ফ্রিটজল মামলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ফ্রিটজল মামলা ২০০৮ সালে যখন এলিজাবেথ ফ্রিটজল (জন্ম ৬ এপ্রিল ১৯৬৬) নামে একজন মহিলা অস্ট্রিয়ার লোয়ার অস্ট্রিয়ার আমস্টেটেন শহরের পুলিশকে বলেন যে তাকে তার বাবা জোসেফ ফ্রিটজল (জন্ম ৯ এপ্রিল, ১৯৩৫) ২৪ বছর ধরে বন্দী করে রেখেছে, তখন শুরু হয়। জে. ফ্রিটজল তার মেয়েকে তার পারিবারিক বাড়ির বন্দীশালার মতো একটি গোপন জায়গায় বন্দী করে লাঞ্ছিত, যৌন নির্যাতন এবং বারবার ধর্ষণ করে।[১][২] যৌন নির্যাতনের ফলে সাতটি সন্তানের জন্ম হয়:[৩] তাদের মধ্যে তিনজন তাদের মায়ের কাছে বন্দী ছিল; জন্মের মাত্র কয়েকদিন পর জে. ফ্রিটজলের হাতে একজনের মৃত্যু হয়। জে. ফ্রিটজল মৃতদেহকে পুড়িয়ে ফেলে।[৪] এবং বাকি তিনজন জে. ফ্রিটজল এবং তার স্ত্রী রোজমারির দ্বারা লালিত-পালিত হয়।

জে. ফ্রিটজলকে ধর্ষণ, অন্যায় কারাদণ্ড, অবহেলার মাধ্যমে হত্যা এবং অজাচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়। ২০০৯ সালের মার্চ মাসে, তাকে সমস্ত অপরাধের জন্য দোষী সাব্যস্ত করা হয় এবং যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

জোসেফ ফ্রিটজল ৯ এপ্রিল ১৯৩৫ সালে, নিম্ন অস্ট্রিয়ার আমস্টেটেনে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫৬ সালে, ২১ বছর বয়সে, তিনি ১৭ বছর বয়সী রোজমারিকে (জন্ম ২৩ সেপ্টেম্বর, ১৯৩৯) বিয়ে করেন, তাদের তিনটি ছেলে এবং চার মেয়ে ছিল, যার মধ্যে এলিজাবেথও ছিল একজন। এলিজাবেথ ৬ এপ্রিল ১৯৬৬ সালে জন্মগ্রহণ করেন। ফ্রিটজল ১৯৭৭ সালে এলিজাবেথকে যৌন নির্যাতন শুরু করে, ওই সময় এলিজাবেথের বয়স ছিল ১১[৫]

১৫ বছর বয়সে বাধ্যতামূলক শিক্ষা শেষ করার পর, এলিজাবেথ পরিচারিকা হওয়ার জন্য একটি কোর্স করা শুরু করেন। ১৯৮৩ সালের জানুয়ারিতে তিনি বাড়ি থেকে পালিয়ে যান এবং এক বন্ধুর সাথে ভিয়েনায় আত্মগোপনে চলে যান। তিন সপ্তাহের মধ্যে পুলিশ তাকে খুঁজে পায় এবং আমস্টেটেনে তার বাবা-মায়ের কাছে ফেরত নিয়ে আসে। এরপর তিনি তার ওয়েট্রেস (পরিচারিকা) কোর্সে পুনরায় যোগদান করেন। ১৯৮৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে তিনি এটি শেষ করেন এবং কাছাকাছি লিনজে একটি চাকরির প্রস্তাব পান।

বন্দিত্ব[সম্পাদনা]

