বিবিসি স্পোর্ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বিবিসি স্পোর্ট
ডিপার্টমেন্ট অফ দি বিবিসি
শিল্পমাধ্যম (মিডয়া)
প্রকারখেলা
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৮৮ (ব্র্যান্ডিং)
২০০০ (বিভাগ)
সদরদপ্তরমিডিয়াসিটিউকে,
সালফোর্ড, গ্রেটার ম্যানচেস্টার
, যুক্তরাজ্য
বাণিজ্য অঞ্চল
যুক্তরাজ্য এবং বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের জন্য নির্দিষ্ট পরিষেবা
প্রধান ব্যক্তি
বারবারা স্ল্যাটার (ডাইরেক্টর)
পরিষেবাসমূহটেলিভিশন সম্প্রচার
রেডিও সম্প্রচার
অনলাইন উপস্থিতি
মালিকবিবিসি
ওয়েবসাইটbbc.co.uk/sport

বিবিসি স্পোর্ট হ'ল বিবিসি এর ক্রীড়া বিভাগ য়াঁরা বিবিসি টেলিভিশন, রেডিও এবং অনলাইন এর জন্য জাতীয় ক্রীড়া সম্প্রচার করে থাকেন। বিবিসির বিভিন্ন খেলাধুলার টেলিভিশন এবং রেডিও ইউকে সম্প্রচার অধিকার রয়েছে। তাঁরা খেলার সরাসরি সম্প্রচার করেন অথবা পাশাপাশি ম্যাচ অফ দ্য ডে, টেস্ট ম্যাচ স্পেশাল, স্কি সানডে, টুডে এট উইম্বলডন এবং আগেকার গ্র্যান্ডস্ট্যান্ড এর মতো তাঁদের ফ্ল্যাগশিপ বিশ্লেষণ-মূলক অনষ্ঠানও চালু রেখেছেন। ফলাফল, বিশ্লেষণ এবং কভারেজ যুক্ত করা হয়েছে বিবিসি স্পোর্ট ওয়েবসাইটে [১] এবং বিবিসি রেড বাটন ইন্টাঅ্যাকটিভ টেলিভিশন পরিষেবার মাধ্যমে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বিভিন্ন অনুষ্ঠানের নাম এবং সম্প্রচার শিরোনামের অধীনে বিবিসি বেশ কয়েক দশক ধরে খেলা সম্প্রচার করে আসছে। প্রায় ৫০ বছর ধরে সম্প্রচারিত গ্র্যান্ডস্ট্যান্ড খেলাধুলার অন্যতম উল্লেখযোগ্য অনুষ্ঠান ছিল। বিবিসি সর্বপ্রথম ১৯৮৮ সালে সিওল এ অনুষ্ঠিত ১৯৮৮ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক এর জন্য 'বিবিসি স্পোর্ট' ব্র্যান্ড নামে তাদের খেলা সম্প্রচার শুরু করে এবং চারটি বর্ণের রিং দ্বারা পরিবেষ্টিত একটি গ্লোব দিয়ে নির্মিত একটি সংক্ষিপ্ত অ্যানিমেশনের পরিচায়ক উপস্থাপনা সহ অনুষ্ঠানটি চালু করে।[২] এই ধারা পরবর্তী দুই দশক ধরে অব্যাহত ছিল। ১৯৯৭ সালে বিবিসি নিউজ ওয়েবসাইট চালুর পরে প্রথমবারের মতো বিবিসির অনলাইন উপস্থিতিতে খেলাকে যুক্ত করা হয়।

