ফাতিমা ভুট্টো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফাতিমা ভুট্টো
فاطمہ بھٹو
ভুট্টো ২০১৩ সালে এসওএএস-তে বক্তব্য রাখছিলেন।
ভুট্টো ২০১৩ সালে এসওএএস-তে বক্তব্য রাখছিলেন।
জন্ম (1982-05-29) ২৯ মে ১৯৮২ (বয়স ৩৮)
কাবুল, আফগানিস্তান
পেশালেখিক, সংবাদপত্রের বিভাগীয় লেখক
বাসস্থানকরাচী, পাকিস্তান
জাতীয়তাপাকিস্তানী
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানবার্নার্ড কলেজ, কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটি (বি.এ) এসওএএস,
লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় (এম. এ)
আত্মীয়ভুট্টো পরিবার
ওয়েবসাইট
fatimabhutto.com.pk

ফাতিমা ভুট্টো ( উর্দু: فاطمہ بھُٹّو‎‎ ; জন্ম ২৯ মে ১৯৮২) একজন পাকিস্তানী লেখক। তিনি কাবুলে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি মুর্তজা ভুট্টোর মেয়ে, পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর ভাতিজি এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভুট্টোর নাতনী। [১] তিনি তার ফুফু বেনজির ভুট্টো এবং তার স্বামী আসিফ আলী জারদারির সমালোচক। তাদের বিরুদ্ধে তিনি তার বাবার হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ করেছিলেন। [২] [৩]

ভুট্টো সিরিয়াকরাচিতে বেড়ে ওঠেন এবং বার্নার্ড কলেজ থেকে বিএ করেন এবং এসওএএস থেকে এমএ করেন । [৪] তাঁর প্রকৃত তথ্যভিত্তিক সাহিত্য বই, গানেস অফ ব্লাড অ্যান্ড তরোয়াল (২০১০) যা ছিল তাঁর পরিবার সম্পর্কে। [৫] ভুট্টোর অন্যান্য প্রকাশনার মধ্যে ছিল দ্য নিউজ এবং দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকা দুইটি যেখানে তিনি বিভিন্ন লেখালেখি করেছেন। [৬] [৭]

জীবনের প্রথমার্ধ[সম্পাদনা]

পরিবার[সম্পাদনা]

ভুট্টো ১৯৮২ সালের ২৯ মে মাসে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মুর্তজা ভুট্টো এবং তার মা ছিলেন আফগানি । তার মায়ের নাম ফৌজিয়া ফসিহুদিন ভুট্টো। তার মা ছিলেন কাবুলের আফগানিস্তানের প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রীর কন্যা । [১] মুহাম্মদ জিয়া-উল-হক সামরিক শাসনামলে তার বাবা নির্বাসনে ছিলেন। তার তিন বছর বয়সে তার বাবা-মায়ের বিবাহবিচ্ছেদ হয় এবং তার বাবা তাকে সঙ্গে নিয়ে দেশে থেকে বিদেশে চলে যান। সেখানে তিনি কার্যকরভাবে রাষ্ট্রহীন হয়ে বেড়ে ওঠেন। তার বাবা সিরিয়ায় নির্বাসনের সময় ১৯৮৯ সালে লেবাননের ব্যালে শিক্ষক ঝিনওয়া ভুট্টোর সাথে দেখা করেছিলেন এবং তারা বিবাহ করেছিলেন।

তিনি ভুট্টো ঝিনওয়াকে তার আসল মা হিসাবে বিবেচনা করেন। তিনি জুলফিকার আলী ভুট্টোর নাতনী, বেনজির ভুট্টোর ভাতিজি এবং নূসরাত ভুট্টোর নাতনী যিনি একজন ইরানীয়-কুর্দী[১] [৮]

১৯৯৬ সালে করাচিতে তার বাবার বোন বেনজির ভুট্টো প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন। এই সময়ে তার বাবাকে পুলিশ হত্যা করেছিলেন। তাঁর আসল মা ফৌজিয়া ফ্যাসিহউদিন ভুট্টোর পিতামাতার হেফাজত অর্জনের চেষ্টা করেন তবে তার চেষ্টা ব্যর্থ হয়। [১] তিনি তার সৎ মায়ের সাথে [৯] করাচির ওল্ড ক্লিফটনে থাকেন । তার সৎ ভাই জুলফিকার আলী ভুট্টো জুনিয়র সান ফ্রান্সিসকোতে অবস্থানরত একজন শিল্পী। [১০]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

