ্গের উদাহরণের মধ্যে রয়েছেঃরয়েছে :
* সমুদ্রের ঢেউ - পানির উপরিতলে সঞ্চারিত তরঙ্গ।তরঙ্গ ।
* [[বেতার তরঙ্গ]], [[মাইক্রোওয়েভ]], [[অবলোহিত রশ্মি]], [[দৃশ্যমান আলো]], [[অতিবেগুনী রশ্মি]], [[এক্স রে]], এবং [[গামা রশ্মি]] দ্বারা [[তাড়িতচৌম্বক তরঙ্গ]] তৈরী. এই ধরণের তরঙ্গের ক্ষেত্রে তরঙ্গ সঞ্চালনের জন্য কোন মাধ্যম প্রয়োজন হয় না। শূণ্য মাধ্যমে এই তরঙ্গের গতিবেগ আলোর বেগের সমান
* [[শব্দ তরঙ্গ]] — তরল, কঠিন বা বায়বীয় মাধ্যম দিয়ে সঞ্চারিত যান্ত্রিক তরঙ্গ যা আমাদেরকে শ্রবণের অনুভূতি দেয়।
* ট্র্যাফিক তরঙ্গ
* [[ভূকম্পীয় তরঙ্গ]] - ভূমিকম্প বা বিস্ফোরণজনিত কারণে পৃথিবীর ভেতর দিয়ে প্রবাহিত তরঙ্গ। তিন ধরণের ভূকম্পীয় তরঙ্গ আছে - S, P, এবং L.
* [[মহাকর্ষীয় তরঙ্গ]] - [[মহাকর্ষ|মহাকর্ষীয় ক্ষেত্রে]] আন্দোলনজনিত কারণে উদ্ভূত আলোর সমান বেগে ধাবমান , অতি ক্ষীণ তরঙ্গ।তরঙ্গ । এ তরঙ্গের প্রকৃতি জানা যায় [[আইনস্টাইন|আইনস্টাইনের]] সাধারণ আপেক্ষিকতত্ত্ব থেকে।থেকে ।
* [[জড়তা তরঙ্গ]], - ঘূর্ণায়মান তরলে উৎপন্ন তরঙ্গ ।
 
== গাণিতিক বর্ণনা ==
 
[[চিত্র:Simple harmonic motion animation.gif|thumb|right|সরল ছন্দিত স্পন্দন]]
'''পর্যায়কাল''' (<math>T</math>) হলো একটি পূর্ণ স্পন্দন সম্পন্ন করতে একটি তরঙ্গ সঞ্চারকারী কণার যে সময় লাগে।লাগে ।
'''কম্পাঙককম্পাঙ্ক''' (<math>f</math> বা <math>\nu</math>) হচ্ছে একটি তরঙ্গ সঞ্চারকারী কণা এক সেকেন্ডে যতগুলো পূর্ণ কম্পন সম্পন্ন করতে পারে সেই সংখ্যা।সংখ্যা । এর একক হার্জ।হার্জ ([[hertz]]) । এদের মধ্যে গাণিতিক সম্পর্ক হলোঃহলো :
 
:<math>
</math>
 
সুতরাং পর্যায়কাল এবং কম্পাঙককম্পাঙ্ক পরস্পরের [[ব্যস্তানুপাতিক]]
 
<!--
১,৪৫৯টি

সম্পাদনা