বিষয়বস্তুতে চলুন

"সুচিত্রা সেন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(রোবট যোগ করছে: es:Suchitra Sen)
পরবর্তী বছরে [[উত্তম কুমার|উত্তম কুমারের]] বিপরীতে ''[[সাড়ে চুয়াত্তর]]'' ছবিতে তিনি অভিনয় করেন। ছবিটি বক্স-অফিসে সাফল্য লাভ করে এবং উত্তম-সুচিত্রা জুটি উপহারের কারনে আজও স্মরনীয় হয়ে আছে। বাংলা ছবির এই অবিসংবাদিত জুটি পরবর্তী ২০ বছরে ছিলেন আইকন স্বরূপ।
 
[[১৯৫৫]] সালের [[দেবদাস]] ছবির জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার জিতেন, যা ছিল তার প্রথম হিন্দি ছবি। [[উত্তম কুমার|উত্তম কুমারের]] সাথে বাংলা ছবিতে রোমান্টিকতা সৃষ্টি করার জন্য তিনি বাংলা চলচ্চিত্রের সবচেয়ে বিখ্যাত অভিনেত্রী। ১৯৬০ ও [[১৯৭০]] দশকে তার অভিনীত ছবি মুক্তি পেয়েছে। স্বামী মারা যাওয়ার পরও তিনি অভিনয় চালিয়ে গেছেন, যেমন হিন্দি ছবি '''আন্ধি'''। এই চলচ্চিত্রে তিনি একজন নেত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। বলা হয় যে চরিত্রটির প্রেরণা এসেছে [[ইন্দিরা গান্ধী]] থেকে। এই ছবির জন্য তিনি ''ফিল্মফেয়ার'' শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছিলেন এবং তার স্বামী চরিত্রে অভিনয় করা সঞ্জীব কুমার শ্রেষ্ঠ অভিনেতার পুরস্কার জিতেছিলেন।
 
[[১৯৭৮]] সালে সুদীর্ঘ ২৫ বছর অভিনয়ের পর তিনি চলচ্চিত্র থেকে অবসরগ্রহণ করেন। এর পর তিনি লোকচক্ষু থেকে আত্মগোপন করেন এবং রামকৃষ্ণ মিশনের সেবায় ব্রতী হন। [http://www.tripurainfo.com/citizen_services/helping_bytes/april_born.html] ২০০৫ সালে [[দাদাসাহেব ফালকে]] পুরস্কারের জন্য সুচিত্রা সেন মনোনীত হন, কিন্তু ভারতের প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে সশরীরে পুরস্কার নিতে দিল্লী যাওয়ায় আপত্তি জানানোর কারনে তাকে পুরস্কার দেয়া হয় নি।
২৪৯টি

সম্পাদনা