২০০৭ সালের মে মাসে বিবিসি ট্রাস্ট কর্তৃক বিবিসি স্পোর্ট সহ বেশ কয়েকটি বিবিসি বিভাগকে সালফোর্ড এ স্থানান্তরিত করার পরিকল্পনা অনুমোদিত হয়।[৩] মিডিয়াসিটিউকে তে গঠিত নতুন বিকাশ ছিল লন্ডন থেকে বিবিসি বিভাগগুলির একটি বৃহত বিকেন্দ্রীকরণের ঘটনা। ইংল্যান্ডের উত্তরে মূল বিনিয়োগ যে অঞ্চলে করা হয়েছিল সেখানে আগে ব্যয় কম ছিল। বিভাগটি কোয়ে হাউসের মিডিয়াসিটিইউকে ধীরে ধীরে ২০১১ সালের শেষের দিকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় এবং ২০১২ সালের প্রথম দিকে স্পোর্টস বুলেটিনগুলি নতুন বিবিসি স্পোর্ট সেন্টার থেকে ৫ মার্চ ২০১২ তারিখে প্রথম সম্প্রচারিত হয়েছিল।[৪]

২০১৭ সালে বিবিসি স্পোর্ট একটি নতুন অন-এয়ার আইডেন্টিটি চালু করে এবং হয়ে ওঠে নতুন কর্পোরেট টাইপফেস বাস্তবায়নের প্রথম বিবিসি সম্পত্তি।[৫][৬]

অনুষ্ঠানের সংক্ষিপ্তসার[সম্পাদনা]

ফুটবল[সম্পাদনা]

বিবিসি ফিফা বিশ্বকাপ এবং উয়েফা ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপ এর সম্প্রচার অধিকার আইটিভি এর সাথে ভাগ করে নেয়। গ্রুপ পর্বে এবং নকআউট ধাপে সেমিফাইনাল এবং ফাইনাল সহ খেলাগুলির প্রায় সমান বিভাজনে উভয় নেটওয়ার্কে প্রদর্শিত হয়। বিবিসি ২০১৮ বিশ্বকাপ এর সমস্ত ম্যাচ থেকে তরঙ্গদৈর্ঘ্য অনুসারে ৪কে ইউএইচডি এবং ভিআর এর সীমিত সংখ্যায় প্রচার শুরু করে। [৭]

বিবিসি দিনের ম্যাচ (ম্যাচ অফ দ্য ডে) অনুষ্ঠানে প্রিমিয়ার লিগের হাইলাইটগুলি ১৯৯৯ সাল থেকে আমন্ত্রক হিসাবে গ্যারি লিনেকার এর উপস্থানায় দেখানো হচ্ছে। দিবসের ম্যাচ ২ এবং দিবসের ম্যাচ ২ এক্সট্রা উপস্থাপন করেন মার্ক চ্যাপম্যান। প্রতি শনিবার দুপুরের খাবারের সময়ে আমন্ত্রক হিসাবে ড্যান ওয়াকার এর উপস্থানায় অনুষ্ঠিত হয় ফুটবল ফোকাস এবং তার পরেই বিকেলে অনুষ্ঠিত হয় জেসন মোহাম্মদ এর উপস্থানায় চূড়ান্ত স্কোর (ফাইনাল স্কোর) অনুষ্ঠানটি। ম্যাচ অফ দ্য ডে অনুষ্ঠানের জন্য ভাষ্যকার হিসাবে ছিলেন গাই মাউব্রে, স্টিভ উইলসন, জোনাথন পিয়ার্স, সাইমন ব্রাদারটন, স্টিভ বাওয়ার, ডেভ উডস, ভিকি স্পার্কস, জ্যাকি ওটলে, অ্যালিস্টার ম্যান, কনার ম্যাকনামারা, ড্যান ও'হাগান, মার্ক টম্পকিনস, মার্টিন ফিশার, গ্যারি ব্লুম, মার্ক স্কট, জন রডার, ক্রিস ওয়াইজ, রবিয়ন কাউয়েন এবং স্টিভেন ওয়েথ এর পাশাপাশি পণ্ডিত হিসাবে সহ-ভাষ্যকারদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অ্যালান শিয়ার, রবি সাভেজ, ক্রিস সাটন, ডন হাচিসন, মার্ক লরেনসন, ড্যানি মারফি, কেভিন কিলবানে, জেরমাইন জেনাস, মার্টিন কেওন, স্টিফেন ওয়ার্নক, রিও ফার্ডিনান্দ , ম্যাথু আপসন, অ্যালেক্স স্কট, ক্রিস ওয়াডলে, সেসে ফ্যাব্রেগাস, দিদিয়ের দ্রোগবা, ফায়ে হোয়াইট, সু স্মিথ, লুসি ওয়ার্ড এবং ইয়ান রাইটএফএ কাপ এর সরাসরি সম্প্রচারও বিবিসি করছে এবং তা ২০২১ সাল পর্যন্ত চালু থাকবে।[৮]

