বাংলাদেশ-ওমান সম্পর্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাংলাদেশ-ওমান সম্পর্ক
মানচিত্র বাংলাদেশ এবং ওমানের অবস্থান নির্দেশ করছে

বাংলাদেশ

ওমান

বাংলাদেশ-ওমান সম্পর্ক বাংলাদেশওমানের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে নির্দেশ করে। [১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ওমানের সালতানাত ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়। ১৯৮৩ সালের মার্চ মাসে ওমানে বাংলাদেশ তার কূটনৈতিক মিশন প্রতিষ্ঠা করে। তখন থেকেই দু'দেশের মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রয়েছে। ওমান প্রথম আরব দেশগুলির মধ্যে একটি যারা জাতিসংঘ এবং অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থায় বাংলাদেশের সদস্যপদ সমর্থন করেছিল। ১৯৯৬ সালে রাষ্ট্রদূত পর্যায়ে বাংলাদেশ ওমানের মিশনকে উন্নীত করে। ওমানের সালতানাত ২০১২ সালে ঢাকায় তার পূর্ণাঙ্গ দূতাবাস প্রতিষ্ঠা করে।

ওমানে বাংলাদেশের আবাসিক দূতাবাস রয়েছে।[২] বাংলাদেশী কর্মীরা কাফালা পদ্ধতির অধীনে চলে যা তাদের নিয়োগকর্তাদের কাছে আবদ্ধ করে দেয় এবং হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মতে এতে তারা নির্যাতনের শিকার হতে পারে।[৩] ২০১৩ সালে প্রায় ১,৩৩,০২৮ বাংলাদেশি শ্রমিক বিভিন্ন শ্রেণীর কাজের অনুমতি নিয়ে ওমানে প্রবেশ করেছিলেন এবং মিশন প্রক্রিয়াটি সহজ করার ক্ষেত্রে সজাগ থাকে। ২০১৪ সালে, ১,০৫,৭৪৮ বাংলাদেশী বিভিন্ন বিভাগের ভিসায় ওমানে এসেছিল। জুন ২০১৩-জুন ২০১৪ অর্থ বছরে ওমানে বসবাসরত বাংলাদেশিরা প্রায় ৭০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থ প্রেরণ করেছিল।

কূটনৈতিক সফর[সম্পাদনা]

  • বাংলাদেশের তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিপু মনি ২০১২ সালের ২৫-২৬ এপ্রিল ওমানের সরকারি সফর করেছিলেন। তিনি ওমানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইউসুফ বিন আলাবি বিন আবদুল্লাহ, পুলিশ ও শুল্ক পরিদর্শক হাসান বিন মোহসীন আল শরাইকি, বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী এইচ ই ইঞ্জিনিয়ার আলী বিন মাসউদ আল সুনাইদী, কৃষি ও মৎস্যমন্ত্রী ডঃ ফুয়াদ বিন জাফর আল সাগওয়ানি এবং তেল ও গ্যাস মন্ত্রী ডঃ মোহাম্মদ বিন হামাদ বিন সাইফ আল রুমীর সাথে দেখা করেন। উভয় পক্ষের পররাষ্ট্র মন্ত্রী পর্যায়ের প্রথম দ্বিপক্ষীয় সরকারী সফর দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় গতি বাড়িয়ে দিয়েছিল। দ্বিপাক্ষিক আলোচনার সময় উভয় পক্ষই কৃষি, মৎস্য, বাণিজ্য ও বিনিয়োগকে পারস্পরিক সহযোগিতার আগ্রহের মূল ক্ষেত্র হিসাবে চিহ্নিত করেছিল। ওমানি কর্তৃপক্ষগুলি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পরিদর্শনকালে পারস্পরিক ভিত্তিতে মাসকটের কূটনৈতিক ছিটমহলে একটি প্লট হস্তান্তর করতে উপরন্তু প্রস্তুত ছিল।
  • খন্দকার মোশাররফ হোসেন ওমানির জনশক্তি মন্ত্রী শাইখ আবদুল্লাহ বিন নাসের বিন আবদুল্লাহ আল বাকরীর আমন্ত্রণে ২০১৩ সালের ৪-৯ মে ওমান সফর করেছিলেন।
  • ওমানির পক্ষ থেকে, চার সদস্যের ওমানি কৃষি প্রতিনিধিদল ২০১৩ সালের মার্চ মাসে বাংলাদেশ, কৃষিক্ষেত্র, মৎস্য ও জোট খাতের ক্ষেত্রে সম্ভাব্য সহযোগিতার সুযোগগুলি সন্ধান করতে বাংলাদেশ সফর করেছিল।
  • জনশক্তি মন্ত্রণালয়ের সদস্যদের সমন্বয়ে একটি ওমানী প্রতিনিধি দল জনশক্তি সংক্রান্ত চুক্তির পৃষ্ঠপোষকতায় তৃতীয় যৌথ কমিটির বৈঠকে যোগ দিতে ২০১৪ সালের মার্চ মাসে বাংলাদেশ সফর করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bangladesh, Oman sign MoU on foreign office consultations"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০২-১৫ 
  2. "Stricter rules on hiring Bangladesh housemaids in Oman from January"Times of Oman (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০২-১৫ 
  3. "Bangladeshis among domestic workers trapped in Oman: HRW"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-০৭-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০২-১৫