বাংলাদেশের লবণ শিল্প

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

বাংলাদেশের সমুদ্র উপকূলীয় অঞ্চলে উৎপন্ন লবণকে কেন্দ্র করে বৃহৎ লবণশিল্প গড়ে উঠেছে। দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারে সমুদ্রের লোনা পানি দ্বারা ডিসেম্বর হতে মধ্য মে পর্যন্ত লবণ উৎপাদিত হয়ে আসছে। বর্তমানে খুলনাসাতক্ষীরা অঞ্চলে লবণ উৎপাদন শুরু হয়েছে। পূর্বে মানুষ সমুদ্রের পানি চুলায় জ্বাল দিয়ে বা রোদে শুকিয়ে (সৌর পদ্ধতিতে) লবণ উৎপাদন করতো। ২০০০-২০০১ সাল থেকে পলিথিন পদ্ধতিতে লবণ উৎপাদন শুরু হয়। সনাতন পদ্ধতিতে একর প্রতি লবণের উৎপাদন ছিল ১৭.২৫ মেট্রিক টন এবং নতুন পদ্ধতিতে প্রতি একরে লবণ উৎপাদিত হয় প্রায় ২১ মেট্রিক টন। এই পদ্ধতিতে সনাতন পদ্ধতির তুলনায় ৩৫% অধিক ও আন্তর্জাতিক মানের লবণ উৎপাদিত হয়, যা দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করার সম্ভবনা সৃষ্টি করে।[১]

বাংলাদেশে লবণ উৎপাদনের ইতিহাস[সম্পাদনা]

লবণ উৎপাদন আদিকাল থেকে সমুদ্র উপকূলবর্তী অঞ্চলের একটি দেশীয় শিল্পোদ্যোগ ছিল। মুলঙ্গী নামে পরিচিত চট্টগ্রামের এক শ্রেণির লোক অতীতকাল থেকে সমুদ্রের পানি সিদ্ধ করে লবণ উৎপাদন করত। তাদের লবণ উৎপাদন ক্ষেত্রকে ‘তোফল’ বলা হতো। মোঘল আমলে ‘নিমক জায়গীর মহাল ও নিমক এয়জ মহাল’ নামক দুটি সরকারি বিভাগ এই শিল্প নিয়ন্ত্রণ করতো। নিজামপুর, জুলদিয়া ও বাহারছরা এই তিনটি চাকলার অধীনে মোট ৩৯টি লবণ সংগ্রহ ক্ষেত্র ছিল। ষোড়শ শতকে লবণ উৎপাদনকারীদের সরকারি খাতে মাশুল দিতে হতো। মোঘল আমল পর্যন্ত লবণ শিল্পে সরকারের একচেটিয়া আধিপত্য ছিল। এর ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব ছিল জমিদার শ্রেণীর হাতে। তারা লবণ চাষীদের দিয়ে লবণ তৈরি করার জন্য স্থানীয় ব্যবসায়ীদের দাদন প্রদান করত। ১৭৫৭ থেকে ১৭৬৫ সালের মধ্যে অনেক ইংরেজ প্রত্যক্ষভাবে ও বেনিয়াদের মাধ্যমে পরোক্ষভাবে লবণ ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে।

