ফ্রেন্ডশিপ (এনজিও)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ফ্রেন্ডশিপ
ফ্রেন্ডশিপ (এনজিও)-এর লোগো.png
ফ্রেন্ডশিপ (এনজিও)-এর লোগো
গঠিত২০০২ (2002)
প্রতিষ্ঠাতারুনা খান
ধরনঅলাভজনক বেসরকারি এনজিও সংস্থা
সদরদপ্তরঢাকা,  বাংলাদেশ
পরিষেবাস্বাস্থ্য, শিক্ষা, টেকসই অর্থনৈতিক উন্নয়ন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও অবকাঠামো উন্নয়ন, সুশাসন, সাংস্কৃতিক সংরক্ষণ
মূল ব্যক্তিত্ব
রুনা খান (নির্বাহী পরিচালক)
ওয়েবসাইটfriendship.ngo/bangladesh/

ফ্রেন্ডশিপ একটি প্রয়োজনীয় ও আন্তর্জাতিক মহলে পরিচিত বেসরকারী সংস্থা যা উত্তর বাংলাদেশের চর দ্বীপপুঞ্জ এবং নদীগর্ভে, দক্ষিণের উপকূলীয় বেল্টে এবং ২০১৩ সাল পর্যন্ত দক্ষিণ-পূর্বের কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলিতে কাজ করেছে। রুনা খান ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত, ফ্রেন্ডশিপ একটি টেকসই, সমন্বিত উন্নয়ন পদ্ধতির মাধ্যমে মানুষকে ক্ষমতায়নে কাজ করে। [১]

ফ্রেন্ডশিপ কর্মচারী ১,৫০০ এরও বেশি কর্মচারী যার মধ্যে ফিল্ড স্টাফ, আঞ্চলিক অফিসের কর্মী, ভাসমান হাসপাতালের কর্মীরা, ফ্রেন্ডশিপ স্কুলে শিক্ষক, ভোকেশনাল স্কুলে প্রশিক্ষক, সংগঠন এবং দেশের উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলে কর্মরত সুপারভাইজার এবং ঢাকায় প্রধান কার্যালয়ের কর্মীরা অন্তর্ভুক্ত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

লাইফবয় ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল

ফ্রেন্ডশিপের প্রথম প্রকল্পটি ছিল একটি ভাসমান হাসপাতাল। ফরাসী নাবিক এবং বিমান চালক ইয়ভেস মারে বাংলাদেশের জনগণের ব্যবহারের জন্য এটি অনুদানের জন্য ফ্রান্স থেকে বাংলাদেশে একটি রিভার বার্জ যাত্রা করে। অবশেষে রুনা খান নদীর তীরটিকে একটি ভাসমান হাসপাতালে, লাইফবয় ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল (এলএফএইচ) রূপান্তরিত করে। [২][৩][৪]

সেই থেকে, ফ্রেন্ডশিপ নদী-ভিত্তিক সম্প্রদায়ের যেগুলি প্রায়শই মূল ভূখণ্ড থেকে পৌঁছনো কঠিন তাদের প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা এবং নির্দিষ্ট কিছু অস্ত্রোপচার পদ্ধতি সরবরাহের জন্য একটি স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা তৈরি করেছে। [৫] এনজিও এখন আরও দুটি ভাসমান হাসপাতাল চালু করেছে: ২০০৮ সালে এমিরেটস এয়ারলাইন ফাউন্ডেশন এবং গ্রিনপিসের প্রাক্তন রেইনবো ওয়ারিয়র দ্বিতীয়, রনগডনু ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল দ্বারা স্পনসরিত এমিরেটস ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল। [৬][৭] এটি আরও পাঁচটি হাসপাতাল জাহাজ পরিচালনা ও নির্মাণের জন্য ইসলামিক উন্নয়ন ব্যাংকের মাধ্যমে অনুদান পেয়েছে। [৮] ডিসেম্বর ২০১৭ এ পাঁচটি নতুন জাহাজের জন্য পায়ের পাতাটি রাখা হয়েছে।[৯]

