বরিশাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
বরিশাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ
বরিশাল প্রকৌশল মহাবিদ্যালয়
ধরন প্রকৌশল কলেজ
অবস্থান বরিশাল, বাংলাদেশ
শিক্ষাঙ্গন আধাশহুরে (৮ একর)
সংক্ষিপ্ত নাম BEC
অধিভুক্তি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

বরিশাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ বাংলাদেশের একটি নির্মাণাধীন সরকারি স্নাতক পর্যায়ের প্রকৌশল কলেজ। এটি বরিশাল সদর উপজেলার চরকাউয়া ইউনিয়নে বরিশাল-ভোলা মহাসড়কের পাশে দুর্গাপুর নামক স্থানে অবস্থিত। শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হলে এটি হবে বাংলাদেশের চতুর্থ প্রকৌশল কলেজ। এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের অধিভুক্ত ও এটি চার বছর মেয়াদী বিএসসি ইন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি প্রদান করবে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২০১০ সালে একনেকের এক সভায় বরিশালে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ স্থাপনের জন্য অনুমোদন গৃহীত হয়। পরবর্তীতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এর প্রশাসনিক অনুমোদন ও ভূমি অধিগ্রহনের জন্য নির্দেশ দেয়া হয় ও নির্মাণ কাজের জন্য ৭৪ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। [১] ২০১২ সালে বরিশাল-ভোলা মহাসড়কের পাশে চরকাউয়া ইউনিয়নের দুর্গাপুরে ৮ একর জমিতে বরিশাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এর মধ্যে প্রশাসনিক ভবন, বিভিন্ন অনুষদ ভবন এবং মহিলা হোস্টেল ভবন তৈরির কাজ প্রায় শেষ হয়েছে। এছাড়া নির্মাণের অপেক্ষায় রয়েছে দু’টি ছাত্রাবাস ও দু’টি শিক্ষক ও কর্মকর্তা ভবন। এখানে চার বছর মেয়াদী সিভিল, ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক্স, নেভাল আর্কিটেকচার এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ৬০ জন করে মোট ১৮০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পাবে। [২][৩]

ক্যাম্পাস[সম্পাদনা]

ভর্তি প্রক্রিয়া ও শিক্ষা কার্যক্রম[সম্পাদনা]

এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা মোট জিপিএর ভিত্তিতে এ কলেজে পড়ার জন্য আবেদন করতে পারে ও ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা এখানে পড়ার সুযোগ পেয়ে থাকে।[৪] একাডেমিক কার্যক্রম বছরে ২টি সেমিস্টারে ক্রেডিট পদ্ধতিতে সম্পন্ন হয়। এই প্রকৌশল কলেজটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত। এখানে ৪ বছর মেয়াদী বিএসসি-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং এর শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। প্রকৌশল বিষয়ের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের গণিত, পদার্থ, রসায়ন, ব্যবস্থাপনা, হিসাববিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয়েও পাঠদান করা হয়।

বিভাগ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "বরিশালে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ,৭৪ কোটি টাকা বরাদ্দ"। বরিশাল নিউজ। ২ অক্টোবর ২০১০। সংগৃহীত ৩০ অক্টোবর ২০১৫ 
  2. "বরিশাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ স্থাপন প্রকল্প অনুমোদন"। ২৯ এপ্রিল ২০১৪। সংগৃহীত ৩০ অক্টোবর ২০১৫ 
  3. "চলতি বছর থেকেই শুরু হওয়ার কথা বরিশাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের কার্যক্রম"। এসএ টিভি। ১৮ অক্টোবর ২০১৫। সংগৃহীত ৩০ অক্টোবর ২০১৫ 
  4. "ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে জিপিএ’র ভিত্তিতে শিক্ষার্থী ভর্তির নির্দেশ"। বাংলানিউজ২৪.কম। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগৃহীত ৩১ জুলাই ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]