এলিজাবেথের বয়স ১৮ বছর বয়স হওয়ার পর, ২৮ আগস্ট ১৯৮৪-এ ফ্রিটজল তাকে তার একটি দরজা বহন করতে সাহায্যের প্রয়োজন এই বলে তার পারিবারিক বাড়ির বেসমেন্টে যাওয়ার জন্য প্রলুব্ধ করে। বাস্তবে, ফ্রিটজল বেসমেন্টটিকে একটি অস্থায়ী কারাগারের চেম্বারে রূপান্তরিত করেছিল এবং দরজাটি ছিল সেই কারাগারের শেষ উপকরণ যা তাকে বন্দী করার জন্য প্রয়োজন ছিল।[৬] এলিজাবেথ দরজাটি জায়গামতো রাখার পরে ফ্রিটজল এটিকে ফ্রেমে লাগায়। এরপরই সে তার মুখে অজ্ঞান না হওয়া পর্যন্ত একটি ইথার ভেজানো তোয়ালে ধরে রাখে, তারপর তাকে চেম্বারে ফেলে দেয়।[৬]

এলিজাবেথের নিখোঁজ হওয়ার পর, রোজমারি একটি নিখোঁজ প্রতিবেদন দায়ের করেন। প্রায় এক মাস পরে, ফ্রিটজল পুলিশের কাছে একটি চিঠি হস্তান্তর করেন, এটি এলিজাবেথকে বন্দী অবস্থায় লিখতে বাধ্য করা প্রথম চিঠি ছিলো। ব্রাউনাউর ডাকটিকেট দেওয়া চিঠিতে বলা হয়েছে যে তিনি তার পরিবারের সাথে থাকতে থাকতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন এবং একজন বন্ধুর সাথে থাকতে বাড়ি ছেড়েছেন; সে তার বাবা-মাকে সতর্ক করে দিয়েছিল তার খোঁজ না করার জন্য, অন্যথায় সে দেশ ছেড়ে চলে যাবে। ফ্রিটজল পুলিশকে বলেছিলো যে এলিজাবেথ সম্ভবত একটি কাল্টে যোগ দিয়েছেন।[৩]

পরবর্তী ২৪ বছর ধরে, ফ্রিটজল প্রায় প্রতিদিন লুকানো চেম্বারে এলিজাবেথের সাথে দেখা করতেন, বা সপ্তাহে কমপক্ষে তিনবার, খাবার এবং অন্যান্য সরবরাহ নিয়ে যেতেন এবং বারবার তাকে ধর্ষণ করতেন। এলিজাবেথ তার বন্দিদশায় সাত সন্তানের জন্ম দেন।[৩] একটি শিশু জন্মের পরপরই মারা যায়, এবং তিনজন—লিসা, মনিকা এবং আলেকজান্ডারকে শিশু হিসেবে ফ্রিটজল এবং তার স্ত্রীর সঙ্গে বসবাসের জন্য চেম্বার থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়, যাদেরকে স্থানীয় সামাজিক পরিষেবা কর্তৃপক্ষ ফ্রিটজল ও রোজমারিকে পালক পিতামাতা হিসেবে অনুমোদন করেছিল। কর্মকর্তারা বলেছেন যে ফ্রিটজল "খুবই প্রশংসনীয়ভাবে" ব্যাখ্যা করেছেন যে কীভাবে তার তিন শিশু নাতি তার দোরগোড়ায় উপস্থিত হয়েছিল। সামাজিক কর্মীরা নিয়মিত পরিবারটি পরিদর্শন করতো, যারা তাদের সন্দেহ জাগানোর জন্য কিছুই দেখেনি এবং শুনেনি।[৭]