২০০৫ সাল থেকে, মোবাইল স্যাটেলাইট ক্লিনিকগুলির একটি সিস্টেম স্থাপন করা হয়েছিল, যা তৃণমূল পর্যায়ে জনগোষ্ঠীর সেবা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের দ্বারা পরিপূরক। বর্তমানে, প্রতি মাসে, ফ্রেন্ডশিপের স্বাস্থ্য প্রোগ্রাম দ্বারা প্রায় ২ লাখ ৫০ হাজার ব্যক্তি চিকিত্সা করা হয়। [১]

ফ্রেন্ডশিপের শিক্ষা, দুর্যোগ পরিচালনা, সুশাসন, টেকসই অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং সাংস্কৃতিক সংরক্ষণ সম্পর্কিত প্রকল্প রয়েছে । এখন ফ্রেন্ডশিপ প্রতি মাসে প্রায় ৫ লাখ মানুষকে সহায়তা করে। [১০]

রুনা খান[সম্পাদনা]

রুনা খান একজন বাংলাদেশী সামাজিক উদ্যোক্তা [১১] এবং ফ্রেন্ডশিপ এনজিওর প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক। [১২] ফ্রেন্ডশিপ রুনা খানের “সংহত বিকাশের” মডেলের উপর ভিত্তি করে যার অর্থ স্বাস্থ্য, শিক্ষা, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা এবং এর মধ্যে যে একটি সম্প্রদায় জড়িত সেখানে অর্থনৈতিক উন্নয়ন সহ একাধিক ক্ষেত্রের সমস্যাগুলিকে সম্বোধন করে, যার মধ্যে একটিতে বিশেষজ্ঞ না করে। [১]

খান ২০০৬ সালে রোলেক্স অ্যাওয়ার্ড ফর এন্টারপ্রাইজের জন্য মনোনিত হন। পরবর্তীতে বাংলাদেশে ঐতিহ্যগত নৌকা ভবনের পড়ন্ত নৈপুণ্য সংরক্ষণে তাকে ফ্রেন্ডশীপের কর্মী হিসেবে বিজয়ী করা হয়। [১৩][১৪]

খান ১৯৯৬ সালে কনটিক নামে একটি পর্যটন সংস্থাও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন যা কাঠের ঐতিহ্যবাহী নৌকায় ভ্রমণ করে। [১৩] এর আগে, তিনি রোট শেখার থেকে দূরে সরে যাওয়ার লক্ষ্য নিয়ে বাচ্চাদের জন্য পাঠ্য-পুস্তক লিখেছিলেন, এমন একটি প্রচেষ্টা যা ১৯৯৪ সালে অশোক ফেলোশিপ অর্জন করেছিল। [১৫]

কাজের ক্ষেত্রসমূহ[সম্পাদনা]

সাংস্কৃতিক সংরক্ষণ

ফ্রেন্ডশিপ মূলত ব্রহ্মপুত্র এবং যমুনা নদী এবং বঙ্গোপসাগরের উপকূলীয় অঞ্চলে স্থানান্তরিত উত্তর নদী দ্বীপগুলিকে, চরগুলি হিসাবে পরিচিত, এবং সম্প্রদায়ের সহায়তা করে। ফ্রেন্ডশিপ বাংলাদেশের ১২ টি জেলার ২২ টি উপজেলায় সক্রিয় রয়েছে। বর্তমানে এর উত্তোলনগুলি উত্তরের কুড়িগ্রামগাইবান্ধা জেলা এবং দক্ষিণে পটুয়াখালী এবং সাতক্ষীরা জেলায় সবচেয়ে তীব্র এবং বহু-সেক্টরাল।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ফ্রেন্ডশিপ[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে ফ্রেন্ডশিপ কার্যকর হওয়ার তিন বছর পরে, রুনা খান ইউরোপে সমর্থনকারী সংস্থার নেটওয়ার্ক স্থাপনের পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। আজ ফ্রেন্ডশিপ উপস্থিত রয়েছে ইউরোপের লাক্সেমবার্গ, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস, যুক্তরাজ্য এবং জার্মানি সহ ৫ টি দেশে। [১৬]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

ফ্রেন্ডশিপ[সম্পাদনা]

  1. হস্তশিল্পের জন্য ওয়ার্ল্ড ক্রাফট কাউন্সিলের শ্রেষ্ঠত্বের পুরস্কার (২০১৪) [১৭]
  2. গাইবান্ধায় সেরা পারফর্মিং এনজিও (২০১১, ২০১২ ,২০১৩) এবং কুড়িগ্রাম (২০১২–২০১৩, ২০১৩–২০১৪, ২০১৪-২০১৪)

