ফেমিনা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ফেমিনা
ফেমিনা লোগো.png
ফেমিনা ইংরেজি ম্যাগাজিন প্রচ্ছদ.png
ফেমিনা'র এপ্রিল ২০১৯ সংখ্যা
বিভাগনারী সাময়িকী
প্রকাশনা সময়-দূরত্বদ্বিসাপ্তাহিক
প্রকাশকদ্য টাইমস গ্রুপ
প্রথম প্রকাশজুলাই ১৯৫৯
কোম্পানিওয়ার্ল্ডওয়াইড মিডিয়া
দেশভারত
ভিত্তিমুম্বই
ভাষাইংরেজি, হিন্দি, বাংলা এবং তামিল
ওয়েবসাইটwww.femina.in
OCLC নম্বর1327320

ফেমিনা টাইমস গ্রুপের সম্পূর্ণ মালিকানাধীন পার্শ্ব-সংস্থা ওয়ার্ল্ডওয়াইড মিডিয়ার মালিকানাধীন একটি ভারতীয় ম্যাগাজিন[১] প্রায় ছয় দশক ধরে দেশের অন্যতম প্রাচীন এবং সুপরিচিত নারীদের সাময়িকী ফেমিনা প্রকাশিত হচ্ছে। এটি সম্পর্ক, পেশা, ফ্যাশন, সৌন্দর্য, এবং মহিলাদের অর্জনকারীরা যারা তাদের পছন্দের ক্ষেত্রগুলিতে একটি চিহ্ন রেখে গেছেন সহ বিভিন্ন বিষয়ের বিস্তৃত বর্ণনা প্রকাশ করে যাচ্ছে। ফেমিনা ভারতের ফেসবুকে ২.৯ মিলিয়ন,[২] ইনস্টাগ্রামে ৯৩৭,০০০, [৩] এবং টুইটারে ৫৯৯,০০০ ফলোয়ার রয়েছে। [৪]

দ্বিমাসিক পত্রিকাটি ফেমিনা হিন্দি,[৫] ফেমিনা বাংলা[৬] এবং ফেমিনা তামিল[৭] শাখাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে।

এর কয়েকটি উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হলো ফেমিনা বিউটি অ্যাওয়ার্ডস,[৮] ফেমিনা উইমেন অ্যাওয়ার্ডস,[৯] ফেমিনা স্টাইলিস্টা,[১০] ফেমিনা শোকেজ,[১১] এবং আরও কয়েকটি।

ইতিহাস এবং পরিচিতি[সম্পাদনা]

ফেমিনা ১৯৫৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।[১][১২] সাময়িকীটি ১৯৫৯ সালের জুলাইয়ে প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল। এটি ১৯৬৪ সাল থেকে ফেমিনা মিস ইন্ডিয়া বিউটি প্রতিযোগিতার আয়োজন ও স্পনসর করেছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত এটি এলিট মডেল লুক প্রতিযোগিতায় পাঠাতে কোনও ভারতীয় প্রতিযোগীকে ফেমিনা লুক অব দ্য ইয়ার প্রতিযোগিতার স্পনসর করেছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন][উদ্ধৃতি প্রয়োজন ]

সম্পাদক ১৯৫৯ – বর্তমান[সম্পাদনা]

ট্রেন্ড এবং ফ্লেয়ারের মতো ম্যাগাজিনে সম্পাদক হিসাবে কাজ করার পরে ফ্রেইন তাল্যখান ১৯৫৯ সালে ফেমিনার সম্পাদক হন, যখন ফ্লেয়ারকে টাইমস অফ ইন্ডিয়া গ্রুপ কর্তৃক ক্রয় করা হয়েছিল। তার সম্পাদনাকালীন সময়ে কর্মীরা হলেন ইনা সেন, বিমালা পাতিল, অনিতা সরকার এবং নিনা মার্চেন্ট। পাতিল ১৯৭৩ সালে ফেমিনার সম্পাদক হন, এবং পরবর্তী ২০ বছর এই পদে থাকেন।[১৩] পাতিলের পরে সতী সরান ছিলেন, যিনি ১৯৯৩ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। অ্যামি ফার্নান্দেজ ২০০৫ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত দু'বছর সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য এই পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন এবং তারপরে ম্যাগাজিনের বর্তমান সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন তানিয়া চৈতন্য।

"প্রেসক্রিপশন" কলাম[সম্পাদনা]

১৯৮০ এর দশকের শেষের দিকে একটি নতুন কলাম চালু করা হয়েছিল, বিশেষত মহিলারা যে কোনও ধরণের যৌন জটিলতার সম্মুখীন হতেন তা নিয়ে প্রশ্ন করতে পারতেন। ডা. প্রকাশ কোঠারি এবং ডা. মাহিন্দর ভাস্তা মতো স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞরা প্রশ্নগুলোর জবাব দিতেন।[১৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Dana McLachlin; Tara Dhakal (Spring ২০১২)। "For All the Women You Are": National Identity, Gender, and Tradition/Modernity in Indian Women's Magazines"School for International Training India। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১৬ 
  2. https://www.facebook.com/feminawoman
  3. https://www.instagram.com/feminaindia/
  4. https://twitter.com/FeminaIndia
  5. "महिलाओं की पत्रिका/मैगजीन - फ़ैशन, सौंदर्य, रिश्ते, स्वास्थ्य, खानपान – Women's Hindi Magazine"फेमिना हिन्दी (হিন্দি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৪ 
  6. "মহিলাদের পত্রিকা- ফ্যাশন, সৌন্দর্য, সম্পর্ক, স্বাস্থ্য- Fashion, Beauty & Lifestyle Tips for Women in Bengali"ফেমিনা বাংলা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৪ 
  7. "பெண்களுக்கான இதழ் – ஃபேஷன், அழகு, உறவுகள், ஆரோக்கியம் | ஃபெமினா தமிழ் | Women's Magazine - Fashion, Beauty, Relationships, Health | Femina Tamil"பெமினா (তামিল ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৪ 
  8. "Nykaa.com Femina Beauty Awards 2018: winners"femina.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৪ 
  9. "Our winner in the education category, Aarti Naik, grew up in the slums of Mumbai before she started SAKHI, an organisation focused on providing safe learning spaces for girls in their slums. She received the award from actor Tisca Chopra and Sanjay Bhagwanani, GM, Distribution Channel, Havells."femina.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৪ 
  10. "Femina Stylista North 2018 ends on a grand note"femina.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৪ 
  11. "Beauty, trendy fashion and fun at the Femina Showcase"femina.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৪ 
  12. Amrita Madhukalya (১৯ জুলাই ২০১৫)। "Of recipes and G-spots: On India's 'magazine era'"dna। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  13. "CHPATERIV THE ROLE AND PROBLEMS OF WOMEN JOURNALISTS IN CONTEMPORARY INDIA Women and Social Change in Contemporary India The par" (PDF)webcache.googleusercontent.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১৭ 
  14. Dewey, Susan (২০০৯)। ""Dear Dr. Kothari...": Sexuality, Violence against Women, and the Parallel Public Sphere in India": 124–139। আইএসএসএন 0094-0496জেস্টোর 27667533ডিওআই:10.1111/j.1548-1425.2008.01104.x 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]