বিষয়বস্তুতে ঝাঁপ দিন

"বালুচরী শাড়ি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(+description)
}}
'''বালুচরী''' পশ্চিমবঙ্গের প্রসিদ্ধ শাড়ি, ভারতের ভৌগোলিক স্বীকৃতি এবং বয়নশৈলীতে জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত শিল্পকর্ম৷ আঁচলে বিবিধ পৌরাণিক ও অন্যান্য নকশা-বোনা এই শাড়ি আভিজাত্যের প্রতীক হিসাবে গণ্য৷ বালুচরী শাড়ি তৈরিতে মোটামুটি ১ সপ্তাহ ও তার বেশি সময় লাগে ।<ref>{{cite news|last=BALASUBRAMANIAM|first=CHITRA|title=Recreating the age-old Baluchari magic|url=http://www.thehindu.com/arts/magazine/article2795487.ece|accessdate=20 July 2012|newspaper=The Hindu|date=14 January 2012|location=Chennai, India}}</ref>
<ref>{{cite news|last=Mookerji|first=Madhumita|title=Baluchari silk loses its sheen to Benarasi|url=http://www.dnaindia.com/india/report_baluchari-silk-loses-its-sheen-to-benarasi_1121911|accessdate=20 July 2012|newspaper=DNA}}</ref> এই শাড়ি ভারতের ভৌগলিক অস্তিত্বের ইঙ্গিত দেয় ।দেয়। <ref>{{cite web|title=Journal 41 GI Application 173|url=http://ipindia.nic.in/girindia/journal/Journal_41.pdf|publisher=Controller General of Patents, Designs, and Trade Marks, Government of India|accessdate=11 January 2013}}</ref>
 
== ইতিহাস ==
 
এই শাড়ির নাম হয়েছে মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুরের কয়েক মাইল উত্তরস্থিত<ref>[http://www.telegraphindia.com/1150524/jsp/opinion/story_21749.jsp History of a weave - Of tapestries, hookahs and howdas], The Telegraph, Kolkata, 24 May, 2015</ref> বালুচর গ্রাম থেকে৷ নবাব মুর্শিদকুলি খানের উদ্যোগে সেখানে এই শিল্পের রমরমা দেখা দেয়৷{{Citation needed}} সেখানে এই শিল্পের শেষ বিখ্যাত কারিগর দুবরাজ দাস মারা যান ১৯০৩ সালে, তিনি চিত্রশিল্পীদের মত শাড়িতে নিজের নাম সই করতেন৷<ref>[http://gaatha.com/baluchari-saree-bangal/ Photoloomic ~ Baluchari], Gaatha</ref> গঙ্গার বন্যায় এই গ্রাম বিধ্বস্ত হলে শিল্পীরা আশ্রয় নেন বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুরে৷ সেখানে মল্ল রাজাদের পৃষ্ঠপোষণে এই শিল্পের সমৃদ্ধি ঘটে৷ মল্ল রাজাদের সময়ে নির্মিত টেরাকোটার মন্দির ও অন্যান্য শিল্পের প্রভাব পড়ে এই শাড়ির নকশায়৷ পরে ব্রিটিশ জমানায় অন্যান্য দেশীয় বয়নশিল্পের মত বালুচরীও দুর্দশাগ্রস্ত হয়৷ ১৯৫৬ সালে বিখ্যাত চিত্রশিল্পী সুভগেন্দ্রনাথ (সুভো) ঠাকুরের উদ্যোগে এই শাড়ির বাণিজ্যিক বিস্তার ঘটে৷ তিনি তখনকার বিখ্যাত কারিগর অক্ষয়কুমার দাসকে রিজিওনাল ডিজাইন সেন্টারে (সুভো ঠাকুর এর ডিরেক্টর ছিলেন) সাবেক জালা তাঁতের পরিবর্তে জ্যাকার্ড তাঁতের ব্যবহার শেখান৷ পরের বছর অক্ষয় দাস অজন্তা-ইলোরার মোটিফ লাগিয়ে নতুন বালুচরী বাজারে আনলে এই শিল্পের উত্থান ঘটে৷
 
== পদ্ধতি ==
১,০৯২টি

সম্পাদনা