ব্রিটিশদের উদ্যোগে ১৭৬৫ সালে বণিক সমিতি গঠিত হয় এবং এতে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কর্মকর্তারা লাভবান হয়। পরবর্তীকালে ওয়ারেন হেস্টিংস লবণ শিল্পের ওপর সরকারের একচেটিয়া আধিপত্য প্রয়োগ করে লবণ আবাদের জন্য সর্বোচ্চ দরদাতাকে লবণ উৎপাদনের জমি পাঁচ বছরের জন্য লিজ দিতে শুরু করেন। ১৭৭৭ সালে এ পদ্ধতি বাতিল হয়ে বার্ষিক চুক্তি সম্পাদিত হতে থাকে। নতুন পদ্ধতি ১৭৮০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে। কোম্পানি এরপর এজেন্সির মাধ্যমে সরাসরি লবণ উৎপাদন ব্যবস্থাপনায় জড়িত হয় এবং যৌথ নিলামের আয়োজন করে বাজারজাতকরণেও সম্পৃক্ত হয়। ১৮৬২ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কোম্পানির আধিপত্য চলতে থাকে। কোম্পানি কর্তৃক আরোপিত কর প্রশাসন, বিদেশ থেকে লবণ আমদানি এবং ভারতে লবণ উৎপাদন নিষিদ্ধকরণ ইত্যাদির মাধ্যমে দেশীয় লবণ শিল্পকে ধ্বংস করা হয়। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পনির শাসনের প্রথম দিকে চট্টগ্রামে ৭৯-৯৯ হাজার মণ লবণ উৎপাদিত হতো। তখন কোম্পানির কর্মচারীরা চট্টগ্রামে উৎপাদিত লবণের ব্যবসা করত। পরবর্তীকালে লিভারপুর থেকে লবণ আমদানির কারণে প্রকৃতিজাত এই শিল্পটি ধ্বংস হয়ে যায়। ব্রিটিশ সরকার সামুদ্রিক লবণ উৎপাদন করা বেআইনি ও দন্ডযোগ্য অপরাধ বলে ঘোষণা করে এবং স্বদেশী লবণের উপর অতিমাত্রায় কর আরোপ করায় এই শিল্প বন্ধ হয়ে যায়। চট্টগ্রামের বহু মুলঙ্গী জীবিকার তাগিদে লুকিয়ে লবন চাষ করতে গিয়ে ধরা পড়ে শাস্তিও ভোগ করত। এভাবে নির্যাতন চালিয়ে চট্টগ্রামের প্রাচীন লবণ শিল্পকে ধ্বংস করা হয়েছিল। বিশ শতকের ত্রিশের দশকে মহাত্মা গান্ধীর লবণ আন্দোলনের প্রভাবে লবণ উৎপাদন আবার শুরু হলেও নতুন লবণ শিল্প প্রতিষ্ঠায় ব্রিটিশদের প্রবল বিরোধিতা ছিল। ১৯৪৭-এর পর থেকে এই লবণ শিল্পটি পুনরুজ্জীবিত হলেও এখানকার উৎপাদিত লবণের উপর অধিক আবগারী শুল্ক ধার্য করায় পশ্চিম পাকিস্তান থেকে আমদানিকৃত খনিজ লবণের সাথে ব্যবসায়িক প্রতিযোগিতায় চট্টগ্রামে উৎপাদিত সামুদ্রিক লবণ পিছিয়ে পড়ে।

লবণ উৎপাদনে বিসিকের ভূমিকা[সম্পাদনা]

১৯৫৭ সালে পূর্ব পাকিস্তান ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (ইপসিক) প্রতিষ্ঠিত হয় যা বর্তমানে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) নিয়মিত জনবল দ্বারা ১৯৬০-৬১ অর্থবছর থেকে লবণ শিল্পসংক্রান্ত কার্যক্রম আরম্ভ করে এবং ১৯৮৫ সালের জুন পর্যন্ত পরিচালিত হয়। ১৯৬৪ সালে লবণ উৎপাদনকারী ইউনিটসমূহের একটি শুমারি অনুষ্ঠিত হয়। শুমারি সর্বমোট ১৬,৫৪১টি লবণ উৎপাদনকারীর ইউনিট, লবণ উৎপাদনের আওতায় মোট ১১,৭৬৯ একর জমি এবং এই শিল্পে মোট ৫০,৮৫৪ জন শ্রমিকের কর্মসংস্থান নথিভুক্ত করে। লবণ উৎপাদনের পরিমাণ ছিল প্রায় ০.৩ মিলিয়ন টন এবং এর মূল্যমান ছিল ২০ মিলিয়ন টাকা। লবণ উৎপাদনকারী অঞ্চলগুলি ছিল চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, বরিশাল এবং খুলনা জেলার সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকাসমূহ। প্রাকৃতিক জলবায়ুর তারতম্য, বৃষ্টিপাতের পরিমাণ এবং জমি লিজ প্রদানের শর্তাদির ওপর প্রতি বছর এর উৎপাদন ওঠা-নামা করত। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন লবণ শিল্প উন্নয়নের কাজ হাতে নেয়। এটি বাস্তবায়নের জন্য ১৩ মিলিয়ন টাকার প্রকল্প গৃহীত হয়। পরবর্তীকালে কার্যক্রম বাস্তবায়নে ইউনিসেফের কাছ থেকে ২২.৬ মিলিয়ন টাকা অর্থসাহায্য পাওয়া যায়। স্বাধীনতার আগে কখনও বাংলাদেশে লবণ উৎপাদনের প্রবৃদ্ধি পরিলক্ষিত হয়নি। ১৯৯০ সালে ৩,৭৭৫.০০ লক্ষ (সংশোধিত) টাকা প্রাক্কলিত ব্যয় বিসিক বিশেষ উন্নয়ন ও উৎপাদন শীর্ষক ৩টি কর্মসূচি গ্রহণ করে। যার মধ্যে একটি উপ-প্রকল্প ছিল লবণ শিল্পের উন্নয়ন সম্পর্কিত এবং এর প্রাক্কলিত ব্যয় ১,১৮৯.০০ লক্ষ (সংশোধিত) টাকা। প্রকল্পের উদ্দেশ্য ছিল লবণ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন, গুণগত মান বৃদ্ধি, উৎপাদনকারীদের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিতকরণ, গবেষণা ও উন্নয়নমূলক কার্যক্রম গ্রহণ, লবণ চাষীদের উদ্বুদ্ধকরণ এবং লবণের চাহিদা, সরবরাহ ও উৎপাদন পর্যবেক্ষণ করা। প্রকল্পটি জুলাই ১৯৯০ হতে জুন ২০০০ এবং সংশোধিত জুলাই ১৯৯০ হতে জুলাই ২০০৫ পর্যন্ত সরকারি প্রকল্প হিসেবে লবণ শিল্পের উন্নয়ন ও সম্প্রসারণমূলক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে।