১৯৯৪ সালে চতুর্থ সন্তানের জন্মের পর, ফ্রিটজল এলিজাবেথ এবং তার সন্তানদের বছরের পর বছর ধরে খালি হাতে মাটি খননের কাজ করানোর মাধ্যমে কারাগারটি ৩৫ থেকে ৫৫ মি (৩৮০ থেকে ৫৯০ ফু) পর্যন্ত বাড়ানোর অনুমতি দেয়। বন্দীদের কাছে একটি টেলিভিশন, একটি রেডিও এবং একটি ভিডিও ক্যাসেট প্লেয়ার ছিল। খাবার রেফ্রিজারেটরে সংরক্ষণ করার ব্যবস্থাও রাখা হয়েছিলো এবং হট প্লেটে রান্না বা গরম করার সুবিধাও ছিলো। এলিজাবেথ শিশুদের পড়তে এবং লিখতে শিখিয়েছিলেন। মাঝে মাঝে, ফ্রিটজল তাদের লাইট বন্ধ করে বা মাঝেমাঝে খাবার সরবরাহ করতে অস্বীকার করে পরিবারকে শাস্তি দিত।[৮] ফ্রিটজল এলিজাবেথ এবং বাকি তিন সন্তানকে (কারস্টিন, স্টেফান এবং ফেলিক্স) বলেছিলেন যে তারা পালানোর চেষ্টা করলে তাদেরকে গ্যাস প্রয়োগ করা হবে। তদন্তকারীরা উপসংহারে পৌঁছেছেন যে এটি শিকারদের ভয় দেখানোর জন্য একটি ফাঁআ হুমকি ছিল; বেসমেন্টে কোনো গ্যাস সরবরাহ ছিল না।[৯] সে তাদের বলেছিল যে তারা যদি কয়েদখানার দরজায় হাত দেওয়ার চেষ্টা করে তবে তারা বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হবে।[১০]

ফ্রিটজলের ভগ্নিপতি ক্রিস্টিনের মতে, তিনি প্রতিদিন সকালে নয়টায় বেসমেন্টে যেতেন। দৃশ্যত মেশিনের জন্য নকশা আঁকতে যেতেন যা তিনি উৎপাদনকারী সংস্থাগুলোর কাছে বিক্রি করতেন। তিনি মাঝেমাঝে সেখানে রাতেও থাকতেন এবং তার স্ত্রীকে তার কফি নিতে দিতেন না। একজন ভাড়াটিয়া যিনি বারো বছর ধরে বাড়ির নিচতলার একটি কক্ষে ভাড়া থেকেছেন, তিনি বেসমেন্ট থেকে আওয়াজ শুনেছেন বলে দাবি করেছিলেন। এব্যাপারে ফ্রিটজল তাকে বলেছিলেন যে "ত্রুটিযুক্ত পাইপ" বা গ্যাস হিটিং সিস্টেমের কারণে এটা হয়েছিল।[১১]

আবিষ্কার[সম্পাদনা]

১৯ এপ্রিল ২০০৮-এ, এলিজাবেথের বড় মেয়ে কার্স্টিন অজ্ঞান হয়ে পড়ার পর ফ্রিটজল চিকিৎসার জন্য সম্মত হন। এলিজাবেথ তাকে কার্স্টিনকে চেম্বার থেকে বের করে নিয়ে যেতে সাহায্য করেছিলেন এবং চব্বিশ বছরে প্রথমবারের মতো বাইরের জগৎ দেখতে পান। ফ্রিটজল তাকে চেম্বারে ফিরে যেতে বাধ্য করেন, যেখানে তাকে আরও সপ্তাহের জন্য থাকতে হয়েছে।[৩] কারস্টিনকে অ্যাম্বুলেন্সের মাধ্যমে একটি স্থানীয় হাসপাতাল ল্যান্ডসক্লিনিকুম অ্যামস্টেটেনে নিয়ে যাওয়া হয় এবং প্রাণঘাতী কিডনি বৈকল্যের গুরুতর অবস্থায় ভর্তি করা হয়। ফ্রিটজল পরে হাসপাতালে পৌঁছে দাবি করে যে কার্স্টিনের মায়ের লেখা একটি নোট পাওয়া গেছে। তিনি কারস্টিনের অবস্থা এবং চিকিৎসক আলবার্ট রাইটারের সাথে নোট নিয়ে আলোচনা করেছিলেন।[১২]

