ফরাসি পলিনেশিয়ায় ভ্যানিলা উৎপাদন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফরাসি পলিনেশিয়ার হুয়াহিনVanilla tahitensis গাছ

ভ্যানিলা উৎপাদন ফরাসি পলিনেশিয়ার স্থানীয় অর্থনীতিতে ব্যাপক অবদান রেখেছে। যদিও, ১৮৪৮ সালের আগে ফ্রান্সের এটি একটি প্রধান রপ্তানি ফসল ছিল, তবে ভ্যানিলা এখন আর উল্লেখযোগ্য রপ্তানি পণ্যের তালিকায় নেই।[১]

ফরাসী ঔপনিবেশিকদের দ্বারা ফরাসি পলিনেশিয়ায়, প্রথম ভ্যানিলা উৎপাদন শুরু হয়। পরবর্তীতে এটি আইল্যান্ডের গুরুত্বপূর্ণ অর্থকরী ফসলে পরিণত হয়। বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে, উৎপাদন বর্তমান সময়ের চেয়ে বেশী ছিল; বার্ষিক ১৫০-২০০ টন ভ্যানিলা উৎপাদন হতো এবং জনসংখ্যার একটি বড় অংশ এর চাষাবাদের সাথে জড়িত ছিল। তবে বছরের পর বছর বেশ কিছু কারণ, এর উৎপাদনকে  প্রভাবিত করছিল। Vanilla tahitensis (তাহিতিয়ান ভ্যানিলা), এর সবচেয়ে বড় সমবায় সোসাইটি আইল্যান্ডস এ।[২] তাহা আইল্যান্ড ভ্যানিলার দ্বীপ নামেও পরিচিত।[৩] কারণ ফরাসি পলিনেশিয়ায় উৎপাদিত প্রায় ৮০% ভ্যানিলা এই দ্বীপে উৎপাদিত হয়।

প্রেক্ষাপট[সম্পাদনা]

তাহিতিয়ান ভ্যানিলা হল Vanilla planifola (মেক্সিক্যান ভ্যানিলা এবং বোরবন ভ্যানিলা)-র একটি সংকর  এবং Vanilla odorata (অপ্রতুল ভ্যানিলা) ফরাসি পলিনেশিয়া উৎপাদিত হয়, বিশেষত তাহিতি ও হাওয়াই -এ। এর বীজের পরিমাণ Vanilla planifolia ভ্যানিলা থেকে কম, যেটি সরাসরি প্রতিদ্বন্দ্বী নয়।[4] মেক্সিক্যান ভ্যানিলা, উন্নত ভ্যানিলার নির্যাস প্রস্তুতিতে ব্যবহৃত হয়।[৪] কুমারিন সদৃশ ঘ্রাণ হওয়ায়, তাহিতিয়ান ভ্যানিলা প্রাথমিক নির্যাস তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। তাছাড়া, তাহিতিয়ান ভ্যানিলা গ্রিন টি, ভ্যানিলা তেল, ভ্যানিলা পাউডার, ভ্যানিলা রাম, এবং ভিনেগার ভিত্তিক ভ্যানিলা তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

নৌসেনাপতি হামেলীন

মূলত, ভ্যানিলা দক্ষিণ আমেরিকার একটি স্থানীয় ফসল, যা ১৮৪৮ সালে প্যাসিফিকের একজন ফরাসি কমান্ডার, নৌসেনাপতি ফার্দিনান্দ-অ্যালফোন্স-হামেলীন কর্তৃক ফরাসি পলিনেশিয়ায় প্রথম চালু করা হয়। তিনি তাহিতিয়ান গভর্নরের বাগানে উদ্ভিদের কয়েক ডজন নমুনা বিতরণ করেন।[৫] পরবর্তীকালে, এ এলাকায় ভ্যানিলার নতুন উন্নত প্রকরণ সৃষ্টি করা হয় এবং তাহিতিয়ান ভ্যানিলা হিসাবে পরিচিতি লাভ করে। পৃথিবীর অপরপ্রান্তে উৎপাদিত Vanilla planifolia র তুলনায় এর বিশেষ বৈচিত্র্য আছে, বিশেষত স্বাদ ও গন্ধে। একারণেই তাহিতিয়ান ভ্যানিলার ব্যাপক চাহিদার সৃষ্টি হয়েছে।

এক বছরের মধ্যেই ফরাসি পলিনেশিয়ায় এর বিস্তৃতি লাভ করে এবং ৪০ বছরের মধ্যে‌ই এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স,ও ব্রিটেনের একটি প্রধান রপ্তানি পণ্য হয়ে ওঠে। প্রাথমিকভাবে ভ্যানিলা চাষ ফরাসি মূলভূখন্ডের মালিকানাধীন ছিল। পরে স্থানীয় তাহিতিয়ানদের ফসল চাষের প্রক্রিয়া শেখানো হয়। স্থানীয় পরিবারগুলো এর বীজ শুঁটি থেকে চারা উৎপাদন শুরু করে। যাইহোক, বিংশ শতকের মধ্যে, চীনা, যারা প্রথমে চাষের জন্য শ্রমিক হিসেবে আসেন,তারাই প্রাথমিকভাবে ফসল প্রক্রিয়াকরণ, বিপণন, এবং আন্তর্জাতিক বাজারে বিপণনের কাজ করেছিল। যদিও, কিছু খামার এখনও ফরাসি এবং স্থানীয়  মানুষ মালিকানাধীন।[২]