রুনা খান[সম্পাদনা]

  1. আরথোকন্টো এবং সিঙ্গাপুরের বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্সের ব্যবসায় এক্সিলেন্স পুরস্কার।
  2. ওয়ার্ল্ড সিএসআর কংগ্রেসের সামাজিক উদ্ভাবনী নেতৃত্ব পুরস্কার (২০১৪)
  3. সোয়াব ফাউন্ডেশন সামাজিক উদ্যোক্তা পুরস্কার (২০১২)
  4. এন্টারপ্রাইজ রোলেক্স পুরস্কারে সম্মানিত অতিথি (২০১১)
  5. এসসিডব্লিউইসি মহিলা উদ্যোক্তা এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড (২০১০) [১৮]
  6. বিকাশে মহিলাদের অবদানের জন্য আইডিবি পুরস্কার (২০০৮) [১৯]
  7. এন্টারপ্রাইজের রোলেক্স অ্যাওয়ার্ড (২০০৬) [২০]
  8. আর্থোন্টো দ্বারা নারী উদ্যোক্তা পুরস্কার (২০০৩)
  9. "দ্য ফ্লাওয়ার মেইন অ্যান্ড অন্যান্য স্টোরিজ" (২০০১) বইয়ের জন্য সেরা ডিজাইনের জন্য সরকারী পুরস্কার
  10. উদ্ভাবনী পাঠদান পদ্ধতির জন্য অশোক ফেলোশিপ (১৯৯৪)
  11. উদ্ভাবনী শিক্ষণ পদ্ধতি বাংলাদেশের জাতীয় পাঠ্যক্রম শিক্ষাবোর্ডের গৃহীত পদ্ধতির অংশ হয়ে উঠেছে (১৯৯০)
  12. "প্লেস্কুল অ্যাক্টিভিটি বুক ১ এবং ২" বইয়ের জন্য জাতীয় পুরস্কারে রানার-আপ (১৯৯০)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "New models of working and partnership in development: the example of Friendship, a Bangladeshi organisation"। ১৬ মে ২০১৬। 
  2. "For the Right to Live with Hope and Dignity"The Daily Star। ১৫ জানুয়ারি ২০১৬। 
  3. "The One Who Answered the Call"The Daily Star। ২০ জুন ২০১৫। 
  4. "A floating hospital for the poor"Daily Monitor। ২০ জুন ২০১৫। ১০ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. Crouch, Lizzie (২০০৮-০২-২৩)। "The chance to see in Bangladesh"BBC Health Check (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৮ 
  6. "Emirates opens floating hospital in Dhaka"Gulf News। ২৪ নভেম্বর ২০০৮। 
  7. "Friendship launches another hospital ship"The Daily Star। ১৫ নভেম্বর ২০১২। 
  8. "Ahoy there! The doctor will see you now..."Arab News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৯-৩০। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৮ 
  9. "Keel Laying Ceremony of floating hospital ships"www.nsnewswire.com (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০১-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৮ 
  10. "The friendlier side of Davos"Euronews। ২৫ জানুয়ারি ২০১৬। 
  11. Khan, Maliha (২০১৭-০৭-১৪)। "Can business and social change be compatible?"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৩ 
  12. "This social entrepreneur told us why businesses should see charities as service providers"Business Insider (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৩ 
  13. "Rolex Awards for Enterprise"Rolex Awards for Enterprise : Runa Khan : Overview (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৩ 
  14. "Anchoring Bangladesh's Ancient Boatbuilding Technology"National Geographic। ২০১৬-১১-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৩ 
  15. "Runa Khan"www.ashoka.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৩ 
  16. "Friendship: a network, projects and outlets"Banque de Luxembourg। ২৫ মে ২০১৪। 
  17. "World Crafts Council's Award of Excellence for Handicrafts 2014"। ১০ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  18. "Take a byte from these city women entrepreneurs"The New Indian Express। ৩০ নভেম্বর ২০১০। 
  19. "IDB Award for Saideh Ghods, the Mahak chief"Payvand Iran News। ৮ জুলাই ২০০৮। 
  20. "2006 Associate Laureate, Cultural Heritage Bangladesh"ROLEX Awards for Enterprise। ২২ জানুয়ারি ২০০৬। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]