চিকিৎসা কর্মীরা ফ্রিটজলের গল্পে অস্বাভাবিকতা খুঁজে পান এবং ২১ এপ্রিল পুলিশকে সতর্ক করেন। নিখোঁজ মাকে এগিয়ে আসার জন্য এবং কার্স্টিনের চিকিৎসা ইতিহাস সম্পর্কে তথ্য দেওয়ার জন্য পুলিশ গণমাধ্যমে একটি আবেদন সম্প্রচার করে।[১৩][১৪] পুলিশ এলিজাবেথের নিখোঁজের মামলার ফাইলটি আবারও খুলে। ফ্রিটজল এলিজাবেথকে একটি কাল্টে যোগ দেওয়ার গল্পটি আবারও পুনরাবৃত্তি করেন, এবং তার দাবির স্বপক্ষে এলিজাবেথের লেখা "সর্বাধিক সাম্প্রতিক চিঠি" উপস্থাপন করেন, যা জানুয়ারি ২০০৮ সালে, কেমাটেন শহর থেকে পাঠানো হয়েছিল।[৩] পুলিশ একজন চার্চ কর্মকর্তা ও কাল্ট বিশেষজ্ঞ ম্যানফ্রেড ওহলফাহর্টের সাথে যোগাযোগ করেন, যিনি বর্ণিত ফ্রিটজলের অস্তিত্ব নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন। তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে এলিজাবেথের চিঠিগুলিকে নির্দেশিত এবং অদ্ভুতভাবে লেখা বলে মনে হচ্ছে।

এলিজাবেথ ফ্রিটজলকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। ২৬ এপ্রিল, তিনি তাকে তার পুত্র স্টিফান এবং ফেলিক্স সহ কয়েদখানা থেকে ছেড়ে দেন ও তাদের উপরে নিয়ে আসেন। ২৬ এপ্রিল ২০০৮-এ তিনি এবং এলিজাবেথ সেই হাসপাতালে যান যেখানে কার্স্টিনের চিকিৎসা করা হচ্ছিল। ফ্রিটজল এবং এলিজাবেথ হাসপাতালে রয়েছে বলে রিটারের কাছ থেকে একটি গোপন সনবাদের পরে, পুলিশ তাদের হাসপাতালের মাঠে আটক করে এবং জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে যায়।

এলিজাবেথ পুলিশকে ততক্ষণ পর্যন্ত বিশদ বিবরণ দেননি যতক্ষণ না তারা তাকে প্রতিশ্রুতি দেয় যে তাকে তার বাবাকে আর কখনও দেখতে হবে না। পরের দুই ঘণ্টায় সে তার চব্বিশ বছরের বন্দিত্বের গল্প বলেন। এলিজাবেথ বর্ণনা করেছেন যে ফ্রিটজল তাকে ধর্ষণ করেছিল এবং তাকে পর্নোগ্রাফিক ভিডিও দেখতে বাধ্য করেছিল। তাকে অপমান করার উদ্দেশ্যে তার সন্তানদের সামনে তার সাথে পর্নোগ্রাফি চরিত্রগুলো পুনরায় অভিনয় করিয়েছেন।[৩] মধ্যরাতের পরপরই পুলিশ কর্মকর্তারা তদন্ত শেষ করেন। ৭৩ বছর বয়সী ফ্রিটজলকে, ২৬ এপ্রিল পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে গুরুতর অপরাধের সন্দেহে গ্রেপ্তার করা হয়।[১৫]

২৭ এপ্রিল রাতে, এলিজাবেথ, তার সন্তান এবং তার মা রোজমারিকে নিরাপদ স্থানে নেওয়া হয়। পুলিশ বলেছে যে ফ্রিটজল তদন্তকারীদের বলেছে কিভাবে একটি গোপন চাবিহীন এন্ট্রি কোড দ্বারা খোলা একটি ছোট লুকানো দরজা দিয়ে বেসমেন্ট চেম্বারে প্রবেশ করতে হয়। রোজমারি এলিজাবেথের সাথে কী ঘটছে তা জানতেন না।