ভুট্টো তার মাধ্যমিক শিক্ষা করাচি আমেরিকান স্কুলে করেছিলেন। তিনি ২০০৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্নার্ড কলেজ থেকে বিএ ডিগ্রি নিয়ে স্নাতক হন, বার্নার্ডেতে তিনি মধ্যপ্রাচ্য এবং এশীয় ভাষা ও সংস্কৃতিতে মুখ্য ছিলেন। [১১] [১২] তিনি ২০০৫ সালে লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের এসওএএস থেকে দক্ষিণ এশিয়ান স্টাডিজে এমএ করেন। সেখানে তিনি পাকিস্তানের প্রতিরোধ আন্দোলন নিয়ে তাঁর গবেষণামূলক প্রবন্ধ লিখেছিলেন। [১৩]

পেশা[সম্পাদনা]

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

১৯৯৯ সালে তার ১৫ বছর বয়সে ভুট্টো তাঁর প্রথম বইটি হুইপ্সার অফ দি ডেসার্ট নামে প্রকাশ করেছিলেন। তার দ্বিতীয় বইটিঅক্টোবর ২০০৫ সকাল ৮.৫০ -এ ২০০৫ সালের কাশ্মীরের ভূমিকম্পের মুহূর্তটি চিহ্নিত করে; এটিতে ক্ষতিগ্রস্থদের তথ্য তৈরি করেন। [১৪]

ভুট্টোর পরিবারের স্মৃতিকথার গানগুলি ব্লাড এন্ড স্বয়ার্ড ২০১০ সালে প্রকাশিত হয়েছিল। বইটিতে ভুট্টো তার বাবার বোন বেনজির এবং তার স্বামী আসিফ জারদারিকে তার বাবা মুর্তজা হত্যার জন্য দোষী বলে দাবি করেন। বইটি পরিবারের ইতিহাসে পক্ষপাতদুষ্ট বলে সমালোচকদের কাছ থেকে নেতিবাচক পর্যালোচনায় মিশ্রিত হয়েছিল। [১৫] পরিবারের বেশ কয়েকজন সদস্য তাদের বিরুদ্ধে তথ্যগুলো মিথ্যা বলে অভিযোগ করেছেন। [১৬]

নভেম্বর ২০১৩ সালে, তাঁর প্রথম কাল্পনিক উপন্যাস দি শ্যাডো অফ দি ক্রিসেন্ট মুন প্রকাশিত হয়েছিল। বইটি ২০১৪ সালে কথাসাহিত্যের জন্য বেইলিস মহিলা পুরষ্কারের জন্য দীর্ঘ তালিকাভুক্ত ছিল। [১৭] ২০১৫ সালে ডেমোক্রেসি নামে ভুট্টোর ছোট গল্পটি পেঙ্গুইন বইয়ের আওতায় প্রকাশিত একটি ই-বুক প্রকাশিত হয়েছিল। [১৮]

২০১৯ সালে, তার দ্বিতীয় উপন্যাস, দ্য রুনাওস প্রকাশিত হয়েছিল। বইটিতে তিন যুবক মুসলিম পুরুষের র‌্যাডিকালাইজেশনের যাত্রা অন্বেষণ করা হয়েছে। উপন্যাসটি এই বিষয়টির জন্য সমালোচকদের প্রশংসা পেয়েছে। [১৯] [২০] [২১] অক্টোবরে, নিউ কিং অফ দ্য ওয়ার্ড: বলিউড, ডিজি এবং কে-পপ থেকে প্রেরণগুলি প্রকাশিত হয়েছিল। [২২]

রাজনীতি[সম্পাদনা]