উৎপাদন[সম্পাদনা]

তাহিতিয়ান ভ্যানিলার রপ্তানি
তাহা'র ভ্যানিলা গাছ

ভ্যানিলা একক ফসল এবংআন্তঃ ফসলের ন্যায় জমির ছোট প্যাচের উপর জন্মায় না। যেহেতু, এর বৃদ্ধির জন্য অনেক পানির প্রয়োজন, এজন্য এটি দ্বীপের বৃষ্টিবহুল প্রতিবাতের দিকে বেশী লাগানো হয়। প্রাথমিকভাবে, এর আঙ্গুরের কিছু উচ্চতা বাড়া না পর্যন্ত ছোট গাছ রোপণ করা হয়। এরপর এগুলো মাটির কাছাকাছি নিয়ে এসে কাটা হয় যাতে এটা মাঠ জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। গাছ প্রায়  তিন বছর বয়সী হলে এর ফুল ধরা আরম্ভ হয় এবং ফুল ফোটার সময় হল জুলাই থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত।[২]

প্রাথমিকভাবে রপ্তানির জন্য, ১৯৩৯ সালে ২০০ টনের বেশি উৎপাদিত হয়।[২] তবে ১৯৪৫ সালের দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় উৎপাদন প্রায় ১২৫ টন(মেট্রিক) হ্রাস পায়।[৬] প্রক্রিয়াজাত ভ্যানিলা পরিবহন খরচ, বিনিময় হার, রাষ্ট্রীয় সংরক্ষণবাদ, উদ্ভিদ রোগ, আন্তর্জাতিক অর্থনীতি  অসমঞ্জসতা, সস্তায় প্রাপ্যতা ইত্যাদি কারণ, 1985 সালে প্রায় চার টন ভ্যানিলা রপ্তানি ব্যাহত করে এবং ভ্যানিলা অর্থনীতিকে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত করে।

অর্থনীতি পুনরুজ্জীবনের লক্ষ্যে The Centre d’Experimentation du Pacifique (CEP) প্রতিষ্ঠা করা হয়। অর্থনীতি অপূর্ণতাকে কাটিয়ে তোলার লক্ষ্যে এটি ১৯৬২ সালে চালু করা হয়েছিল।অর্থনীতির ভিত্তি প্রস্তর ভ্যানিলা উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছিল।নতুন আবিষ্কার, উৎপাদনের নতুন কলাকৌশল, বাতিঘরে চাষাবাদ প্রক্রিয়ার ফলে, কম নিবিড়-পরিশ্রমে (ঘরে নিয়ন্ত্রিত জলবায়ু দরুন) এবং বাহিরে চাষাবাদের চেয়ে কম রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহারে চাষাবাদ করা শুরু হয় । ২০১০ সালে এ নিয়ন্ত্রিত ১২ টন রপ্তানির রেকর্ড হয়।  বর্তমান দিনে, এটি পলিনেশিয়ার "সাংস্কৃতিক পরিচয় এবং গর্ব মর্যাদার প্রতীক"[২] ভ্যানিলা উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে , সরকারপ্রদত্ত অনেকের কম প্রচারণামূলক কর্মকান্ডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এমন কি বিমানের  অন-বোর্ড(ইংরেজী) খাবার একপ্রকার মিষ্টান্ন বিতরণ করা হয় যা তাহিতিয়ান ভ্যানিলা থেকে প্রস্তুত করা হয়।

[২]

২০১৩ সালের হিসাবে, ফরাসি পলিনেশিয়ায়(বিশেষভাবে তাহিতিতে) ভ্যানিলা উৎপাদন (এফ.এ.ও. রেকর্ড ২০১৩) মোট বিশ্ব উত্পাদনের মাত্র 0.07%।প্রতি ৭ হেক্টর (১৭ একর) এলাকায় এর ফলন ছিল ৬০ টন।[৭] তুলনামূলকভাবে, মাদাগাস্কারের ফলন ছিল ৩,৫০০ টন, এবং ইন্দোনেশিয়ায় ফলন ছিল ৩৪০০ টন। [৮]

কিছু পর্যটকের জন্য চাষাবাদ  উন্মুক্ত করা হয়; উদাহরণস্বরূপ হামেনের কাছাকাছি মিসন দে লা ভানিলিকে ভ্যানিলা প্রস্তুতি এবং শুকানোর প্রক্রিয়া দেখতে অনুমতি দেওয়া হয়।[10] তাহা দ্বীপের লোকজন নিজেদের ব্যক্তিগত সাজসরঞ্জাম দ্বারা একটি সফর পরিচালনা করে, যার ফলে পর্যটকরা হুরেপিতি উপসাগর এর কাছাকাছি বৃহদায়তন চাষাবাদের দিকে ঝুঁকে পড়ে।[৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

গ্রন্থপঞ্জী