২৯ এপ্রিল, এটি ঘোষণা করা হয়েছিল যে ডিএনএ প্রমাণ ফ্রিটজলকে তার মেয়ের সন্তানের জৈবিক পিতা হিসাবে নিশ্চিত করেছে।[১৬] তার প্রতিরক্ষা আইনজীবী, রুডলফ মায়ার বলেন, যদিও ডিএনএ পরীক্ষায় অজাচার প্রমাণিত হয়েছে, তবুও ধর্ষণ ও দাসত্বের অভিযোগের জন্য প্রমাণের প্রয়োজন ছিল।[১৭] তাদের ১ মে-এর দৈনিক সংবাদ সম্মেলনে, অস্ট্রিয়ান পুলিশ বলে যে ফ্রিটজল আগের বছর এলিজাবেথকে একটি চিঠি লিখতে বাধ্য করে এটা বলে যে, সে তাকে এবং শিশুদের মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা করছে। চিঠিতে বলা হয়েছে যে তিনি বাড়িতে আসতে চান কিন্তু "এখনও সম্ভব হচ্ছেনা।"[১৮] পুলিশ বিশ্বাস করে যে ফ্রিটজল তার মেয়েকে তার কাল্পনিক ধর্ম থেকে উদ্ধার করার ভান করার পরিকল্পনা করছিল।[১৯] পুলিশের মুখপাত্র ফ্রাঞ্জ পোলজার বলেছেন যে পুলিশ অন্তত ১০০ জনের সাক্ষাৎকার নেওয়ার পরিকল্পনা করেছে যারা আগের ২৪ বছরে ফ্রিটজল অ্যাপার্টমেন্ট বিল্ডিংয়ে ভাড়াটে হিসাবে বসবাস করেছিল।[২০]

সেল[সম্পাদনা]

অ্যামস্টেটেনে ফ্রিটজলের ভূসম্পদ হচ্ছে প্রায় ১৮৯০ সালের একটি ভবন। ফ্রিটজল ১৯৭৮ সালের পরে যখন "বেসমেন্ট সহ এক্সটেনশন" এর জন্য ভবন অনুমোদনের জন্য আবেদন করেন তখন একটি নতুন ভবন যুক্ত করা হয়। ১৯৮৩ সালে, বিল্ডিং ইন্সপেক্টররা সাইটটি পরিদর্শন করেন এবং যাচাই করে নিশ্চিত হন যে নতুন এক্সটেনশনটি অনুমোদনের নির্দিষ্ট মাত্রা অনুযায়ী নির্মিত হয়েছে। ফ্রিটজল দেয়াল দিয়ে আড়াল করে বেসমেন্টের জন্য অনেক বড় জায়গা খনন করে বেআইনিভাবে রুমটিকে বড় করেছিল। ১৯৮১ বা ১৯৮২ সালের দিকে, তার বিবৃতি অনুসারে, [১০] ফ্রিটজল এই লুকানো সেলারটিকে একটি কারাগারে পরিণত করতে শুরু করে এবং একটি ওয়াশবেসিন, টয়লেট, বিছানা, হট প্লেট এবং রেফ্রিজারেটর স্থাপন করে। ১৯৮৩ সালে, তিনি সম্পত্তির পুরানো অংশের নীচে একটি প্রাক-বিদ্যমান বেসমেন্ট এলাকায় একটি গিরিপথ তৈরি করে আরও স্থান যোগ করেন, যার কথা একমাত্র তিনিই জানতেন।

