ফোকাস (জার্মান সাময়িকী)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফোকাস
Focus logo gross 2017.jpeg
সম্পাদকরবার্ট স্কেইডার
বিভাগসাময়িক পত্র
প্রকাশনা সময়-দূরত্বসাপ্তাহিক
সংবহন৪৪১.৮০৫ (০২/২০১৭)
প্রকাশকহেলমাট মার্কোর্ট
প্রথম প্রকাশ১৮ জানুয়ারি ১৯৯৩; ২৭ বছর আগে (1993-01-18)
কোম্পানিহুবার্ট বুর্ডা মিডিয়া
দেশজার্মানি
ভিত্তিমিউনিখ
ভাষাজার্মান
ওয়েবসাইটwww.focus.de
আইএসএসএন০৯৪৩-৭৫৭৬
রবার্ট স্কেইডার, ২০১৬সাল থেকে প্রধান সম্পাদক

ফোকাস হলো একটি জার্মান-ভাষার সাময়িক পত্র বা সাময়িকী, যা প্রকাশ করে হুবার্ট বুর্ডা মিডিয়া।[১][২] এটা সাপ্তাহিক পত্রিকা হিসেবে স্পিজেল এর পাশাপাশি ১৯৯৩সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।[৩][৪] ২০১৫সালে জার্মানির রাজধানী বার্লিনে নতুন সদস্যদের নিয়ে এটির সদর দপ্তর খোলা হয়।[৫] স্পিজেল এবং স্টার্নের পাশাপাশি, ফোকাস হলো জার্মানে সবচেয়ে প্রচলিত সাপ্তাহিকী।[৬][৭] এটি প্রতিষ্ঠা করেন হুবার্ট বুর্ডা এবং হেলমাট মার্কোর্ট[৮][৯][১০] ২০১৬সালের মার্চ অনুযায়ী বর্তমানে এটির প্রধান সম্পাদক হলেন রবার্ট স্কেইডার।[১১][১২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

"জুগমিজে" কোড নাম দিয়ে ১৯৯১সালের গরমে ফোকাসের কাজ শুরু করা হয়।[১৩] ১৯৯২সালের অক্টোবরে, হুবার্ট বুর্ডা মিডিয়া নতুন সাময়িক পত্রের পরিকল্পনার ঘোষণা দেন।[১৪] পর্যবেক্ষকরা ধারণা করেন এই পরিকল্পনাটি শুধু অল্প সফল হতে পারবে।[১৫] স্পিজেল এবং স্টার্ন সাময়িকীর প্রতিযোগী হিসেবে অন্য প্রকাশকদের প্রচেষ্টা পূর্বে কয়েকবার ব্যর্থ হয়েছে। ফোকাসের প্রথম সংস্করণ ১৮জানুয়ারি, ১৯৯৩সালে প্রকাশ করা হয় এবং তা পরের দিনই বিক্রয় হয়ে যায়।[১৬] ফোকাসের স্লোগান ছিল "দ্যা মডার্ন ম্যাগাজিন" এবং হেলমাট মার্কোর্ট সাময়িকীর প্রথম প্রধান সম্পাদক হন।[১৭][১৮][১৯] ফোকাস সম্পর্কে ইতিবাচক এবং নেতিবাচক উভয় ধরনের মন্তব্য ছিল।[২০] পর্যবেক্ষকরা ফোকাসকে স্পিজেলের কঠোর প্রতিযোগী মনে করে।[২১]

পাঁচটি সমস্যার পর, ফোকাসের ১৫,০০০জন গ্রাহক ছিলো এবং এটির ৩০০,০০০সংখ্যার বেশি বিক্রিত হয়। এটি শুরু থেকেই বাণিজ্যিকভাবে সফল ছিল।[২২] হুবার্ট বুর্ডা মিডিয়ার বাণিজ্যিক সক্ষমতা বাড়াতে এই সাময়িকী বড় ভূমিকা রাখে।[২৩][২৪][২৫] ১৯৯৪সালের মাঝে, একটি ডাচ আদালত নির্দেশ দেয় যে, দন্ধের কারণে ফোকাসকে বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস এবং লুক্সেমবার্গ এ বিক্রি করা যাবেনা।[২৬] এটির পর, ফোকাস বাণিজ্যিক বৃদ্ধির কৌশল বজায় রাখে।[২৭][২৮][২৯] বুর্ডা ধীরে ধীরে আন্তর্জাতিকভাবে এর বাণিজ্য বাড়ায়, যেমন, এটি যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যম দল জিফ ডেভিস এর সাথে চুক্তি সম্পন্ন করে।[৩০] ১৯৯৬সালে ইন্টারনেটে পোর্টাল ফোকাস অনলাইন উদ্ভোদন করা হয়। আবার এটি ফোকাস টিভি নাম দিয়ে টেলিভিশন মাধ্যমে যোগ দেয়।[৩১][৩২][৩৩][৩৪] ফোকাস জার্মানের একটি মুখ্য সাময়িক পত্রে পরিণত হয়।[৩৫] ১৯৯৭সালে, এটির প্রকাশক হুবার্ট বুর্ডা সাময়িকীর সৃজনশীল আবিষ্কারের জন্য বিভিন্ন পুরস্কার পায়।[৩৬][৩৭]