তার ফুফু বেনজির ভুট্টো হত্যার পরে রাজনীতিতে প্রবেশের বিষয়ে জল্পনা শুরু হয়েছিল। একটি সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন যে আপাতত তিনি নির্বাচিত দপ্তরের চেয়ে তার লেখার মাধ্যমে সক্রিয় থাকতে পছন্দ করেন। [১] এবং তিনি বলেন "পাকিস্তানের রাজবংশের প্রভাবের কারণে পুরোপুরি একটি রাজনৈতিক পেশা করতে হবে"।, ভুট্টো পরিবারের বংশ এবং পাকিস্তানের রাজনীতির সাথে তার সম্পর্ক উল্লেখ করেন। ভুট্টো রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় থাকলেও তিনি কোনও রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ত নন। [২৩]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

তাঁর ধর্মীয় বিশ্বাস সম্পর্কে ভুট্টো একটি সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, তিনি একজন সাংস্কৃতিক মুসলিম এবং নিজেকে ধর্মনিরপেক্ষতাবাদী হিসাবে বর্ণনা করেছেন। [২৪] [২৫] ভুট্টো বিভিন্ন বিষয় উপলক্ষে ইসলামকে রক্ষা করেছেন এবং মেয়েদের পোশাক নির্বাচনে মুসলিম মহিলাদের অধিকারকে সমর্থন করেছেন। [২৬] [২৭]

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Walsh, Declan (১১ জানুয়ারি ২০০৮)। "The Broken Bloodline"। The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১০ 
  2. Benazir covered up my father's murder, says Fatima Bhutto– The Hindu
  3. Benazir, the PM, was cruel: Fatima Bhutto– NDTV
  4. "SOAS on brand wagon"www.telegraphindia.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১৭ 
  5. Walsh, Declan (২০১০-০৪-২৯)। "Bhutto memoir provokes angry reaction in Pakistan"The Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0261-3077। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১৭ 
  6. "Fatima launches her innings as Bhutto's struggle for political survival"। Pakistan: The Nation। ২৭ জানুয়ারি ২০০৬। ১১ মার্চ ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১০ 
  7. Goodman, Amy (১৯ ফেব্রুয়ারি ২০০৮)। "Outspoken Niece of Benazir Bhutto Accuses Aunt's Party of Fraud in Pakistani Elections"Democracy Now!। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১০ 
  8. Langley, William. (15 February 2009) Fatima Bhutto: A beauty to tame George Clooney – and even Pakistan?. Telegraph.co.uk. Retrieved on 2016-12-31.
  9. Fletcher, Hannah (২৮ ডিসেম্বর ২০০৭)। "Who's who in the Bhutto dynasty"The Times। London। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১০ 
  10. Meet Faluda Islam, the Muslim Drag Queen From the Future
  11. Resmovits, Joy (২৯ নভেম্বর ২০০৭)। "Bhutto Sees Politics, Pakistan Firsthand"Columbia Daily Spectator। New York। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১০ 
  12. Three Barnard alumnae nominated for Baileys Women’s Prize for Fiction Barnard College
  13. "Fatima Bhutto receives Masters Degree"। Pakistan Press International। ১৬ ডিসেম্বর ২০০৫। ২ জানুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১০ 
  14. A novel approach ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে Telegraph India
  15. Daughter of dynasty–TOI
  16. Zulfikar's daughter, nephew dispute claim in Fatima's book – The Hindu
  17. Fatima Bhutto nominated for fiction prize Dawn
  18. Zubair, Hamna (২৯ মার্চ ২০১৫)। "Rehashing the predictable: Review of Democracy by Fatima Bhutto"www.dawn.com। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  19. The Runaways by Fatima Bhutto review – pathways to Islamist extremism The Guardian
  20. ‘The Runaways’ by Fatima Bhutto: She has the ear for the slightest details of the human condition The Hindu
  21. Pakistani author Fatima Bhutto to come out with new novel. Here's when you buy it Hindustan Times
  22. Aw, Tash (১১ অক্টোবর ২০১৯)। "New Kings of the World by Fatima Bhutto — pop goes east"Financial Times। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  23. SONGS OF CORRUPTION: Christian Parenti with Fatima Bhutto. The Brooklyn Rail. Retrieved on 31 December 2016.
  24. Fatima Bhutto's interview in Italy Youtube
  25. Fatima Bhutto: ‘Everything is political, if you do it right’ Asia Times
  26. Fatima Bhutto: “The Islam that I know gives women a lot of rights” Vogue
  27. Fatima Bhutto: “Everyone connects the burqa to oppression, but this isn’t the full story” Verdict