বিলাত ফেরত (১৯২১-এর চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(বিলাতফেরত থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বিলাত ফেরত
Dhirendranath Ganguly.jpg
চলচ্চিত্রে ধীরেন্দ্রনাথ গঙ্গোপাধ্যায়
পরিচালকএন.সি. লাহিড়ী
ধীরেন্দ্রনাথ গঙ্গোপাধ্যায় (co-director)
প্রযোজকধীরেন্দ্রনাথ গঙ্গোপাধ্যায়
শ্রেষ্ঠাংশেধীরেন্দ্রনাথ গঙ্গোপাধ্যায়
মন্মথ পাল
কুঞ্জলাল চক্রবর্তী
সুশীলবালা
নৃপেন বসু
নীতীশ লাহিড়ী
শিশুবালা
চিত্রগ্রাহকজ্যোতিষ সরকার
মুক্তি১৯২১ (1921)
দেশভারত
ভাষানির্বাক চলচ্চিত্র
বাংলা আন্তঃটাইটেলযুক্ত

বিলাত ফেরত (England Returned) বা বিলেত ফেরত, ১৯২১ সালের ধীরেন্দ্রনাথ গঙ্গোপাধ্যায় প্রযোজিত ও এন.সি. লাহিড়ী পরিচালিত একটি প্রহসনমূলক বাংলা নির্বাক চলচ্চিত্র[১] অবিভক্ত বাংলা প্রদেশের বরিশালএর ডেপুটি কালেক্টর ধীরেন্দ্রনাথ গঙ্গোপাধ্যায় এই চলচ্চিত্রটিতে প্রযোজনা ও অভিনয় করেন।তাঁর অভিনয় জীবনের সূচনাকালীন চলচ্চিত্রের মধ্যে এটি অন্যতম। তিনি এই সিনেমার সহযোগী পরিচালকও ছিলেন।[২] এটিই প্রথম ভারতীয় চলচ্চিত্র যেখানে প্রগাঢ় চুম্বনের দৃশ্য ছিল। প্রথম নির্বাক লাভ-স্টোরি (কমেডিযুক্ত) হিসেবে এটি বিপুল জনপ্রিয়তা পায়। ছবিটি ভারতীয় চলচ্চিত্রে রোমান্টিক কাহিনীর যুগের সূত্রপাত ঘটিয়েছিল। ব্রিটিশ ও আমেরিকান চলচ্চিত্রের অনুপ্রেরণায় ভারতীয় চলচ্চিত্রকাররা এই সিনেমায় চুম্বনযুক্ত রিয়েলিস্টিক প্রেমের দৃশ্যের অবতারণা করেন। তবুও, ভারতীয় জনগণ ব্রিটিশ ও আমেরিকান চলচ্চিত্রে অভ্যস্ত হলেও ভারতীয় নায়িকার এইরকম অন্তরঙ্গ মুহূর্তে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেননি। 'বিলাত ফেরত' মানে বিদেশ থেকে ফেরত' এবং সেযুগে বিদেশ বলতে ইংল্যান্ডকেই বোঝানো হত৷ ছবিটিতে প্রগতিশীল ভারতীয়দের পশ্চিমী শিক্ষা ও রীতিনীতি নিয়ে বিলেত থেকে ফেরা এবং রক্ষণশীল ভারতীয়দের এই পরিবর্তনের বিরোধিতা দর্শানো হয়েছে।[৩]

কুশীলব[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. K. Moti Gokulsing; Wimal Dissanayake (১৭ এপ্রিল ২০১৩)। Routledge Handbook of Indian Cinemas। Routledge। পৃষ্ঠা 50–। আইএসবিএন 978-1-136-77291-7। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  2. Ashish Rajadhyaksha; Paul Willemen (সেপ্টেম্বর ২০১৪)। Encyclopedia of Indian Cinema। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 1994–। আইএসবিএন 978-1-135-94325-7। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  3. Zakir Hossain Raju (১৭ ডিসেম্বর ২০১৪)। Bangladesh Cinema and National Identity: In Search of the Modern?। Routledge। পৃষ্ঠা 100–। আইএসবিএন 978-1-317-60181-4। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]