২০১৭সালে, ফোকাস মিউনিখ এবং ডুসেলডর্ফে এর অফিস বন্ধের ঘোষণা দেয়।[৩৮][৩৯] তারপর থেকে, এই সাময়িকী সম্পূর্ণ বার্লিনে তৈরি হয়।[৪০] এই বছরের শেষে, হুবার্ট বুর্ডা মিডিয়া একটি প্রচারণা অভিযান চালায়, যার নাম "মুঞ্চেন ইম ফোকাস" (ফোকাসে লোকজন)।[৪১]

বিতরণ[সম্পাদনা]

ফোকাস হলো সবচেয়ে বিক্রিত সাময়িক পতৃর এবং বিজ্ঞাপন বাজারের একটি বড় অংশ এটির দখলে।[৪২] স্পিজেল এবং স্টার্নের মতো, ফোকাস ক্ষতি সামলাতে পেরেছে। যদিও ১৯৯৮সাল থেকে ২০১৭সালের মাঝে এটির বিক্রিত সংখ্যার পরিমাণ ৭৮২,৬৮৫ থেকে ৪৩৮,০৫৫ এ কমে আসে।[৪৩][৪৩]

সমালোচনা[সম্পাদনা]

২০১৬সালে, ফোকাস যৌন নিপীড়নের উপর একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে যেটি সমালোচনার সৃষ্টি করে।[৪৪] এটির মূল পৃষ্ঠাতে একজন নগ্ন শেতাঙ্গ নারীর দেহে কালো হাতের ছাপ দেখা যায়, এটিকে অনেকে "নগ্নতা" এবং "বর্ণবাদ" হিসেবে তুলনা করেছে।[৪৫][৪৬][৪৭][৪৮] জার্মান প্রেস কাউন্সিল ফোকাসের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ পেয়েছে,[৪৯] কিন্তু সবগুলোকে অগ্রাহ্য করা হয়েছে।[৫০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "15 Jahre Fakten, Fakten, Fakten"Focus Online (German ভাষায়)। ২০০৮-০১-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  2. "Focus feiert 20-jähriges Bestehen"Der Standard (German ভাষায়)। ২০১৩-০১-১৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  3. Ekkehard Kohrs (১৯৯৩-০১-১৯), "Burdas Kampfansage an Augstein", Bonner General-Anzeiger (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 3 
  4. Rainer Hoffmann (১৯৯৩-০১-২১), "Bunter Spiegel", Neue Zürcher Zeitung (German ভাষায়) 
  5. "Nachrichtenmagazin: Focus zieht nach Berlin um"Spiegel Online (German ভাষায়)। ২০১৫-০৯-১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  6. "Ein starkes Führungs-Trio", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 66, ২০০৩-১১-২০ 
  7. "Focus, Spiegel, Stern: Die Großen im tiefen Wandel", Nordkurier (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 25, ২০১৪-০৮-২৭ 
  8. Heidrun Plewe (১৯৯৩-১২-১৭), "Wenige glaubten zunächst an den Erfolg", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 20 
  9. "Focus-Chefredakteur Markwort geht"Zeit Online (German ভাষায়)। ২০০৯-১০-২৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  10. Marvin Schade (২০১৭-০১-১৭)। "Ende einer Ära: Magazin-Gründer Helmut Markwort gibt Focus-Herausgeberschaft ab"Meedia (German ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৭-১৮ 
  11. Sonja Álvarez (২০১৬-০১-২১)। "Neuer Chefredakteur für den Focus"Der Tagesspiegel (German ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  12. "Neuer Focus-Chef kommt von der Super Illu"Spiegel Online (German ভাষায়)। ২০১৬-০১-২১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  13. "Eine Zugmieze macht Karriere", Kress Report (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 8, ২০১৩-০১-১০ 
  14. "Focus: Burda will es wissen", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 46, ১৯৯২-১০-০৯ 
  15. Harald Kurz (১৯৯২-০৯-১৮), "Zugmieze: Zugpferd oder Katzenjammer?", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 56 
  16. Uli Baur (২০১২-০৩-১৯), "Das war unser Start", Focus Magazin (German ভাষায়), সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  17. Heinz Pürer, Johannes Raabe (২০০৭), Presse in Deutschland (German ভাষায়) (3. সংস্করণ), Konstanz: UVK, পৃষ্ঠা 263, আইএসবিএন 978-3-8252-8334-6 
  18. "Ein Mann der Fakten", Frankfurter Neue Presse (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 1, ২০১১-১২-০৮ 
  19. Klaus Schmeh (২০০৪), David gegen Goliath: 33 überraschende Unternehmenserfolge (German ভাষায়), Frankfurt am Main: Redline, পৃষ্ঠা 34, আইএসবিএন 3-8323-1057-6 
  20. "Brennpunkt Focus am Montag", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 2, ১৯৯৩-০১-২২ 
  21. "Focus kontra Spiegel", Saarbrücker Zeitung (German ভাষায়), ১৯৯৩-০১-১৬ 
  22. Heidrun Plewe (১৯৯৩-০২-১৯), "Focus liegt zur Zeit gut im Plan", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 25 
  23. "Burda kostet Focus-Erfolg aus", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 6, ১৯৯৪-০৪-০১ 
