বানৌজা বিজয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইতিহাস
বাংলাদেশ
নাম: বানৌজা বিজয়
নির্মাতা: হল, রাসেল অ্যান্ড কোম্পানি
নির্মাণের সময়: ২৫ জুন ১৯৮০
অভিষেক: ৩ জুন ১৯৮১
অর্জন: ১৪ মে ২০১০
কমিশন লাভ: ৫ মার্চ ২০১১
মাতৃ বন্দর: মোংলা
শনাক্তকরণ:
  • পরিচিতি সংখ্যা: এফ৩৫
  • আইএমও নাম্বার: ৭৯২০০১৫
অবস্থা: সক্রিয়
সাধারণ বৈশিষ্ট্য
প্রকার ও শ্রেণী: ক্যাসল ক্লাস কর্ভেট
ওজন: ১,৪৩০ টন
দৈর্ঘ্য: ৮১ মি (২৬৫.৭ ফু)
প্রস্থ: ১১.৫ মি (৩৭.৭ ফু)
Draught: ৩.৬ মি (১১.৮ ফু)
প্রচালনশক্তি: ২ × রাস্টন ১২আরকেসি ৫,৬৪০ অশ্বশক্তি (৪,২১০ কিওয়াট) ডিজেল, ২ শ্যাফট
গতিবেগ:
  • ১৮ নট (৩৩ কিমি/ঘ; ২১ মা/ঘ) সর্বোচ্চ
  • ১২ নট (২২ কিমি/ঘ; ১৪ মা/ঘ) সাধারণ
লোকবল: ৪৫
রণসজ্জা:
  • ১ × একে-১৭৬ প্রধান কামান
  • ৪ × সি-৭০৪ জাহাজবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র
  • ২ × ওয়েরলিকন ২০ মিমি কামান
বিমানচালানর সুবিধাসমূহ: হেলিকপ্টার ডেক

বানৌজা বিজয় বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একটি ক্যাসল ক্লাসের ক্ষেপণাস্ত্রবাহি কর্ভেট। জাহাজটি ২০১১ সাল থেকে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সাথে যুক্ত আছে।

নকশা[সম্পাদনা]

বানৌজা বিজয় দৈর্ঘ্যে ৮১ মিটার (২৬৬ ফু), প্রস্থে ১১.৫ মিটার (৩৮ ফু) এবং গভীরতায় ৩.৬ মিটার (১২ ফু)। জাহাজটিতে দুইটি রাস্টন ১২আরকেসি ৫,৬৪০ অশ্বশক্তি (৪,২১০ কিওয়াট) ডিজেল ইঞ্জিন রয়েছে যার সাহায্যে এটি ১২ নট (২২ কিমি/ঘ; ১৪ মা/ঘ) সাধারণ গতিতে এবং ১৮ নট (৩৩ কিমি/ঘ; ২১ মা/ঘ) সর্বোচ্চ গতিতে চলতে সক্ষম। জাহাজটিতে একটি হেলিকপ্টার ডেকও রয়েছে।

অস্ত্রসজ্জা[সম্পাদনা]

জাহাজটির সম্মুখভাগে রয়েছে একটি একে-১৭৬ ৭৬ মিমি কামান। এছাড়া জাহাজের মধ্যভাগে দুইটি ওয়েরলিকন ২০ মিমি কামানও রয়েছে। পাশাপাশি জাহাজটি ৪টি সি-৭০৪ জাহাজবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্রও বহন করে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]