গোপন সেলারে একটি ৫ মি (১৬ ফু) করিডোর, একটি স্টোরেজ এলাকা, এবং সরু পথ দিয়ে সংযুক্ত তিনটি ছোট খোলা কক্ষ; এবং একটি সাধারণ রান্নার জায়গা এবং বাথরুমের সুবিধা, দুটি ঘুমানোর জায়গা ছিল, যার প্রতিটি দুটি বিছানা দিয়ে সজ্জিত ছিল। এটি আনুমানিক ৫৫ মি (৫৯০ ফু) এলাকা জুড়ে অবস্থিত ছিল। সেলটির দুটি প্রবেশপথ ছিল: একটি কব্জাযুক্ত দরজা যার ওজন ৫০০ কেজি (১,১০০ পা) যেটি এর ওজনের কারণে বছরের পর বছর ধরে ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পরে ছিল বলে মনে করা হয়, এবং কংক্রিট দিয়ে মজবুত এবং ৩০০ কেজি (৬৬০ পা) ওজনের স্টিলের রেলের উপর একটি ধাতব দরজা, যার পরিমাপ ১ মি (৩.৩ ফু) উচ্চতা এবং ৬০ সেমি (২.০ ফু) প্রশস্ত। এটি ফ্রিটজলের বেসমেন্ট ওয়ার্কশপের একটি শেলফের পিছনে একটি রিমোট কন্ট্রোল ইউনিট ব্যবহার করে প্রবেশযোগ্য একটি ইলেকট্রনিক কোড দ্বারা সুরক্ষিত অবস্থায় ছিল। এই দরজায় পৌঁছতে হলে পাঁচটি তালা লাগানো বেসমেন্ট রুম অতিক্রম করতে হতো। যে এলাকায় এলিজাবেথ এবং তার সন্তানদের বন্দী করা হয়েছিল সেখানে পৌঁছানোর জন্য, মোট আটটি দরজা খুলতে হতো, যার মধ্যে দুটি দরজা অতিরিক্ত ইলেকট্রনিক লকিং ডিভাইস দ্বারা সুরক্ষিত ছিল। [১] [২] [২১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

<style data-mw-deduplicate="TemplateStyles:r4968197">.mw-parser-output .reflist{font-size:90%;margin-bottom:0.5em;list-style-type:decimal}.mw-parser-output .reflist .references{font-size:100%;margin-bottom:0;list-style-type:inherit}.mw-parser-output .reflist-columns-2{column-width:30em}.mw-parser-output .reflist-columns-3{column-width:25em}.mw-parser-output .reflist-columns{margin-top:0.3em}.mw-parser-output .reflist-columns ol{margin-top:0}.mw-parser-output .reflist-columns li{page-break-inside:avoid;break-inside:avoid-column}.mw-parser-output .reflist-upper-alpha{list-style-type:upper-alpha}.mw-parser-output .reflist-upper-roman{list-style-type:upper-roman}.mw-parser-output .reflist-lower-alpha{list-style-type:lower-alpha}.mw-parser-output .reflist-lower-greek{list-style-type:lower-greek}.mw-parser-output .reflist-lower-roman{list-style-type:lower-roman}</style>

বিচার[সম্পাদনা]

বিচার[সম্পাদনা]

বিচারক আন্দ্রেয়া হিউমারের নেতৃত্বে ১৬ মার্চ, ২০০৯ তারিখে সাঙ্কত পোল্টেন শহরে জোসেফ ফ্রিটজলের বিচার শুরু হয়।

ফ্রিটজলের বিচারের সময় সাংবাদিকরা

প্রথম দিনে, ফ্রিটজল একটি নীল ফোল্ডার দিয়ে ক্যামেরা থেকে তার মুখ লুকানোর চেষ্টা করে আদালতের কক্ষে প্রবেশ করেছিল, যার অধিকার অস্ট্রীয় আইনে ছিল। মন্তব্য নেয়া শুরু করার পরে, সমস্ত সাংবাদিক এবং দর্শকদের আদালত কক্ষ থেকে বেরিয়ে যেতে বলা হয়েছিল, এরপর ফ্রিটজল তার বাইন্ডার নামিয়েছিলেন। ফ্রিটজল তাকে অমান্য করলে তার বন্দীদের গ্যাস প্রয়োগে হত্যার হুমকি ও গুরুতর আক্রমণের অভিযোগটি ছাড়া সমস্ত অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হয়েছিল। [২২]