২০০৬-২০০৭ অর্থবছর থেকে এ প্রকল্পটি সরকারের রাজস্ব বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এ প্রকল্পের কেন্দ্রগুলির অবস্থান কক্সবাজার জেলার ৭টি থানা যথা: সদর, রামু, মহেশখালী, চকরিয়া, পেকুয়া, কুতুবদিয়া, টেকনাফ এবং চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী থানা এলাকার ১২টি কেন্দ্র। লবণের স্বাভাবিক চাহিদা মেটানো এবং আপদকালীন সময়ে সরবরাহ নিশ্চিত করে দাম স্থিতিশীল রাখতে এ প্রকল্পটি ভূমিকা রাখছে। বর্তমানে কক্সবাজার এবং চট্টগ্রাম জেলায় ৬৭,৭৫১ একর জমিতে ৩৪,৫৫৩ জন চাষি সৌর পদ্ধতিতে লবণ উৎপাদন করছে। জাতীয় অর্থনীতিতে লবণ শিল্পখাত প্রতিবছর গড়ে প্রায় ১২০০ কোটি টাকার অবদান রাখছে। বাংলাদেশের প্রায় ১০-১৫ লক্ষ লোক প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে লবণ শিল্পের উপর নির্ভরশীল।

আয়োডিনযুক্ত লবণ[সম্পাদনা]

আয়োডিন মিশ্রিত লবণ তৈরি কার্যক্রমের মাধ্যমে আয়োডিন ঘাটতি পূরণের লক্ষ্যে জুলাই ১৯৮৯ হতে জুন ২০০০ মেয়াদে সার্বজনীন আয়োডিনযুক্ত লবণ প্রকল্প (সিআইডিডি) হাতে নেওয়া হয়। সরকার ১১ ডিসেম্বর ১৯৯৪ সালে আয়োডিনের অভাবজনিত রোগ প্রতিরোধ আইন ১৯৮৯ জারি করেন। এ আইনের আওতায় ৩১ জানুয়ারি ১৯৯৫ তারিখ থেকে দেশে আয়োডিনযুক্ত ভোজ্য লবণ ব্যতীত কোনো ভোজ্যলবণ উৎপাদন, বিপণন ও গুদামজাত নিষিদ্ধ করা হয়।

ইউনিসেফ-এর কারিগরি সহায়তায় বিসিকের মাধ্যমে ২৬৭টি কারখানায় আয়োডিন সংমিশ্রণ মেশিন বিনামূল্যে বিতরণ করা হয় এবং তদারকির জন্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত লোক নিয়োগ করা হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "লবন শিল্প"। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জুন ২০১৭