  24. "Investitionen kräftig ausgeweitet: Verlag auf der Focus-Welle", Handelsblatt (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 16, ১৯৯৪-০৭-২২ 
  25. "Burda-Konzern wächst im letzten Jahr dank Focus", Der Tagesspiegel (German ভাষায়), ১৯৯৫-০৫-১২ 
  26. "Focus nicht mehr in den Benelux-Laender", Deutscher Drucker (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 4, ১৯৯৪-০৮-২৫ 
  27. "Nachrichtemagazine: Burda bleibt mit Focus auf Erfolgskurs", Deutscher Drucker (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 4, ১৯৯৪-০৮-০৪ 
  28. Peter Turi (১৯৯৫-০৩-১৭), "Mit Fakten, Fakten auf dem Weg zur Spitze", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 70 
  29. "Fakten zu Focus", Die Tageszeitung (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 14, ১৯৯৫-১২-০১ 
  30. "Burdas Focus-Verlag kooperiert mit Ziff-Davis", Deutscher Drucker (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 6, ১৯৯৪-০৭-০৭ 
  31. Thomas Voigt (১৯৯৬-০১-১৯), "Markwort gebiert weitere Focus-Kinder", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 36 
  32. "Focus-Online-Währung", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 12, ১৯৯৬-০১-১২ 
  33. Isabella Hofmann (১৯৯৬-০২-০৬), "Focus bald auch im TV: Neues Fernsehmagazin startet im März auf Pro7", Wirtschaftsblatt (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 7 
  34. "Focus TV liefert Beiträge für Frauensender tm3", Der Tagesspiegel (German ভাষায়), ১৯৯৬-০৮-০৮ 
  35. Barbara Held (১৯৯৭-১১-৩০), "Ende des Amüsements", Der Tagesspiegel (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 31 
  36. "Hubert Burda erhält den Medienpreis für Focus", Horizont (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 108, ১৯৯৭-১০-৩০ 
  37. "Focus ist Hubert Burdas Erfolgsstory", Darmstädter Echo (German ভাষায়), ২০০০-০২-০৯ 
  38. David Hein (২০১৭-০৩-৩০)। "Focus verlässt München und baut Stellen ab"Horizont (German ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-২২ 
  39. "Nachrichtenmagazin: Focus schließt Büros in München und Düsseldorf"Handelsblatt (German ভাষায়)। ২০১৭-০৩-৩০। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-২২ 
  40. Alexander Krei (২০১৭-০৩-৩০)। "Focus schließt Büros in München und Düsseldorf"DWDL (German ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-২২ 
  41. Gregory Lipinski (২০১৭-০৫-১১)। "Leserkampagne Menschen im Focus: Wie Burda dem Wochenmagazin ein neues Image verpasst"Meedia (German ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-২২ 
  42. Bettina Kaltenhäuser (২০০৫), Abstimmung am Kiosk (German ভাষায়), Springer, পৃষ্ঠা 93–96, আইএসবিএন 3-8244-4617-0 
  43. "Quartalsauflagen" (German ভাষায়)। Informationsgemeinschaft zur Feststellung der Verbreitung von Werbeträgern। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  44. "Schwarze Hände auf nackter, blonder Frau: Focus wegen Köln-Cover im Sexismus-Shitstorm"Meedia (German ভাষায়)। ২০১৬-০১-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  45. Sonja Álvarez (২০১৬-০১-১১), "Nackte Beleidigung", Der Tagesspiegel (German ভাষায়), পৃষ্ঠা 21 
  46. Lalon Sander, Anna Böcker (২০১৬-০১-০৯)। "Titel der Schande"Die Tageszeitung (German ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  47. "Rassistische Titelbilder: Süddeutsche entschuldigt sich, Focus nicht"Spiegel Online (German ভাষায়)। ২০১৬-০১-১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  48. "Medien-Diskussion geht weiter: Wir bilden ab, was leider passiert ist"Der Tagesspiegel (German ভাষায়)। ২০১৬-০১-১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  49. Renate Bölingen (২০১৬-০১-১১)। "Beschwerden gegen Focus-Titelbild beim Deutschen Presserat"Deutschlandfunk (German ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 
  50. "Keine Rüge für den Focus: Presserat weist alle Beschwerden zur Berichterstattung in Köln ab"Meedia (German ভাষায়)। ২০১৬-০৩-১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-৩০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]