ডিফেন্ডিং কাউন্সেল রুডলফ মায়ার তার প্রারম্ভিক মন্তব্যে, জুরির কাছে বস্তুনিষ্ঠ হওয়ার এবং আবেগের দ্বারা প্রভাবিত না হওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন। তিনি জোর দিয়েছিলেন যে ফ্রিটজল "একজন দানব নয়," এই বলে যে ফ্রিটজল ছুটির মওসুমে কারাকক্ষে তার বন্দীদের কাছে একটি ক্রিসমাস ট্রি নামিয়ে এনেছিল। [২৩]

  1. Dahlkamp, Jürgen; Kraske, Marion (৫ মে ২০০৮)। "How Josef Fritzl Created his Regime of Terror"Spiegel Online। ৮ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০০৮ 
  2. "Cellar in abuse case described"BBC News। ৫ মে ২০০৮। ৯ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০০৮ 
  3. "The Amstetten Horror House: 8,516 Days in Darkness"Spiegel Online। ৬ মে ২০০৮। ৮ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০০৮  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "daysindarkness" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "daysindarkness" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "daysindarkness" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "daysindarkness" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  4. "Incest father Fritzl to be charged with murder of baby he threw in"Evening Standard (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৮-০৯-০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-২৪ 
  5. Susan Donaldson James (২ মে ২০০৮)। "Elisabeth Fritzl's Trauma Like 'Walking Dead'"ABC News। ৬ সেপ্টেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০০৯ 
  6. Hall, Allan (২০০৮)। Monster। Penguin। আইএসবিএন 978-0-14-103970-1 
  7. "Profile: Josef Fritzl"BBC News। ১৯ মার্চ ২০০৯। ১ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০০৮ 
  8. Eben Harrell, Austria's Sex-Slave Father Tells His Side of the Story ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৬ অক্টোবর ২০০৮ তারিখে, 23 October 2008, Time.
  9. Sam, Adreas (১৬ মে ২০০৮)। "Josef Fritzl's threats to gas family were a bluff"Daily Telegraph। London। ১৭ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০০৮ 
  10. Elizabeth Stewart and agencies (৯ মে ২০০৮)। "The urge to taste forbidden fruit was too strong"The Guardian। London। ২ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ মে ২০০৮ 
  11. "'Second man' at Austrian cellar"BBC News। ১ মে ২০০৮। ৫ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০০৮ 
  12. "Doctor found note from victim"BBC News। ২৯ এপ্রিল ২০০৮। ২ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মে ২০০৮ 
  13. "Fritzl girl wakes from coma and is reunited with her family"। The Daily Telegraph। ৯ জুন ২০০৮। ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ অক্টোবর ২০১৫ 
  14. Landler, Mark (২৮ এপ্রিল ২০০৮)। "Austria Says Man Locked Up Daughter"The New York Times। ২৮ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০০৮ 
  15. "Timeline: Austrian cellar case"BBC News। ১৯ মার্চ ২০০৯। ১ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০০৮ 
  16. "DNA 'backs Austrian incest claim'"BBC News। ২৯ এপ্রিল ২০০৮। ২ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০০৮ 
  17. Allen, Nick (২৯ এপ্রিল ২০০৮)। "Lawyer: Fritzl denies rape and abduction"। London: telegraph.co.uk। ২ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০০৮ 
  18. "Fritzl made daughter write 'fake' release letter"। metro.co.uk। ১ মে ২০০৮। ২ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০০৮ 
  19. "How Fritzl Planned To Blame Years Of Torture On Evil Sect"Daily Express। ২ মে ২০০৮। ৫ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০০৮ 
  20. "The Family Man of Amstetten: Double life of a pillar of Austrian society"The Independent। ২৭ অক্টোবর ২০১১। ৩০ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ অক্টোবর ২০১৫ 
  21. "Inside Josef Fritzl's cellar dungeon"BBC News। ৩০ এপ্রিল ২০০৮। ২ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০০৮ 
  22. "Austria incest trial under way"। Al Jazeera English। ১৬ মার্চ ২০০৯। ৪ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  23. Connolly, Kate (১৬ মার্চ ২০০৯)। "Josef Fritzl trial: 'She spent the first five years entirely alone. He hardly ever spoke to her'"The Guardian। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৬