ক্রিকেট[সম্পাদনা]

৩০ জুন ২০১৭ সালে ঘোষণা করা হয়েছিল যে ২১ বছরের মধ্যে এই প্রথমবারের মতো লাইভ ক্রিকেট বিবিসি টিভিতে ফিরে আসবে। বিবিসি সমস্ত ইংল্যান্ডের হোম টেস্ট, এক দিবসীয় এবং টি-টোয়েন্টির হাইলাইট দেখাবার অধিকার ফিরে পেয়েছে। তাদের কাছে প্রতি মরসুমে দুটি ঘরের টি-টোয়েন্টি ম্যাচ এবং দ্য হান্ড্রেড এর ১০ টি ম্যাচের সরাসরি সম্প্রচার স্বত্ত্ব রয়েছে। এই স্বত্ত্বের অন্তর্ভূক্ত আছে ইংল্যান্ড মহিলা ক্রিকেটের একটি হোম টি-টোয়েন্টি এবং ৮ ম্যাচের দ্য হান্ড্রেডের সম্প্রচার। বিবিসির টেস্ট ক্রিকেট হাইলাইটের অনুষ্ঠান টুডে অ্যাট দ্য টেস্ট এ উপস্থাপিকা ঈসা গুহর পাশাপাশি থাকেন মাইকেল ভন, ফিল টাফনেল, অ্যাবনি রেইনফোর্ড-ব্রেন্ট, মার্ক রামপ্রকাশ এবং জেমস অ্যান্ডারসনঅ্যালিসন মিচেল এবং সাইমন মান ধারাভাষ্যের সাথে ঈসা গুহর পাশাপাশি উপস্থাপনাতেও অবদান রাখেন। নিয়মিতভাবে কোনও অতিথি সহ-ভাষ্যকার সফরকারী দলের পক্ষ থেকে এই দলে যোগ দেন। ৩০ আগস্ট ২০২০ সালে বিবিসি ইংল্যান্ড বনাম পাকিস্তানের ২য় টি-টোয়েন্টি আন্তর্জাতিকের সম্প্রচার করেছিল যা বিগত ২১ বছরের মধ্যে তাদের প্রথম লাইভ ক্রিকেট সম্প্রচার। [৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "BBC Sport Website"। ২২ নভেম্বর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০০৭ 
  2. TV Ark: Branding | BBC Sport
  3. "BBC move to Salford gets green light"BBC Press Office। ৩১ মে ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১২ 
  4. "Sport news bulletins start in Salford"Ariel। BBC। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১২ 
  5. "Making the difference for BBC Sport Cohesion, cut-through and credit across all platforms"Studio Output। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৭ 
  6. "BBC Sport rebrands, dropping "100-year-old" typeface for bespoke one"Design Week (ইংরেজি ভাষায়)। ১৪ আগস্ট ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৭ 
  7. "BBC - BBC announces live Ultra HD and VR trials for World Cup - Media Centre"www.bbc.co.uk 
  8. Owen Gibson। "BBC and BT Sport to share FA Cup TV rights"the Guardian 
  9. "BBC broadcasts live cricket for the first time in 21 years and break viewership records"। ১ সেপ্টেম্বর ২০২০।