বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব গ্লাস এন্ড সিরামিক্স

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব গ্লাস এন্ড সিরামিকস
নীতিবাক্য“দক্ষ প্রকৌশলী হব, প্রযুক্তি নির্ভর বাংলাদেশ গড়ব”
ধরনসরকারি পাবলিক পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট
স্থাপিত১৯৫১
অধ্যক্ষপ্রকৌশলী মোঃ আইয়ুব আলী
ডিন2
প্রশাসনিক কর্মকর্তা
৫০+
শিক্ষার্থী৫০০+
অবস্থান
৯৫, শহীদ তাজ উদ্দীন আহমেদ সরনী, তেজগাঁও শিল্পএলাকা , ঢাকা - ১২০৮
,
২৩°৪৫′২৯″ উত্তর ৯০°২৩′৫৮″ পূর্ব / ২৩.৭৫৭৯৭৯° উত্তর ৯০.৩৯৯৩৪১° পূর্ব / 23.757979; 90.399341স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৫′২৯″ উত্তর ৯০°২৩′৫৮″ পূর্ব / ২৩.৭৫৭৯৭৯° উত্তর ৯০.৩৯৯৩৪১° পূর্ব / 23.757979; 90.399341
শিক্ষাঙ্গনশহুরে
২০ একর (৮.১ হেক্টর)
অধিভুক্তিবাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড
ওয়েবসাইটwww.bigc.gov.bd

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব গ্লাস এন্ড সিরামিকস (Bangladesh Institute of Glass and Ceramics) বাংলাদেশের একমাত্র এবং সবচেয়ে পুরাতন পলিটেকনিক ইন্সটিটউট । এই পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটটি ১৯৫১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এই প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে চার বছর মেয়াদী “ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং” প্রগ্রামে সিরামিকক ইঞ্জিনিয়ারিংগ্লাস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ চালু রয়েছে। আরো ৪টি বিভাগ মন্ত্রীসভায় অনুমোদন পেয়েছে যা খুব শীঘ্রই চালু হবে। [১]

প্রতিষ্ঠানটির অবস্থান[সম্পাদনা]

রাজধানী ঢাকার ৯৫, শহীদ তাজ উদ্দীন আহমেদ সরনী, তেজগাঁও শিল্প এলাকায় অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রতিষ্ঠানটি ১৯৫১ সালের ১১ মার্চ "ইস্ট বেঙ্গল সিরামিকস ইন্সটিটিউট" নামে প্রতিষ্ঠিত হয়, তারপর এই প্রতিষ্ঠানটির নাম কয়েক দফায় পরিবর্তন হয়। যেমন - ১৯৬০ সালে "ইস্ট পাকিস্তান ইন্সটিটিউট অব গ্লাস এন্ড সিরামিকস" তারপর ১৯৭১ এ পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশ আলাদা হওয়ার পর তা ১৯৭২ সালে আবার পরিবর্তিত হয়, বর্তমান "বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব গ্লাস এন্ড সিরামিকস" নামে। [১]

শিক্ষাব্যবস্থা[সম্পাদনা]

১৯৭৮ সালে এই প্রতিষ্ঠানটি ৩ বছর মেয়াদী “ডিপ্লোমা ইন সিরামিকস ইঞ্জিনিয়ারিং” কোর্স চালু করে এবং পরবর্তীতে ২০০০ সালে “ডিপ্লোমা ইন গ্লাস ইঞ্জিনিয়ারিং” কোর্স চালু করা হয়। আবার ২০০০ সাল থেকেই “ডিপ্লোমা ইন গ্লাস এন্ড সিরামিকস” ইঞ্জিনিয়ারিং এর মেয়াদ পরিবর্তন করে চার বছর মেয়াদী করা হয়।

প্রযুক্তি / বিভাগসমূহ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]